ADs by Techtunes tAds
ADs by Techtunes tAds

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ই-কমার্স – Amazon অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা Jeff Bezos জেফ বেজোস সম্বন্ধে অজানা সব তথ্য

সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে আমার আজকের টিউন শুরু করছি। আমার আজকের বিষয়টা একটু ভিন্ন । আপনার অনেকেই জেফ বেজোস এর নামটা শুনে থাকবেন । আর না শুনে থাকলে আজই জেনে নিন তার সম্পর্কে । আমরা যে Amazon.com এর নামটা জানি তার পেছনে যে মানুষটা আছেন তিনি হলেন জেফ বেজোস । আজকের এই অনলাইন শপিং পদ্ধতির জনক তিনিই । তিনিই প্রথম অনলাইন শপিং চালু করেন এবং অ্যামাজন.কম প্রতিষ্ঠা করেন ।

ADs by Techtunes tAds

বর্তমানে এই মানুষটি বিশ্বের ২১ তম ধনী ব্যাক্তি । তার মোট সম্পদের পরিমাণ হল ২৮.৮ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু এই মানুষটা কোন স্থন থেকে শুরু করে আজ এই পজিশনে আছেন এা আমরা অনেকেই জানি না । তবে , আজ আমরা তার জীবন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব । আমরা আজ জেফ বেজোস এর জীবন সম্পর্কে ২০ টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ জিনিস জানব ম যার মাধ্যমে আমরা সবাই অনুপ্রেরণা পেতে পারি । তো চলুন , শুরু করা যাক ।

জেফকে যে মানুষ করেছিলেন তিনি তার আসল পিতা ছিলেন না

Jeffrey Preston Jorgensenlit নামের এই ব্যাক্তি , যেটা তার ছোট বেলার নাম , তিনি ১৯৬৪ সালের ১২ জানুয়ারী জন্মগ্রহন করেন । তার বাবা ও মায়ের নাম হল জ্যাকলিন গিস র্জগসেন এবং টেড জর্গসেন । তারা বিয়ের মাত্র ১ বছর পরেই ডিভোর্স হয়ে যান । তারপর তার মা আবার মিগুয়েল মাইক বেজোস নামের এক ব্যাক্তিকে বিয়ে করেন ।

Source: Biography.com

Image Source: Achievement.org

তার দাদুর কাছ থেকে পাওয়া অনুপ্রেরণা

জেফ বেজোস এর দাদু যিনি লরেন্স প্রিস্টন , যিনি ইউ এস এটোমিক এজেন্সি কমিশনের রিচিওনাল ডিরেক্টর ছিলেন , জেফ এর জীবনে তার অবদানই মনে হয় সবথেকে বেশী । এবং এই দাদুর কারণেই জেফ কম্পিউটারের প্রতি ঝুকে পড়েন যেটা তার পরবর্তী জীবনকে বদলে দিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলে ।

ADs by Techtunes tAds

Source: Wired.com

Image Source: Achievement.org

যেকোন বিষয়ে ছিল ব্যাপক আগ্রহ

জেফ বেজোস এর একটা শখ ছিল । সেটা হল কোন জিনিস কভিাবে কাজ করে সেটা বোঝা এবং কোন নষ্ট জিনিস মেরামত করা । এই কাজে তিনি সবসময়ই অন্যদের থেকে একধাপ এগিয়ে ছিলেন । তার ছোটবেলার সপ্ন ছিল মহাকাশ সম্পর্কিত কাজ করা ।

Source: Wired.com

Image Source: Biography.com

জেফ ছিলেন অত্যান্ত ক্রিয়েটিভ একজন মানুষ

তিনি ছোটবেলা থেকেই একজন খুবই ক্রিয়েটিভ মানুষ ছিলেন । তিনি সবসময় বিভিন্ নতুন নতুন জিনিস আবিষ্কারের ভেতর ডুবে থাকতেন । যেমন তিনি ছোটবেলাতেই সোলার কুকার , হোভারক্রাফট , রোবট , ইলেকট্রিক এলার্ম ইত্যাদি আবিষ্কার করেন । তার তৈরী করা এলার্ম তিনি একটা সিকিউরিটি সিস্টেম হিসেবে কাজে লাগাতেন ।

