গেমস জোন [পর্ব-১৬৫] :: রেসিডেন্ট ইভিল ৫ (২০০৯)

টিউন বিভাগ গেমস
প্রকাশিত

গেমস জোন

ঘটনা ১: অন্যান্য দিনের মতো গত বৃহস্পতিবার(২৮/১১) ফেসবুকে বসলাম। ফেসবুকে অনেকেই আমায় মেসেজ দেন তাদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য। তো সেদিন একটি ফ্রেন্ড রিকোয়েষ্ট পেলাম দেখলাম তিনি আমাদের একজন টিউনার। নামটা বলবো না কিন্তু আমার নামটি কপি করেছে সে। যাই হোক, সে আমায় শুধু শুধু মেসেজ দেয়। আমি বিরক্ত হয়ে বললাম যে, ভাই জরুরী কিছুর প্রয়োজন হলেই আমায় মেসেজ দিয়েন।

ঘটনা ২: ওমা! ও কথা বলতেই তিনি রেগে যান এবং বিশ্রি ভাষায় গালি দেন আমায়। মনে হলো উনার সাথে চ্যাট না করার জন্যই . . . . . .। পরে উনার প্রোফাইল চেক করলাম। টেকটিউনস এর আইডি চেক করলাম। এন্ড্রয়েড গেমস নিয়ে ১০টি টিউন লিখেছন বটে! তাও আমার নাম নামের ডুপ্লিকেইট করে। তাই আমি খুবই ভদ্র ভাবে তাকে জবাব দিলাম “মাত্র ১০টি টিউন করেই আমায় ******* গালি দিচ্ছেন ভাই! কিছুই তো পারেন না নামটাও কপি করলেন!”

ঘটনা ৩: এরপর আর কি? অকথ্য যত্তসব ভাষায় আমায় গালিগালাজ করতে লাগলেন ভদ্রলোকটি। আমি নাকি ফালতু এইসেই। এমনটি তিনি এমন একটি কথা বললেন যেটার কারণে এই ঘটনাটি আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।

তিনি বলতেছেন যে, ভূরি ভূরি পঁচা টিউন করে টিউনের পাল্লা ভারী করে “প্রবাসী” ভাইকে টপকাতে চাই আমি! বলে কি! আমি একটা কথাই বলতে চাই, টেকটিউনসে অবশ্যই আমার চেয়ে ভালো ভালো অভিজ্ঞ টিউনার রয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন “প্রবাসী” ভাই। উনার প্রতি আমার যথেষ্ট শ্রদ্ধা রয়েছে। কিন্তু ওইসব ফালতু লোকরা কেন উনাকে নিয়ে আমায় খোঁচা দেন? খোঁচা নয় গালি দেন।

পরিশেষ: এটাই প্রথম এমন নয়। আমার আড়াই বছরের ব্লগিং জীবনের কয়েকবার এইসব পাগল মানুষদের মুখোমুখি হয়েছিলাম। আমি জানি না কেন এগুলো হয়? মাঝে তো একবার টেকটিউনস এর আইডি টাই ডিএকটিভ করে দিয়েছিলাম। প্রিন্স মাহমুদ ভাই এটা ভালই জানেন।

আমার মতো আমি টিউন করে যাবো। কেউ আমায় থামাতে পারে নি, পারছেও না এবং পারবেও না। খ্যাতির বিরম্বনা সহ্য করার ক্ষমতা আছে আমার।

নির্মাণ এবং প্রকাশ করেছেঃ

ক্যাপকম

সিরিজঃ

রেসিডেন্ট ইভিল

ইঞ্জিণঃ

MT Framework v1.4,

Havok (Physics)

 

খেলা যাবেঃ

প্লে-স্টেশন ৩,

এক্সবক্স ৩৬০,

মাইক্রোসফট উইন্ডোজ

মুক্তি পেয়েছেঃ

মার্চ ৫, ২০০৯

 

ধরণঃ

একশন এডভেঞ্চার,

থার্ড পারসন শুটার

খেলার ধরণঃ

সিঙ্গেল এবং মাল্টিপ্লেয়ার

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টসঃ

কমপক্ষেঃ

পেন্টিয়াম ডি৮৩০ ৩.০ গিগাহার্জ অথবা এথলন ৬৪ এফএক্স-৫১ গতির প্রসেসর,

জিফোর্স ৬৮০০জিটি অথবা রাডিয়ন এইচডি ২৪০০ মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড,

