ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

আধুনিক প্রযুক্তির ভয়ংকর অবদানঃ যুদ্ধ বিমানের ইতিবৃত্ত

Main Picture

ADs by Techtunes ADs

আধুনিক প্রযুক্তির কত কত অবদান। এর অবদান কি আমরা বলে শেষ করতে পারবো? প্রযুক্তি আমাদের কি না দিয়েছে। দিয়েছে সুখ, স্বাচ্ছন্দ্য, আমাদের বেঁচে থাকার সকল উপাদানের সহজলভ্য উপস্থিতি। কিন্তু তাই বলে কি এর কোন ক্ষতিকর প্রভাব নেই? হ্যাঁ, এর ক্ষতিকর প্রভাবও কম নয়। প্রযুক্তির সবচেয়ে ভয়ংকর অবদানগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান অবদান হচ্ছে মারণাস্ত্র। যার আবার অগ্রপথিক হিসেবে বিবেচিত হয় যুদ্ধ বিমান। বিশ্বযুদ্ধগুলো থেকে শুরু করে প্রতিটি যুদ্ধে কত ধরনের যে শত শত যুদ্ধ বিমান ব্যবহৃত  হয়েছিল এবং হচ্ছে তার কোন ইয়াত্তা নেই। আজ আমি আপনাদের কাছে এ যুদ্ধ বিমানগুলোর জেনারেশন বা প্রজন্ম নিয়ে আলোচনা করবো। এক্ষেত্রে প্রথমেই আমাদের জানতে হবে জেনারেশন বলতে কি বোঝায়? বর্তমানের যুদ্ধ বিমানগুলো বিভিন্ন পর্যায় অতিক্রম করে আজকের অবস্থানে এসেছে। পরিবর্তন ও বিকাশের এই একেকটি পর্যায় বা ধাপকে একেকটি প্রজন্ম বা ইংরেজিতে জেনারেশন বলা হয়। প্রতিটি প্রজন্মের মাঝেই বেশ কিছু বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান থাকে। আবার প্রতিটি প্রজন্ম পরিবর্তনের সময় এতে বেশ কিছু নতুন বৈশিষ্ট্য অন্তর্ভুক্ত হয়, তবে আগের প্রজন্মের বৈশিষ্ট্যগুলোও নতুন প্রজন্মে বিদ্যমান থাকে। নিম্নে ছবির মাধ্যমে যুদ্ধবিমানের প্রজন্মগুলো তুলে ধরা হলো-

প্রথম প্রজন্মের সাবসনিক জেট ফাইটার

মোটামোটি ৪০ এর দশকের মধ্যবর্তী সময় থেকে ১৯৫০ সালের মাঝে যে যুদ্ধ বিমানগুলো ব্যবহৃত হতো সেগুলোকে প্রথম প্রজন্মের যুদ্ধবিমান বলা হয়ে থাকে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে এ ধরনের যুদ্ধ বিমানগুলো ব্যবহার করা হতো। এগুলো ছিল অত্যন্ত ধীরগতি সম্পন্ন। এরা আকাশে বেশি উপরে উঠতে পারতো না। এদের ইঞ্জিন ছিল দুর্বল এবং কার্য ক্ষমতা ছিল কম। এই প্রজন্মের বিমানগুলো একবারে বেশি দূর যেতে পারতো না। নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলতে ছিল সাধারণত কম ক্ষমতা সম্পন্ন হালকা মেশিনগান। এ প্রজন্মের বিমানের সহায়তায় পৃথিবীতে প্রথমবারের মতো পারমানবিক বোমা ব্যবহার করা হয়।

1stg1. Messerschmitt Me 262A

1stg2. Gloster Meteor Mk III ExCC1stg3. F-86(উপরের তিনটি বিমানের নাম যথাক্রমে Messerschmitt Me 262A, Gloster Meteor Mk III ExCC, F-86)

দ্বিতীয় প্রজন্মের জেট ফাইটার

প্রায় ১৯৫০ সাল থেকে ১৯৬০ সালের মধ্যবর্তী সময়ের যুদ্ধ বিমানগুলোকে দ্বিতীয় প্রজন্মের যুদ্ধবিমান বলা হয়ে থাকে। এ বিমানগুলো আগের প্রজন্মের চেয়ে বেশ দ্রুত গতিশীল। এ প্রজন্মে নিরাপত্তা ব্যবস্থা হিসেবে রাডার পরিচালিত মিসাইল ব্যবহার করা শুরু হয়। এদের ডিজাইনে ব্যাপক পরিবর্তন সাধন করা হয়। ফলে এ প্রজন্মের বিমানগুলো আগের চেয়ে সাবলীল ও সুন্দরভাবে যুদ্ধ পরিচালনার সক্ষমতা অর্জন করে। 2ndg1. English Electric Lightning