Source: Biography.com

তার হাইস্কুল লাইফ

জেফ বেজোস হাই স্কুলে পড়াড় সময়ই নিজেকে একজন খুবই মেধাবী ও দক্ষ ছাত্র হিসেবে প্রমাণ করতে সক্ষম হন । তিনি প্রথমে প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটিতে ফিজিক্সে পড়া শুরু করেন , কিন্তু পরবর্তীতে তিনি কম্পিউটার সায়েন্স ও ইলেকট্রিক্যাল ইন্জিনিয়ারিং এ পড়াশোনা করেন ।

ADs by Techtunes tAds

Source: Achievement.org

Image Source: Snakkle.com

জীবনের সবথেকে বড় দর্শন

২০১০ সালে প্রিন্সটন ইউুনর্ভাসিটিতে এক বক্তৃতা কালে তিনি তার জীবনের একটা কাহিনী বলেন । তিনি যখন তার দাদীকে তার সিগারেট খাওয়া সম্পর্কে জানান তখন তার দাদী খুবই দুঃখ পান । তারপর তার দাদু তাকে বলেছিলেন যে “জেফ , একদিন তুমি বুঝবে দয়ালূ হওয়া চালাক হওয়া থেকে অনেক কঠিন” । এই কথা তার জীবনে প্রতি ক্ষেত্রে চরমভাবে সত্য প্রমাণিত হয়েছিল ।

Source: Princeton.edu

Image Source: Npr.org

চাকরিতে যোগদান করা

জেফ তার কর্মজীবনের প্রথমে ফিটেল নামের একটা টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানীতে চাকরি করতেন । সেই কোম্পানীটা ২ বছর টিকেছিল । তারপর তিনি ব্যাংকার্স ট্রাস্ট এ একটা চাকরি করতেন । এরপর তিনি D.E. Shaw নামের একটা ইনভেস্টমেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্মে জয়েন করেন । এটা ছিল ওয়াল স্ট্রীটে ।

Source: Biography.com

ADs by Techtunes tAds

একজন কলিগের প্রেমে পড়া ও বিয়ে

ম্যাকেনজি বেজোস নামের তার একজন কলিগ ছিল D.E. Shaw কোম্পানীতে । তিনি এই কোম্পানীতে কাজ করার সময় এ্ই মেযের প্রেমে পড়েন । অঃতপর তারা ১৯৯৩ সালে বিয়ে করেন । এইসময়ই তারা অ্যামাজন ডট কম এর প্লান তৈরী করেন ।

Source: WSJ.com

Image Source: Edge.org

জেফ বেজোস এর সন্তান সন্ততি সমাচার

জেফ এবং ম্যাকেনজির জীবনে মোট ৩ টি ছেলে ও একটি মেয়ে ছিল । এই মেযেটি অবশ্র তাদের নিজের না । মেয়েটিকে তারা চায়না থেকে দত্তক নেন ।

Source: CNN.com

Image Source: Dailymail.co.uk

চাকরি ছেড়ে অ্যামাজন প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ

একটা সময় জেফ অ্যামাজন কোম্পানী স্টার্ট করার সিদ্ধান্ত নেন । জেফ এইসময় D.E. Shaw কোম্পানীর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন । তিনি অ্যামাজন প্রতিষ্ঠা করার জন্য এই চাকরি টা ছেড়ে দেন । এইসময় তিনি একটা বাড়ি ভাড়া নেন এবং তার প্রথম কর্মচারী শেল কাপান কে নিয়ে অ্যামাজন এর কাজ শুরু করেন ।