২ গিগাবাইট র‌্যাম,

উইন্ডোজ এক্সপি ৩২বিট সার্ভিস প্যাক ৩ অপারেটিং সিস্টেম,

১৮ গিগাবাইট ফ্রি হার্ডডিক্স স্পেস,

ডাইরেক্স এক্স ৯ সাথে শেডার মডেল ৩.০,

গেমস ফর উইন্ডোজ লাইভ এর লেটেস্ট সংস্করণ

ভালো ভাবে খেলতে হলে:

কোর আই ৫ ২.৪ গিগাহার্জ গতির প্রসেসর,

৪ গিগাবাইট র‌্যাম,

১ গিগাবাইট গ্রাফিক্স কার্ড,

১৮ গিগাবাইট ফ্রি হার্ডডিক্স স্পেস,

উইন্ডোজ সেভেন ৬৪ বিট,

ডাইরেক্স এক্স ১০ সাথে শেডার মডেল ৪.০,

গেমস ফর উইন্ডোজ লাইভ এর লেটেস্ট সংস্করণ

রেসিডেন্ট ইভিল ৫। জাপানে বায়োহের্জাড ৫ নামে পরিচিত এই গেমটি একটি একশন এডভেঞ্চার তৃতীয় পারসন শুটার ভিডিও, যা নির্মাণ করেছে এবং একই সাথে প্রকাশ করেছে ক্যাপকম। গেমটি রেসিডেন্ট ইভিল সিরিজের সপ্তম সংস্করণ যা মুক্তি দেওয়া হয়েছে ২০০৯ সালের মার্চে, সিরিজের আগের গেম এর প্রায় ৪ বছর পর।

গেমটি প্রথম এনাউন্স করা হয় ২০০৫ সালে, একই বছরে সিরিজের আগের গেম রেসিডেন্ট ইভিল ৪ মুক্তি দেওয়া হয়। নির্মাণ টিমে ছিলেন রেসিডেন্ট ইভিল সিরিজের অরিজিনাল কিছু স্টাফ, যারা গেমটির আপগ্রেডে অনেক ভূমিকা রেখেছেন। গেমটির সিরিজের প্রথম বারের মতো কাটসিনে মোশন ক্যাপচার প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। রেসিডেন্ট ইভিল ৫ গেমটির গেম-প্লে অনেকাংশ রেসিডেন্ট ইভিল ৪ এর মতোই রাখা হয়েছে, তবে সিরিজে প্রথম গেমটিরও কিছু কিছু উপাদান গেমটিতে ফিরে এসেছে। গেমটি এখন পর্যন্ত রেসিডেন্ট ইভিল সিরিজের বেস্ট সেলিং গেম হিসেবে নিজের রের্কড বজায় রেখেছে।

গেম-প্লেঃ

গেমটিতে তুমি ক্রিস রেডফিল্ড অথবা শিভা এলোমার এর ভূমিকায় খেলতে পারো। তবে প্রথমবারের জন্য তোমাকে ক্রিস রেডফিল্ডকে নিয়েই খেলতে হবে। গেমটি একবার গেম ওভার করলেই শিভা এলামার চরিত্রটি খেলার জন্য আনলক হবে।

গেমটিতে শত্রু হিসেবে থাকছে মাজিনি। এর মানুষের মতো কিন্তু এদের আত্মা দুষ্ট। এরা অনেকটাই রেসিডেন্ট ইভিল ৪ এর গ্যানাডোস এর নির্দেশ করে। এর কথা বলতে পারে, দৌড়াতে পারে, আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারে এবং বিভিন্ন অস্ত্রও বহন করতে পারে। আর বস সমূহতো রয়েছেই! গেমটিতে অস্ত্র হিসেবে পাবে বিভিন্ন ধরণের হ্যান্ডগান, শটগান, সাবমেরিন গান, এসাল্ট রাইফেল এবং রাইফেল। আরো রয়েছে আরপিজি সহ বিস্ফোরক জাতীয় অনেক কিছু। বিভিন্ন ধরণের গ্রেনেডও রয়েছে। গেমটিতে অস্ত্র পরিবর্তন করা যাবে গেমটিতে খেলতে খেলতেই। যেখানে সিরিজের আগের গেমটিতে গেম Pause করে অস্ত্র নিতে হতো।