2ndg2. Two Mirage III2ndg3. MiG-21F(উপরের তিনটি বিমানের নাম যথাক্রমে English Electric Lightning, Two Mirage III,

MiG-21F)

তৃতীয় প্রজন্মের জেট ফাইটার

মোটামোটি ১৯৬০ সাল থেকে ১৯৭০ সালের মাঝের যুদ্ধ বিমানগুলোকে তৃতীয় প্রজন্মের যুদ্ধ বিমান বলা হয়ে থাকে। এগুলো অত্যন্ত দ্রুত গতিশীল এবং প্রচন্ড শক্তিশালী। এরা রাডারকে ফাঁকি দিতে এবং আকাশ থেকে আকাশে কার্যকরী যুদ্ধ পরিচালনায় খুব পারদর্শী। এ প্রজন্মের বিমানগুলোকে বর্তমান প্রজন্মের পথিকৃত বলা হয়।

3rdg1. F-4E Phantom3rdg2. Chengdu J-7PG3rdg3. Shenyang J-8(উপরের তিনটি বিমানের নাম যথাক্রমে F-4E Phantom, Chengdu J-7PG, Shenyang J-8)

ADs by Techtunes ADs

চতুর্থ প্রজন্মের জেট ফাইটার

১৯৭০ সাল থেকে প্রায় ১৯৯০ সালের মাঝামাঝি সময়ের জেট ফাইটার বিমানগুলো এ প্রজন্মের অন্তর্ভুক্ত। এ প্রজন্মের বিমানগুলো প্রচন্ড দ্রুত গতিশীল এবং এরা আকাশ থেকে ভূমি, আকাশ থেকে আকাশ, আকাশ থেকে পানি যেকোন আবহে যুদ্ধে পারঙ্গম। এরা রাতের বেলাতেও সফলতার সাথে যুদ্ধ পরিচালনা করতে পারে। একেকবারে এ প্রজন্মের যুদ্ধ বিমানগুলো অনেক দূরের দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে। 4thg1. F-16 Fighting Felcon

4thg2. Sukhoi Su-27 ‘Flanker’4thg3. Tornado4thg4. Mirage 2000(উপরের চারটি বিমানের নাম যথাক্রমে F-16 Fighting Felcon, Sukhoi Su-27 ‘Flanker’, Tornado, Mirage 2000)

৪.৫ এবং পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধ বিমান

১৯৯০ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত সময়ের যুদ্ধ বিমানগুলো ৪.৫ প্রজন্মের যুদ্ধ বিমান হিসেবে বিবেচিত হয় এবং ২০০৫ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত সময়ের যুদ্ধ বিমানগুলো পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধ বিমান হিসেবে ধরা হয়। সর্বাধুনিক অস্ত্র, মিসাইল দিয়ে এ যুদ্ধ বিমানগুলো সজ্জিত। এগুলো একসাথে অনেকগুলো পারমানবিক বোমা বহনে সক্ষম। এ প্রজন্মে কিছু রোবট যুদ্ধ বিমানের প্রচলন সৃষ্টি হয়, যারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে শত্রু এলাকায় হামলা চালাতে পারে, এগুলোতে কোন চালকের প্রয়োজন হয় না। এ প্রজন্মের বিমানগুলো শব্দের চেয়ে কয়েকগুণ দ্রুত গতিতে উড়তে পারে। কিছু কিছু বিমান এতই দ্রুত উড়ে যে উড়ার সময় যে প্রচন্ড তাপের সৃষ্টি হয় তাতে এরা আকারে কয়েক ইঞ্চি পর্যন্ত প্রসারিত হয়। এদের ধবংস ক্ষমতা অকল্পনীয়।

5thg1. Dassault Rafale5thg2. Eurofighter Typhoon5thg3. F-18E Super Hornet5thg4. F-22 Raptor5thg5. F-355thg6. Sukhoi T-50(উপরের ছয়টি বিমানের নাম যথাক্রমে Dassault Rafale, Eurofighter Typhoon, F/A-18E Super Hornet, F-22 Raptor, F-35, Sukhoi T-50)

