গেমস জোন [পর্ব-২৫২] :: Wolfenstein: The New Order (২০১৪)

টিউন বিভাগ গেমস
প্রকাশিত

গেমস জোন

২০১৪ সালের বেষ্ট শুটার গেম এটি! সাইজও সেইরকম!! ৫১ গিগাবাইট!! মা গো!!! কিছু কইলাম না!!

Wolfenstein: The New Order, মেশিন গেমস কোম্পানির এই গেমটি একটি ফার্স্ট পারসন শুটার ধাঁচের ভিডিও গেম যা ২০ মে, ২০১৪ সালের বাজারে এসেছে। গেমটি প্রকাশ করেছে বেথেসডা সফটওর্য়াকস। গেমটি Wolfenstein সিরিজের প্রথম “মেইন” গেম, যদিও Wolfenstein গেমটি ২০০৯ সালে মুক্তি পেয়েছিল এবং এই গেমটির কাহিনীটির কিছু রেশ পাওয়া যাবে।

গেমটি কাহিনীচক্র সেট করা হয়েছে ১৯৬০ দশকের ইউরোপে, যেখানে নাজি সৈন্যরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ জিতে যায় এবং পুরো বিশ্বে রাজত্ব করতে থাকে। গেমটির পুরো গল্প তোমাকে বলবে গেমটির প্লেয়ার চরিত্র উলিয়াম “বি.জে” ব্ল্যাকোজিক।

গেমটির নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১০ সাল থেকে, যখন আইডি সফটওয়্যার গেমটির কপিরাইট মেশিন গেমসের কাছে দিয়ে দেয়: 🙂

নির্মাতাঃ

মেশিন গেমস

প্রকাশকঃ

বেথেসডা সফটওর্য়াকস

সিরিজঃ

ওলফেনস্টাইন

ইঞ্জিণঃ

Id Tech 5

খেলা যাবেঃ

বহু প্লাটফর্মে

মুক্তি পেয়েছেঃ

মে ২০, ২০১৪ সালে

ধরণঃ

ফার্স্ট পারসন শুটার

খেলার ধরণঃ

সিঙ্গেল-প্লেয়ার

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টসঃ

কমপক্ষেঃ

কোর ২ ডুয়ো ই৮২০০ ২.৬৬ গিগাহাজ গতির প্রসেসর

৪ গিগাবাইট র‌্যাম,

জিফোর্স জিটিএস ২৫০ কিংবা রাডিয়ন এইচডি ৬৬৭০ ডিডিআর ৩ গ্রাফিক্স,

উইন্ডোজ সেভেন (৬৪বিট)

ডাইরেক্ট এক্স ১১**

৫০ গিগাবাইট ফ্রি স্পেস

কাহিনীচক্রঃ

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ জয় করার পর , নাজি বাহিনীরা গবেষণা করে এডভান্স টেকনোলজির আবিস্কার করেছে শত্রুর বিপক্ষে ‍সুবিধা নেবার জন্য। এবং এই টেকনোলজির মাধ্যমেই তারা পুরো পৃথিবীকে রাজত্ব করে আসছে।

জুলাই ১৯৪৬ সাল,

এজেন্ট উলিয়াম, পাইলট রেইড এবং প্রাইভেট প্রোবস এরা নাজিদের অস্ত্র ল্যাবেটারীতে হামলা করতে যাচ্ছেন।

তবে হামলা করার আগেই নাজিদের প্রধান জেনারেল উইলহেলম তাদেরকে আটক করে ফেলে এবং একটি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্টেশন ল্যাবেটারীতে নিয়ে আসে।

মারাত্বক আহত অবস্থা এজেন্ট উলিয়াম সেখান থেকে পালিয়ে আসতে পারলেও পথিমধ্যে জ্ঞান হারান তিনি। পরে তিনি নিজেকে আবিস্কার করেন Poland এর একটি মানসিক হাসপাতালে। সেখানে তাকে “ব্রেইন ডেমেজের রোগী” হিসেবে নেওয়া !!! সেই হাসপাতালে তাকে সেবা করে হেড নার্স ওলিয়া এবং তার পিতা-মাতা।

১৪ বছর পর,

নাজিদের পক্ষ হতে আদেশ আশে যে, উক্ত মানসিক হাসপাতালটি সিলগালা করে দেওয়া হবে।  ওলিয়াদের পরিবার হতে বাধা আসলে, নাজি সৈন্যরা তাদেরকে খুন করে এবং হাসপাতালের বাকি রোগীদেরও হত্যা করতে থাকে।

এজেন্ট উলিয়াম তখন ব্রেইন ডেমেজ থেকে উঠে আসেন এবং তার আশে পাশের নাজি সৈন্যদের খুন করেন। এরপর উলিয়াম নার্স ওলিয়াকে নিয়ে সেই হাসপাতাল হতে পালিয়ে যান।