গেমটি কিছু অনলাইন ফিচারও সমর্থন করে। রেসিডেন্ট ইভিল ৫ এর মেইন স্টোরি মোড দুই জন হিসেবে খেলা যাবে, কো-অপারেটিশ মাল্টিপ্লেয়ার অনলাইন মোডের মাধ্যমে। এই ফিচারটি দুই জনকেই যেকোনো সময় গেমটিতে প্রবেশ এবং বাহির এর সুবিধা দেয়। গেমটিতে অফ লাইন মাল্টিপ্লেয়ার মোডও রয়েছে।

স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য গেমটিতে ব্যবহার করা হয়েছে স্প্রে! যা সিরিজে নতুন! রয়েছে বুলেট ভেস্ট।

আর কিছু পাজল উপাদানতো রয়েছেই। তবে সিরিজের আগের গেমটির মতো তেমন কোনো পাজল নেই যার সমাধান করতে মাথার চুল ছিঁড়তে হয়! হাহাহাহা!

প্রধান চরিত্রসমূহঃ

ক্রিস রেডফিল্ড
শিভা এলোমার
জিল ভ্যালেন্টাইন
এক্সেলা জিয়োনী
ইরভিং
যাবতীয় মাজিনি
রেসিডেন্ট ইভিল ৪ এই সেই বিশাল দৈত্য! এখন বুড়ো!
গুবরে পোকা
আলর্বাট উইস্কার
আলর্বাট উইস্কার (বস মোড)

কাহিনীচক্রঃ

ভূমিকা:

ক্রিস রেডফিল্ড। গেমটির নায়ক। তিনি বায়োটেরোরিজম সিকুরেটি এসেসমেন্ট এলিয়েন্স (BSAA) এর একজন সদস্য। ক্রিসকে আফ্রিকার মুরুভূমি অঞ্চল কিজুজু (কাল্পনিক) তে পাঠানো হয়েছে বায়ো-অরগেনিক অস্ত্র (BOW) জঙ্গি সংস্থার উপর তদন্ত করতে। গেমটিতে খলনায়ক হিসেবে রয়েছে আলবার্ট উইস্কার, যিনি সিরিজে আগেও খলনায়ক ছিলেন। কালো চশমা, কালো পোষাক পরিহিত এই ব্যাটাকে ভালোই লাগে আমার! উনার রয়েছে সুপারহিউমেন স্পিড পাওয়ার! তিনি বুলেটের চেয়েও দ্রুত মুভমেন্ট করতে পারেন! তার চামচা হিসেবে রয়েছে এক্সেলা জিয়োন, তিনি ট্রিসেল ফার্মাটিক্যাল এর প্রতিষ্ঠাতার “আত্মীয়”। তিনিই মূলত তার কোম্পানির আফ্রিকান ব্রাঞ্চ পরিচালনা করেন। ক্রিস এর সহযোগী হিসেবে রয়েছে শিভা এলোমার। জাক্কাস এক মাইয়্যা!! (লুলায়িত)

কাহিনীঃ

রেসিডেন্ট ইভিল ৪ গেমটির কাহিনীর ৫ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে।

সাবেক STARS মেম্বার এবং বর্তমান BSAA এর সদস্য ক্রিস রেডফিল্ড, তার সহযোগীয় শিভা এলোমার এদের কে আফ্রিকার একটি কাল্পনিক অঞ্চল “কিজুজু” তে তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। এরা রিকার্ডো ইরভিং এর খোঁজে রয়েছে যে বায়ো-অরগেনিক অস্ত্র (BOW) কালো বাজারে (Black Market) বিক্রির ধান্ধায় রয়েছে।

আফ্রিকার কিজুজুতে আসার পর, তারা দেখে যে স্থানীয় লোকজন মাজিনি তে পরিণত হয়েছে এবং সেখানকার BSAA এর আলফা টিমকে হত্যা করা হয়েছে। ক্রিস এবং শিভা স্থানীয় মাজিনিদের আক্রমণের মুখে পড়লে তাদের বাঁচাতে আসে BSAA এর ডেল্টা টিম। ডেল্টা টিমে শিভার শিক্ষক জস স্টোনও রয়েছে।

জস এর দেওয়া ডাটার অনুসারে, ক্রিস জিল ভ্যালেন্টাইন এর একটি ফটোগ্রাফ দেখতে পায়। জিল ভ্যালেন্টাইন ক্রিস এর সাবেক সহযোগী। অতীতে উইস্কার এর সাথে মারামারীতে জিল মরে যায় উইস্কার এর সাথে, এটাই এতোদিন ভেবে আসছিল ক্রিস।