এতো গেল ভয়ংকর মারণাস্ত্রগুলো সম্পর্কে একটি ক্ষুদ্র বর্ণনার প্রয়াস। এবার আসুন দেখি এই  দানবগুলোর এবং এগুলো দ্বারা সংগঠিত যুদ্ধের কিছু ভয়ংকর ছবি (এখানে যে ছবিগুলো প্রকাশিত হলো এগুলো তাও অনেক কম ভয়ংকর, কিন্তু গুগলে খোঁজ করতে যেয়ে আমি এমন কিছু ছবি পেয়েছি যা দেখলে অনেকেই স্বাভাবিক থাকতে পারবে না, তাই বেছে বেছে কিছু ছবি এখানে তুলে ধরলাম)।

war1war2war3war4war5war6war7war8

সবগুলোর মাঝে বিশেষ করে শেষের ছবিগুলো লক্ষ্য করুন। এ ছবিগুলো মধ্যপ্রাচ্যের গাজার ছবি। বলুন আমরা কি এরকম একটা ভয়ংকর পৃথিবী দেখতে চাই যেখানে একটি ছোট শিশুরও জীবনের নিরাপত্তা নেই, নেই বেঁচে থাকার সুন্দর একটি আশ্বাস! আমরা কি তবে এভাবেই বেঁচে থাকবো? আমার এ প্রশ্নটি শুধু আপনার কাছে নয়, বরং পৃথিবীর সকল দেশের ক্ষমতাবান সকল তথাকথিত গণ্যম্যন্য লোকদের কাছে যারা ইচ্ছা করলেই এ ধবংসাত্নক খেলা বন্ধ করতে পারে, আমাদের দিতে পারে একটি সুন্দর পৃথিবীর সুন্দর জীবনের আশ্বাস আর প্রযুক্তিকে করতে পারে কলঙ্কমুক্ত।

(তথ্যসূত্রঃ উইকিপিডিয়া এবং ইন্টারনেট)

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি ফাহিম আহ্‌মেদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 17 টি টিউন ও 485 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

আমি ফাহিম আহ্‌মেদ। ভাল লাগে বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করতে, গান শুনতে আর প্রচুর বই পড়তে। আমি মুক্ত মনের স্বাধীন মানুষ হতে চাই, চাই লেখার স্বাধীনতা। স্বপ্ন দেখতে ভালবাসি। স্বপ্নের মাঝেই আমি বাস্তবতার খোঁজ করি। স্বপ্নের রঙ্গিন ভেলায় ভেসে, আমি সত্য জগতে পাড়ি জমাতে চাই। চাই স্বপ্নীল আলোতে নিজেকে উদ্ভাসিত করতে।...


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

চরম একটা টিউন ……… আপনার টিউন দেখে আজ আমার টিউন করতে মন চাচ্ছে

চরম একটা টিউন হয়েছে ভাই ……….. আপনের টিউন দেখে আজ আমার টিউন করতে মন চাচ্ছে …… হ্যাঁ, আজ আমি টিউন করব

    ধন্যবাদ ভাইয়া, আপনার মন্তব্যের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আপনার টিউনের প্রতীক্ষায় রইলাম…. 😀 😀

জানলাম। ধন্যবাদ।

অসাধারণ !!!!!!

    ধন্যবাদ ভাইয়া, আমার খুব ভাল লাগছে যে আপনি আমার টিউনে এসেছেন :D।

তথ্যবহুল টিউন।
ধন্যবাদ।

ভাই আপনি জিনিয়াস । ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য।

    লজ্জা পাচ্ছি, আপনাকেও ভাই ধন্যবাদ সুন্দর এ মন্তব্যের জন্য।

অসাধারন এবং তথ্যবহুল অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    খুবই ভাল লাগছে আপনার এ মূল্যবান মন্তব্য পেয়ে। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে।

চরম একটা টিউন করেছেন ভাই ………… আপনার টিউন দেখে আজ আমার টিউন করতে মন চাচ্ছে …… হয়ত আজ টিউন করেই ফেলব