ADs by Techtunes tAds

Source: Wired.com

Image Source: Geekwire.com

একদিনেই অ্যামাজন নাম আসেনি

অ্যমাজন.কম কিন্তু একদিনেই অ্যামাজন.কম হয়নি । মানে জেফ যখন অনলাইন শপিং এর চিন্তুভাবনা নিয়ে প্রথম কাজ শুরু করেন তখন এটার নাম অ্যামাজন ছিল না । প্রথমে শুরু করার সময় এটি Cadabra বা Relentless.com নামে পরিচিত ছিল । পরে এটার নতুন নামকরণ করা হয় Amazon.com। এটার নাম মুলত নেওয়া হয়েছে দক্সিণ আমেরিকার নদী Amazon এর নাম থেকে । অর এর লোগোটার ডিজাইনে A তেকে Z পর্যন্ত একটা তীর চিহ্ন রয়েছে । এটা দ্বারা জেফ বোঝাতে চেয়েছেন যে এখানে মানুষের যত রকম পণ্য প্রয়োজন ততরকম সব পণ্যই পাওয়া যাবে ।

Source: TheGuardian.com

Image Source: Amazon Media Room

জেফ ছোট ছোট কাজে বিশ্বাস করতেন

জেফ তার ব্যাক্তিগত জীবনে “Two Pizza Rule” এ বিশ্বাস করতেন । তিনি বিশ্বাস করতেন যে একটা টীমকে যদি একটা পিজার ২ টা অংশ দ্বারা না সন্তুষ্ট করা যায় তাহলে এটা অনেক বড় একটা কাজ । তার কাছে সবার মতামত একসাথে করে সিদ্ধান্ত নেবার থেকে তার স্বাধীন চিন্তাধারাই গুরুত্ব খুব বেশী ছিল যেটা তার জীবনের মোড় ঘোরাতে অনেক সহায়তা করে ।

Source: FastCompany.com

Image Source: MT.nl

ADs by Techtunes tAds

তিনি এখনও খুবই হিসাবী ব্যাক্তি

জেফ তার বাস্তব জীবনে ছিলেন খুবই মিতব্যায়ী। তার এই বৈশিষ্ঠটা Amazon.com শুরু করার সময় থেকেই প্রকাশ পায় । তার গ্যারেজে কাজ করার সময় তিনি একটা কাঠের দরজা থেকে একটা টেবিল তৈরী করেছিলেন । মজার ব্যাপার হল এখন পর্যন্ত Amazon.com এর কাঠের টেবিল গুলো সেই ডো-ডেস্ক মডেলে তৈরী ।

Source: Businessweek.com

Image Source: Artdaily.org

শুধু কাজ নয় , মহানুভবতাও ছিল জেফ এর ভেতর

জেফ শুধু একজন ভাল ব্যাবাসয়ীই ছিলেন না । কিনি একজন খুবই উদার মনের মানুষ ছিলেন । তার একজন কর্মচারী একবার ওয়াশিংটনে একটা সেম সেক্স ম্যারেজ এর জন্য তার কাছে ১ লাখ ডলার ডোনেশন চান । সেই সময় তিনি তাকে ২.৫ মিলিয়ন ডলার দিয়ে দেন । এটা থেকে বোঝা যায় যে তিনি কতটা উদার মনের মানুষ ছিলেন ।

Source: NYTimes.com

Image Source: FreedomToMarry.org

প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে তিনি ছিরেন একজন খুবই কঠোর প্রতিযোগী

জেফ এর ভেতর মনে হয় সবরকম গুণই প্রকট ছিল একজন সফল মানুষের যেগুলো থাকার দরকার । তিনি একজন খুবই প্রতিযোগিতাশীল মানুষ ছিলেন । তিনি তার প্রতিযোগীদের পরাস্ত করার জন্য তার কোম্পানীর পণ্যে একটা বিরাট ডিসকাউন্ট দিয়ে দেন । তার একজন খুবই কাছের পপ্রতিযোগী ছিল Quidsi , যিনি Diapers.com এর মালিক ছিলেন । জেফ তাকে মার্কেট থেকে বিদায় করার জন্য এক বিশাল ডিসকাউন্ট দেন । যেটা তার বিজনেসকে একেবারেই বিধস্ত করে দেয় ।

ADs by Techtunes tAds

Source: SeattleTimes.com

Image Source: WashingtonPost.com

অলসতা মোটেই পছন্দ করতেন না জেফ

জেফ তার কোম্পানী নিয়ে অনেক সচেতন ছিলেন । তিনি অনেক বেশী কমপিটিটিভ মাইন্ডের ছিলেন এবং তিনি তার কোম্পানীর কারও অলসতা মোটেও পছন্দ করতেন না । তিনি সবসময়ই তার কোম্পানীর জন্য কর্মঠ ও কম্পিটিটিভ মাইন্ডের মানুষ খুজতেন । তিনি তার কর্মচারীদের অনেক সময় ডিরেক্ট ইনসাল্ট ও করতেন । যেমন “ আপনি কী অলস বা আপনার ভেতর কী প্রতিযোগীতামূলক কোন মানসিকতা নেই ?”