ক্রিস, শিভা এবং ডেল্টা টিম ইরভিং এর সন্ধানে গেমটিতে এগিয়ে যায়। ইরভিংকে ক্রিস এবং শিভা খুঁজে পেলেও ইরভিং পালিয়ে যায় একটি রহস্যময়ীর মাধ্যমে। তবে ইরভিং তাড়াহুড়ার কারণে সেখানে কিছু ডকুমেন্ট ফেলে যায়। ডকুমেন্টের অনুসারে ক্রিস এবং শিভা জানতে পারে যে কোথায় ইরভিং BOW কে বিক্রি করবে। তবে পরে তারা জানতে পারে যে ইরভিং এটা ইচ্ছে করেই করেছিল ক্রিস এবং শিভাকে ফাঁকি দেবার জন্য। ইরভিং এর চাল বুঝতে পেরে ক্রিস এবং শিভা ডেল্টা টিমের সাথে রিগ্রুপের চেষ্টা করলে তারা দেখতে পায় যে ডেল্টা টিমের উপর BOW আঘাত এনেছে এবং পুরো ডেল্টা টিমকে মেরে ফেলেছে। সেখানে জস এর মৃতদেহ শিভা খুঁজে পায় নি। শিভা এর ঘটনাটিকে হেডকোয়াটারে জানাতে চাইলে ক্রিস তাতে বাধা দেয় এবং বলে যে সে মিশনে এগিয়ে যেতে চায়। ক্রিস এর বিশ্বাস ছিল যে জিল এখনো বেঁচে রয়েছে।

মারসল্যান্ডের মধ্যে দিয়ে যেতে যেতে ক্রিস এবং শিভা জস কে খুঁজে পায় কিন্তু জস আহত ছিল। জসের সাহায্যে তারা ইরভিং এর জাহাজটি খুঁজে পায়। ইরভিং এর সাথে বাগ-বগ্তিতার এক পর্যায়ে ইরভিং নিজেকে নিজেই “ল্যাস প্লাগাস” এর একটি ইনজেক্টশন দেয়। ফলস্বরুপ ইরভিং বিশাল একটি অক্টোপাস স্বদৃশ্য দৈত্যে পরিণত হয়।  গেমটির প্রথম বস হলো এটিই!

ইরভিংকে পরাজিত করার পর, ইরভিং মরতে মরতে ক্রিস এবং শিভাকে একটি গুহার দিকে নির্দেশ দিয়ে যায়। যেটি নিদিপায়া ট্রিব এর দিকে যায়। নিদিপায় ট্রিব হতেই ফুল সংগ্রহ করা হয় যেটি প্রোজেনিটর ভাইরাস তৈরির মূল উপাদান। প্রোজেনিটর ভাইরাসের মাধ্যমেই টি এবং জি ভাইরাস বানানো হয়েছে। এগুলো এখন উরোবস নামের শক্তিশালী একটি পদার্ধ তৈরির চেষ্টা করছে তারা।

ঘটনাচক্রে ক্রিস এবং শিভা জানতে পারে যে, BSAA এর ফান্ডার কোম্পানি “ট্রাইসেল” আমব্রেলা কোম্পানির একটি পরিত্যাক্ত ল্যাবে আবব্রেলার গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে। ল্যাবটি অনেক বড় এবং ল্যাবটিতে হাজারের উপরে মানুষ ক্যাপসুল রয়েছে।

হাজার হাজার ক্যাপসুলের ভিতর একটির ডাটাতে ক্রিস জিলকে খুঁজে পায়। কিন্তু জিলের ক্যাপসুলটি খালি থাকে। তারা আবারো জিলের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ে। জিলের সন্ধান করতে করতে তারা ট্রিসেল এর CEO, এক্সেলার মুখোমুখি হয় এবং এক্সেলা তাদের জানায় যে সে এবং উইস্কার সারা বিশ্বে কতগুলো মিসাইল ছোঁড়ার পরিকল্পনা করছে। মিসাইলগুলো উরোবস ভাইরাস দ্বারা পরিপূর্ণ থাকবে। এখানে উইস্কার এর উদ্দেশ্য হলো পুরো বিশ্বকে উরোবস ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত করে নিজের একটি আর্মি বানানো।