    আপনার মন্তব্য সবসময় আমার কাছে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করে। ধন্যবাদ আপনার সুন্দর এ মন্তব্যের জন্য।
    করেন না ভাইয়া, আজকে একটা টিউন করেই ফেলেন……..আপনার টিউনের অপেক্ষায় রইলাম 😀

বুঝতে পারছি সেদিন বেশি দূরে নয় যেদিন ফাহিম ভাই কে নির্বাচিত টিউনার হিসেবে ডাকা হবে।
নির্বাচিত হওয়ার মতো আরেকটি টিউন।
অসীম ধন্যবাদ।

    কিছুক্ষণ আগেই একটি মন্তব্যে লিখেছি ‘লজ্জা পাচ্ছি’। ফলে এখন তো আর ঐ একই কথা বলতে পারছি না, তবে শুধু এতটুকু বলি মানুষ আমি কালো হলেও গালগুলো লাল হয়ে গেছে 🙂 । অসংখ্য ধন্যবাদ আপনার এ সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

অসাধারনসসসসস।

    এই প্রথম আপনি আমার টিউনে। আমার খুব খুব ভাল লাগছে। ধন্যবাদ ভাইয়া, আপনার সুন্দর এ মন্তব্যের জন্য।

প্রথম বিমানের সামনের দিকটা কেন জানি মাছের মত লাগছে !!!
বলতে পারেন কেন ?

    😀 😀 😀 আপনার প্রশ্ন শুনে আমি অভ্যস্থ 😀 প্রথম দিন ঘাবড়িয়ে গেলেও এখন আর ঘাবড়াই না!!, বরং কেন জানি খুব ভাল লাগে আপনার মজার মজার প্রশ্নগুলো শুনে। মনে হয়, এ কারণেই আপনি যে কয়েকদিন অনুপস্থিত ছিলেন, আপনার অভাবটা বোধ করেছি। যাই হোক, আপনার প্রশ্নের উত্তরে আসি, আপনি বলার পর আমি প্রথম ব্যাপারটা খেয়াল করলাম, এর আগে জিনিসটা আমার চোখেই পড়ে নি!!! পরে অনেক চেষ্টা করে ইন্টারনেট ঘেটেও আমি আপনার প্রশ্নটির উত্তর খুঁজে পেলাম না 🙂 । তাই এখন ধারণার আশ্রয় নিতে হচ্ছে, সম্ভবত যিনি এটাকে তৈরি করেছিলেন, তিনি ওটাকে মাছের আদলেই তৈরি করতে চেয়েছিলেন। কারণ আসলেও ঐ বিমানটিকে মাছের মতোই লাগছে। ধন্যবাদ, আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

    গুগল এ Messerschmitt Me 262A fish সার্চ দিলে প্রথমে www{dot}economicexpert{dot}com এর সাইট আসে। ঐটাতে ঢুকলে বলে “security aleart ” এরপর ok ক্লিক করার জন্য বলে। কতক্ষণ পর ব্রাউজারে c drive scan করার মত দেখায়। এরপর বলে আমার সি তে নাকি ৫ তা ভাইরাস আছে। এগুলোকে মারতে হলে নিচের লিঙ্ক এ ক্লিক দেন। দিলাম দেখি IDM ৩৯৩ কিলোবাইটের .exe ফাইল ডাউনলোড করা শুরু দিসে। আমি ডাউনলোড করার বন্ধ করে দিসি। বুদ্ধিমানের কাজ করছি না?
    (এর আগে ফ্রী এভিরা দিয়া scan দিলাম ভাইরাস পাইল না।)

    শুধু যে ভাল করছেন তাই না, চরম ভাল একটা কাজ করছেন। আমি একবার এরকম পরিস্থিতিতে পড়ছিলাম। .exe ফাইল ডাউনলোড করার পর ইনস্টল করে দেখি আমার পুরো কমিউটারের কোন প্রোগামই খোলা যায় না, এমনকি অ্যান্টিভাইরাসও না (আর অ্যান্টিভাইরাসই যদি খুলতে না পারি তবে exe রূপী এ ভাইরাসটাকে কি করে মারি!!)। শুধু যে .exe ফাইল ইনস্টল দিয়েছিলাম সেখান থেকে একটা লিংক দেখিয়ে টাকা দিয়ে প্রোগাম কিনতে বলে আর কম্পিউটার থেকে ভাইরাস পরিষ্কার করতে বলে, কোনভাবে এ .exe ফাইল আনইনস্টলও করা যাচ্ছিল না। ওয়ালপেপার পর্যন্ত কাজ করছিল না। শেষ পর্যন্ত Lock Hunter নামক একটা ফ্রী প্রোগাম দিয়ে (কেন জানি সারা কম্পিউটারের আর কোন প্রোগামকে খোলা না গেলেও এই একটি মাত্র প্রোগামকে কাজে লাগাতে পেরেছিলাম) এই .exe ফাইলটিকে ম্যানুয়েলি খুঁজে ধবংস করেছিলাম।