Source: Forbes.com

Image Source: Flickr.com

জীবনের ভয়াবহ এক্সিডেন্ট

২০০৩ সালে জেফ একটা হেলিকপ্টার এক্সিডেন্টের সম্মুখীন হন এবং এটার ফলে তার মাথায় মারাত্ম আঘাত লাগে । আর মজার ব্যাপার হল এই ঘটনার পর থেকে জেফ হেলিকপ্টারে চড়াই বন্ধ করে দেন ।

Source: FastCompany.com

Image Source: TheSmokingGun.com

ADs by Techtunes tAds

নিউজপেপার কোম্পানী ক্রয়

জেফ বেজোস ২০১৩ সালে Washington Post কিনে নেন ২৫০ মিলিয়ন ডলার দিয়ে । এটার মাধ্যমে তিনি অনেক পত্রিকার ও নিউজের হেডলাইনে পরিণত হন ।

Source: WashingtonPost.com

Image Source: Dailymail.co.uk

আরও অনেক শখ

আগেই বলেছি যে জেফ এর ছোটবেলার ইচ্ছা ছিল এ্যরোস্পেস নিয়ে । তিনি বর্তমানে ২০১০ সালে ব্লু অরিজিন নামের একটা স্পেস কোম্পানী তৈরী করেন । এটা মানুষকে কম খরচে মহাকাশ ভ্রমণের একটা সুযোগ করে দিচ্ছে ।

Source: Forbes.com

Image Source: Blueorigin.com

অ্যামাজনের পরবর্তী চিন্তাভাবনা

জেফ এর লেটেস্ট প্রোজেক্ট হল “Amazon Prime Air” , যেটাতে তিনি তার বিভিন্ন পণ্য বিভিন্ন দেশে ডেলিভার করার জন্য ড্রোন ইউজ করছেন । যদিও Federal Aviation Administration (FAA) এখনও তার এই বিষয়টা এপ্রুভ করেনি কারণ , কর্মাসিয়াল প্রয়োজনে ড্রোন ইউজ করার কোন নিয়ম এখনও নেই । যদিও জেফ এই বিষয়ে অত্যান্ত আশাবাদী যে তিনি আগামী কয়েক বছরের ভেতরই এই প্রজেক্ট সফল ভাবে শুরু করতে পারবেন ।

ADs by Techtunes tAds

Source: USAToday.com

Image Source: Amazon.com

আজ এই পর্যন্তই । আবার পরে কোন একদিন অন্য কোন বিষয় নিয়ে আসব আপনাদের সামনে । সেই পর্যন্ত সবাই ভাল থাকবেন  । কোন কিছু  জানার থাকলে কমেন্টে বলবেন । ধন্যবাদ ।

ADs by Techtunes tAds
Level 0

আমি অরিন্দম পাল। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 6 বছর 7 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 82 টি টিউন ও 316 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 14 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

মানসিক ভাবে দূর্বল । কোন কাজই কনফিডেন্টলি করতে পারি না , তবুও দেখি কাজ শেষ পর্যন্ত হয়ে যায় । নিজের সম্পর্কে এক এক সময় ধারণা এক এক রকম হয় । আমার কোন বেল ব্রেক নেই । সকালে যে কাজ করব ঠিক করি , বিকালে তা করতে পারি না । নিজের...


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ভাল লাগলো পড়ে ! ধন্যবাদ

জানানোর জন্য ধন্যবাদ ।

ভালো লিখেছেন, ধন্যবাদ ৷

thanks, onek valo laglo.

চমৎকার শেয়ার। ধন্যবাদ।