ক্রিস এবং শিভা এক্সেলার পিছে ধাওয়া করে এবং এক্সেলাকে ধাওয়া করতে করতে এক পর্যায়ে তারা উইস্কার এবং সেই রহস্যময়ীর মুখোমুখি হয়। পড়ে সেই রহস্যময়ী রহস্য উন্মোচন হয়, সে আসলে জিল! তবে তাকে উইস্কার মাইন্ড কনট্রোলিং ডিভাইসের মাধ্যমে অন্যমনস্ক করে রেখেছে।

উইস্কার এবং এক্সেলা ট্রিসেল ওয়েল ট্যাংকারে পালিয়ে যায় কিন্তু যাবার আগে উইস্কার জিল কে আদেশ দিয়ে যায় ক্রিস এবং শিভাকে হত্যা করতে। ঘটনাক্রমে ক্রিস শিভার সহযোগীতায় জিলের বুক থেকে সেই মাইন্ড কনট্রোলিং ডিভাসটি ভেঙ্গে ফেলতে সক্ষম হয় এবং এতে জিলের আসল জ্ঞান ফিরে আসে। অতঃপর পূর্ণমিলনী হয় তবে জিল ক্রিসকে অনুরোধ করে যে উইস্কারকে ধাওয়া করতে এবং মেরে ফেলতে। না হলে পুরো বিশ্বে বায়োহের্জাড বয়ে যাবে।

জিল কে রেখে ক্রিস এবং শিভা উইস্কার কে ধরতে সেই ট্যাংকারে আসে। সেখানে তাদের সাথে আবারো এক্সেলার মুখোমুখি হয় এবং এবারো এক্সেলা পালিয়ে যায় কিন্তু তাড়াহুড়ার কারণে এক কেইস সাইরিনস ফেলে যায় ভূল করে। সাইরিনটি শিভা নিজের কাছে সংরক্ষণ করে রাখে।

যখন ক্রিস এবং শিভা ট্যাংকারের মেইন ডেস্কে আসে সেখানে উইস্কার ইন্টারকমের মাধ্যমে তাদের হুমকি দেয় যে তারা অনেক ভূল করেছে। সে আরো বলে যে সে এক্সেলাকে উরোবস ভাইরাস দিয়ে ইনজেক্ট করে দিয়েছে। তখন এক্সেলার আগমন হয় কিন্তু সে আর্তনাদ করতে থাকে ইনজেক্ট এর বিষক্রিয়ায়। আর বলতে থাকে যে উইস্কার তার সাথে বৈঈমানী করেছে। ফলস্বরুপ এক্সেলা বিশাল একটি দৈত্যে পরিণত হয় এবং ক্রিস ও শিভাকে মারতে আসে। ঘটনাক্রমে বহু কষ্টে এক্সেলাকে পরাজিত করে মিশনে ক্রিস ও শিভা এগিয়ে যায় উইস্কারকে থামাতে।

এরই মধ্যে জিল তাদেরকে ভিডিও কলের মাধ্যমে জানিয়ে দেয় যে, উইস্কারকে অবশ্যই একটি নির্দিষ্ট সময় পর পর সেই সাইরিনস নিতে হবে তার স্পিড এবং সুপারহিউম্যান পাওয়ার বজায় রাখার জন্য। সে আরো জানায় যে, সাইরিনসটির মাত্রাতিরিক্ত গ্রহণ উইস্কারের জন্য বিষ গ্রহণের সামিল হবে।

ক্রিস ও শিভা বুঝতে পারে যে তাদের কাছে এক বোতল সাইরিনস রয়েছে যা এক্সেলা ড্রপ করে গিয়েছিল। সেটাই তাদের অস্ত্র, উইস্কারকে থামানোর জন্য।

উইস্কারের সাথে শেষ যুদ্ধের এক পর্যায়ে ক্রিস সাইরিনসটি মাত্রাতিরিক্ত ভাবে উইস্কারের শরীলে ইনজেক্ট করলে উইস্কারের বিষক্রিয়া আরম্ভ হয়। কিন্তু উইস্কার প্লেনটিকে ফাটিয়ে দিতে চাইলে ক্রিস বাঁধা দেয় এবং এক পর্যায়ে উরোবস মিসাইল যুক্ত প্লেনটি একটি লাভা দ্বীপে ক্র্যাশ করে।