    Lock Hunter ডাউনলোড করেছি।

    সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে খুব ভাল করেছেন 🙂 :D। এ সফটওয়্যারটি আসলেও খুব উপকারী।

পুরাতন থেকে নতুন সবগুলো বিমানই সুন্দর এবং ব্যয় বহুল।এগুলো বানানো হচ্ছে শুধু মানুষকে মারার জন্য।আহা কি বর্বর আমরা।ফাহিম আহমেদ আপনাকে ধন্যবাদ অসাধারন একটি টিউন উপস্থাপনের জন্য।একদিন আপনি মানুষকে বাঁচানো কোন যন্ত্র নিয়ে টিউন করবেন সেই প্রতিক্ষায় রইলাম।

    ধন্যবাদ প্রবাসী ভাইয়া, আপনিও আমার টিউনে প্রথম এলেন। আপনাকে স্বাগত জানাই। ঠিকই বলেছেন, এগুলো প্রত্যেকটিই তৈরি হয়েছে মানুষকে মারার জন্য। আসলেও আমাদের নিজেদের পরিবর্তন করার দরকার আছে (আর আমিও আমার এ টিউনটিতে তাই বোঝানোর চেষ্টা করেছি)। আপনার চমৎকার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। অবশ্যই আপনার কথা আমার মনে থাকবে, শীঘ্রই আমি মানুষকে বাঁচানো কোন যন্ত্র নিয়ে টিউন করার চেষ্টা করবো।

যুদ্ধ বিমান নিয়ে আমার দুটো টিউন ছিল …….. তবে আপনার মত সুন্দর করে লিখতে পারি নাই 🙁 …….চাইলে দেখতে পারেন

https://www.techtunes.co/tech-talk/tune-id/13620/

https://www.techtunes.co/other/tune-id/7587/

    সত্যিই টিনটিন ভাইয়া, আপনার টিউনগুলো না দেখলে সম্ভবত আমি জানতেই পারতাম না, পৃথিবীতে এত অদ্ভূত আকৃতির বিমানও আছে। আর আপনি বলছেন আমার মতো সুন্দর করে আপনি লিখতে পারেন নাই!!!, কিন্তু আপনার টিউনগুলো দেখে আমার তো মনে হচ্ছে আমার এই টিউনটি আপনার টিউনের ধারে কাছেও নাই। আসলেও আপনার দুইটি টিউনই খুব সুন্দর হয়েছে। আমি এরকম টিউন করতে পারলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করতাম।

Level 0

অনেক ভালো লাগলো 😀

Level 0

ও ভালো কথা কপি করলাম। এবং আপনার নাম টা ব্যবহার করলাম। অনুমতি দিন স্যার 😀

    আমার নাম ও এ টিউনের লিঙ্ক দিয়ে যদি কপি করেন আমার কোন সমস্যা নাই 😀 । নির্দ্বিধায় তা প্রকাশ করতে পারেন, আমি অনুমতি দিলাম 😀 😀 😀
    ধন্যবাদ

খুবই সুন্দর টিউন। আমার খুবই ভাল লেগেছে। ধন্যবাদ ফাহিম।

    ধন্যবাদ সোহেল ভাইয়া। এটা জেনে খুব ভাল লাগছে যে আপনার টিউনটা পছন্দ হয়েছে 😀 ।

অসাধারণ টিউন! অনেককিছু জানতে পারলাম। পরবর্তীতে রোবট নিয়ে এই ধরনের কিছু কামনা করছি। ভালো থাকবেন।

    অসংখ্য ধন্যবাদ রাসেল ভাইয়া, আপনার চমৎকার মন্তব্যের জন্য 😀 :D। পরবর্তীতে আমি অবশ্যই চেষ্টা করবো রোবট নিয়ে একটি টিউন করার জন্য। আপনিও ভাল থাকবেন। ধন্যবাদ 😀

আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ আমার টিউনে আসার জন্য।

ফাহিম আহমেদ ভাই ফাইটার গুলোর ফ্লাইট রেঞ্জ বলতে পারেন। জানার ইচ্ছা ছিলো

    এখানে তো অনেকগুলো যুদ্ধবিমান। বেছে বেছে কয়েকটার ফ্লাইট রেঞ্জ এখানে দিয়ে দিলাম-
    Messerschmitt Me 262A-সর্বোচ্চ স্পীড ৯০০ কিলোমিটার (ঘন্টা প্রতি), রেঞ্জ-১০৫০ কিলোমিটার,
    Sukhoi T-50-সর্বোচ্চ স্পীড ২৬০০ কিলোমিটার (ঘন্টা প্রতি), ফেরী রেঞ্জ-৫৫০০ কিলোমিটার,
    Tornado-সর্বোচ্চ স্পীড-২৪১৭.৬ কিলোমিটার (ঘন্টা প্রতি), রেঞ্জ-যুদ্ধের সময় ১৩৯০ কিলোমিটার, ফেরী রেঞ্জ-৩৮৯০ কিলোমিটার (বহন করা জ্বালানিসহ),
    Eurofighter Typhoon-সর্বোচ্চ স্পীড-২৪৯৫ কিলোমিটার (ঘন্টা প্রতি), রেঞ্জ-২৯০০ কিলোমিটার,
    Dassault Rafale-সর্বোচ্চ স্পীড-২৩৯০ কিলোমিটার (ঘন্টা প্রতি), রেঞ্জ-৩৭০০+ কিলোমিটার,
    ধন্যবাদ 🙂

    বাপরে বাপ এত কিলোমিটার (ঘন্টা প্রতি) তাহলে ফাইটারের পিছনে বাতাসের বেগ কত ।আর সেই বাতাসে আমাকে রাখলে তো আনি উরে জাব বোমাতো দুরের কথা????

এসব ভয়ানক/ধ্বংসাত্বক আবিষ্কার কেউ বলে মানুষ মারার জন্য,কেউ বলে আত্মরক্ষার জন্য আসলে কোনটা সত্য?

    ব্যাপারটা আমিও ঠিক বুঝি না, তবে ব্যক্তিগত মতামত, মানুষ মারা ছাড়াও মনে হয় আত্মরক্ষা করা সম্ভব। আসলেও এতো ভয়ংকর ভয়ংকর এসব অস্ত্রের আদৌ কোন দরকার আছে কিনা, সেটা যারা বানিয়েছে তারাই ভাল বলতে পারবে। তবে আমার কাছে এসব ধবংসাত্মক অস্ত্র কখনই ভাল লাগে না, কিন্তু প্রযুক্তির এত অবাক করা ব্যবহার দেখে খুব অবাক লাগে।
    আপনাকে ধন্যবাদ সুন্দর এ মন্তব্যটির জন্য 😀

    বোকা পাঠক says:
    ১৩ মে, ২০১০ at 12:13 অপরাহ্ন

    এসব ভয়ানক/ধ্বংসাত্বক আবিষ্কার কেউ বলে মানুষ মারার জন্য,কেউ বলে আত্মরক্ষার জন্য আসলে কোনটা সত্য?

    এটা ব্যবহারের উপর নির্ভর করে

হুম্‌ ? ? ?

আমি কতৃপক্ষকে অনুরোধ করব উনারা যেন জয় সাহেবের আইডিটা ব্লক করে দেয় কারন উনি কখনো কোনো কমেন্ট না করে শুধু ব্যক্তিগত বিজ্ঞাপন প্রচার করেন,অনেকে বিভিন্ন সময় এর প্রতিবাদ করলে জয় সাহেবের কোনো পরিবর্তন হয়নাই,উনার মাথায় মনে হয় আমাদের মোস্তফা জব্বার সাহেবের ভুত চেপেছে যে যাই বলুক ডোন্ট কেয়ার আমার আ-কামটা আমি চালিয়েই যাব।দুঃখিত এমন একটা মন্তব্য করার জন্য ইহা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিলনা।