ক্রিস এবং শিভা উভয়ই মারাত্বক আহত হয় এতে। কিন্তু পরে তারা দেখে যে উইস্কার নিজেকে উরোবস ভাইরাস দ্বারা ইনজেক্ট করে। উরোবস ভাইরাস এবং সাইরিনস উভয়ে মিলে উইস্কারকে ভয়ংকর দৈতে পরিণত করে। অতঃপর গেমটির ফাইনলা বস উইস্কারের সাথে ক্রিস এবং শিভার মরনাপন্ন যুদ্ধ হয় সেই লাভা দ্বীপে।

যুদ্ধের এক পর্যায়ে ক্রিস ও শিভা উইস্কারকে দুর্বল করে দেয় এবং জ্বলন্ত লাভায় ফেলে দেয়। তাদেরকে উদ্ধার করতে সেখানে হেলিকপ্টার নিয়ে আসে জিল এবং জস। কিন্তু ওদিকে উইস্কার লাভা হতে উঠে এবং হেলিকপ্টারটিকে ধরে লাভার দিকে টানতে থাকে। কিন্তু হেলিকপ্টারটিকে ধ্বংস করার আগেই ক্রিস রকেট গ্রেণেড দিয়ে উইস্কারকে উড়িয়ে দেয় লাভা সমুদ্রে।  কাহিনী শেষ! আহ!

সে করাত নিয়ে আসছে!
কাইট্টা লামু!
বুম!
কি আজিব জীব রে!
মুন্ডু ছিড়ে বেরিয়ে আসে!
কিরাম লাগে চাকুর গুতো!
গিলে ফেলবে তো!
পারবি না রে!
এরা হোন্ডাও চালায় বুঝি!

ডাউনলোড:

ftp://serv2.2fun.ge/games/Resident%20Evil%205%20(2009RUS1C)%20PC/rld-re5.iso

জ্ঞাতব্য:

> গেমস জোন শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এর উপাদান সমূহের দ্বারা কেউ মনে কষ্ট কিংবা আঘাত পেলে তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি।

> গেমস জোনে ব্যবহৃত বাংলা কভার, ওয়ালপেপারসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে লেখকের নিজস্ব সৃস্টি। এর সাথে আসল গেমটির কোনো সর্ম্পক নেই

> গেমস জোন এর সাথে উক্ত গেমসগুলোর কোনো সরাসরি সম্পৃত্ত নেই এবং থাকবে না।

> গেমস জোন এর গেমসগুলোর রিলিজ তারিখ, নির্মাতা, প্রকাশক, মুক্তির তারিখ, সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস এবং চিটকোড  তথ্য গুলো বিভিন্ন ওয়েবসাইট হতে সংগৃহকৃত। লেখক এখানে শুধুমাত্র বাংলায় লিখেছেন।

> ডাউনলোড লিংক এবং এর ফাইলসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে অন্য সাইট হতে কপিকৃত। লেখকের সাথে ডাউনলোড লিংক এর কোনো সম্পৃত্ততা নেই।

> সর্বপরি গেমস জোন লেখক গেমওয়ালার ব্যক্তিগত কর্ম মাত্র। এর সাথে এই ব্লগের কোনো সর্ম্পক নেই এবং গেমস জোনের সকল তথ্য (ডাউনলোড লিংক ব্যাতিত) এর জন্য শুধুমাত্র লেখক গেমওয়ালা দায়ী থাকবে।

> গেমস জোন একটি সর্ম্পূণ ফ্রি গেমস রিভিউ এবং প্রিভিউ টিউন। তাই এর যেকোনো উপদান স্বাধীনভাবে “ব্যক্তিগত” উদ্দেশ্যে যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে। তবে গেমস জোন কে “করপোরেট” ভাবে কখনোই ব্যবহার করা যাবে না।

> গেমস জোন সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যা, পরামর্শ, অভিযোগ এবং অন্যান্য যে কোনো বিষয়ের জন্য গেমস জোন এর ফেসুবক পেইজ http://www.facebook.com/games.zone.bd তে যোগাযোগ করুন অথবা সরাসরি লেখক গেমওয়ালার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন fb.com/talented.fahad

Level 10

আমি ফাহাদ হোসেন। Supreme Top Tuner, Techtunes, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 662 টি টিউন ও 429 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 118 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

Level 0

Size to mashallah ato boro file download korar cheya cd kine nea onek valo…parle compreesed file linkfile

Level 0

hello brother ,can i play this game with intergrated graphics (hd 2000) @ 800×600 ???how is the gameplay of this game?i have played biohazard 4 and enjoyed it well now i am looking forward to play this one.but i dont have any gpu. 🙁