আপনার কি লাজ লজ্জা কম নাকি ? খালি সাইটের বিজ্ঞাপন দেন। আবার নিজের ছবি ও দিয়া রাখছেন ! আমারতো মনে হয় না এটা আপনার নিজের ছবি , হয়ত ফেইসবুক থেকে কালেক্ট করছেন। ছবির আসল মালিক হয়ত নিজেও জানে না , আপনি যে এই কাজ করছেন। আর একবার খালি বিজ্ঞাপন দিয়া দেখেন , এমন কথা শুনামু যে লেজ ফালাইয়া দৌড়াইবেন।
আর যেই সাইটের বিজ্ঞাপন দিসেন , তাতে তো কিছুই নাই, ফকির মার্কা সাইট।

    আর যেই সাইটের বিজ্ঞাপন দিসেন , তাতে তো কিছুই নাই, ফকির মার্কা সাইট।

    হাহ হাহ হা হ………………………………………………………………

অসাধারণ চালিয়ে যান। ধন্যবাদ।

একটা ফকিন্নি সাইট বাইছে তার আবার বিজ্ঞাপন দিতাছে । আসলে এইটার লজ্জা একটু কম মনে হয়। আমার টিউনে মন্তব্যতে ও একই কাজ করছে। ইচ্ছা করছিলো ডিলিট কইরা দেই। Bad guys.

সুপার স্টার ফাহিম আহমেদ । +++++++++++++++++++

    আমার মনে আছে, আমার জীবনের প্রথম টিউনের প্রথম মন্তব্য ছিল আপনার। আমার খুব ভাল লাগছে যে ভাইয়া, আপনি আমার টিউনে এসেছেন। আমি আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ধন্যবাদ, ভাইয়া আপনার প্রেরণাদায়ী মন্তব্যের জন্য :D।

টিউনটি আমার ভাল লেগেছে, ধন্যবাদ।

সালাম ভাইজান…..
সুন্দর একটা কাজ করেছেন। আমি কালেকশানে পশ্চিমাদের যুদ্ধাস্ত্রের কালেকশান আছে… কিন্তু সবার সাথে এভাবে শেয়ার করা যায় মাথায় আসেনি।
আমি নতুন যোগ দিলাম টি। ৩/৪ দিন লাগলো সাইটটা বুঝতে। অদ্ভুত লাগলেও সত্য। আসলে আমাদের চট্টগ্রামে ইলেকট্রিসিটি দিনে থাকেনা বললেই চলে।
এটা আমার প্রথম টিউন…………

    টেকটিউনসে আপনাকে স্বাগত জানাই। টিউনটি আপনার ভাল লেগেছে জেনে খুব ভাল লাগছে। ধন্যবাদ, আপনার মন্তব্যের জন্য :D। (আমাদের এখানে মানে ঢাকাতেও ভাই একই অবস্থা :(, বিদ্যুৎ নাই বললেই চলে)

তুখোর একটা টিউন হয়েছে। অসাধারণ ! ! ! ! ! !

অমায়িক টিউন 😀

ভাইজান ভাল আছেন? ২/৩ দিন আগে একটা টিউনে দেখলাম ফটোশপের বই ডাউনলোডের ঠিকানা দিছে। এখন পাইতাছি না। ঠিকানাটা কেউ যদি একটু দিতেন ভাল হতো। টিউনে নতুন তো…… গোলমাল হইয়া যায়।

ধন্যবাদ 😀

অসাধারন এবং তথ্যবহুল অনেক ধন্যবাদ।

নি:সন্দেহে অসাধারণ টিউন ।

Level 0

Vi Khob Khob Khob Valo…

ভয়ঙ্কর সুন্দর টিউন ভাইজান। ছোটবেলা থেকেই যুদ্ধবিমানের প্রতি আমার আলাদা একটা আকর্ষণ কাজ করত। তবে বিশ্বের সকল শান্তিকামী মানুষের মত আমিও চাই যুদ্ধের কলঙ্ক থেকে মুক্ত হোক মানবতা। ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে যেন একটা সুন্দর পৃথিবী উপহার দিতে পারি আমরা। অনেক ধন্যবাদ। 🙂

U have write excellent so, thanks for it but i got some mistake that u have told 2005—-to—-till now every fighter is 5th generation but u have to know that f-22 & f-35 are 5th generation stealth fighter and f-22 was intruduced in 2001 so this is the wrong I have got.please take it positive
I also suggest u to add mig-29 picture which is a supersonic air to air,air to ground multiroled fighter that Bangladesh have.
U also should know that bangladesh is going to buy su-27 & yak-130
Thank u

অসাধারণ তথ্য দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