উলিয়াম এবং ওলিয়া দুজন ওলিয়ার দাদীর বাড়ি তে আসেন এবং উলিয়াম কে বিগত ১৪ বছরের সকল ঘটনা খুলে বলেন । ১৯৪৮ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নাজি বাহিনী জিতে যায় এবং আমেরিকাকে ফোর্স করে নিজের দাসী বানিয়ে ফেলে। আমেরিকার অনেক সাধারণ এবং রেজিস্টেন (আমেরিকার সৈন্য বাহিনী) মানুষ এখন নাজিদের হাতে বন্দি। মানসিক হাসপাতাল হতে আটক করা এক নাজি অফিসারকে রিমান্ডে নিয়ে এজেন্ট উলিয়াম জানতে পারে যে, আমেরিকার টপ রেজিস্টেন মেমবারদের বার্লিনে আটক করে রাখা হয়েছে।

বার্লিয়ে পৌঁছে এজেন্ট উলিয়াম, ওলিয়ার সাহায্যে জেলখানায় লুকিয়ে লুকিয়ে প্রবেশ করতে সক্ষম হয় এবং ১৪ বছর আগের হারিয়ে যাওয়া দুজন সঙ্গীর মধ্যে যেকোনো একজনকে মু্ক্ত করতে পারবে। এখন কাকে মুক্ত করবে এটা তোমার হাতে, মানে তোমার চয়েস।

এরপর রেজিস্টেন সদস্যরা নাজিদের উপর হামলা শুরু করতে থাকে। নাজিদের বেইসে বোম মেরে উড়িয়ে দিতে থাকে এবং তাদের গোপন ডকুমেন্ট চুরি করা শুরু করে। ডকুমেন্টস গুলোর তথ্য মতে এজেন্ট উলিয়াম জানতে পারে যে নাজিরা উন্নতমানে কনক্রিটের সাহায্যে সপ্তাহের মধ্যে নতুন নতুন শহর বানিয়ে ফেলছে এবং সেট রথ নামের বিজ্ঞানীর তৈরিকৃত আধুনিক যন্ত্র ব্যবহার করছে। কিন্তু পরে নাজিরা বিজ্ঞানীর সাথে প্রতারণা করে। বিজ্ঞানীটি নাজিতের হাতে একটি ব্যাটারিযুক্ত ডিভাইস তুলে দেয় যেটির সাহায্যে নাজি সৈন্যদেরকে আরো শক্তিশালি এবং রোবটিক করে তুলে। এখন এজেন্ট উলিয়াম কি পারবে নাজিদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে?? জানতে হলে এখনি গেমটি নিয়ে খেলতে বসে পড়ো

গেম-প্লেঃ

গেমটি শুধুমাত্র সিঙ্গেল প্লেয়ারে খেলা যাবে। গেমটি স্যার্ন্ডাট ফার্স্ট পারসন শুটার গেম-প্লে ফিচার করবে। গেমটিতে প্লেয়ারের হেলথ সিস্টেমকে বারের সাহয্যে কয়েকটি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। সেক্টরের হেলথ ডেমেজ হলে তা নিজে নিজে হিল হবে তবে পুরো সেক্টর বা কয়েকটি সেক্টরের হেলথ ডেমেজ হলে প্লেয়ারকে অবশ্যই হেলথ প্যাক ব্যবহার করে হেলথ রির্চাজ করতে হবে। গেমটিতে রয়েছে আন লিমিটেড অস্ত্র এর বাহার। রয়েছে সিঙ্গেল এবং আনলিমিটেড অস্ত্র!! গেমটি তোমার নিজের মতো রে খেলা যাবে। মানে গেমটি হেড-টু-হেড ফাইটিং কিংবা স্টেলথ যেকোনো ভাবে খেলা যাবে, তোমার নিজের মতো করে।

নির্মাণঃ

জুন ২০০৯ সালে মেশিন গেমস কোম্পানির সুচনা হয় এবং তারা আইডি সফটওর্য়াকস এবং এর যাবতীয় সম্পদকে কিনে নেয়, এদের মধ্যে রয়েছে DOOM, Quake এবং Wolfenstein সিরিজ। পরে ২০১০ সালের নভেম্বরে জানা যায় যে মেশিন গেমস Wolfenstein এবং DOOM সিরিজে রিবুট নিয়ে কাজ করা শুরু করেছে। ইতিমধ্যে Wolfenstein The New Order গেমটি যারা যারা প্রি-অর্ডার করেছিলে তারা অলরেডি DOOM গেমটির বেটা সংস্করণ ব্যবহার করার সুযোগ পেয়েছো।

ডাউনলোডঃ

http://kickass.to/wolfenstein-the-new-order-reloaded-t9128213.html

জ্ঞাতব্য:

  • গেমস জোন শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এর উপাদান সমূহের দ্বারা কেউ মনে কষ্ট কিংবা আঘাত পেলে তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি।
  • গেমস জোনে ব্যবহৃত বাংলা কভার, ওয়ালপেপারসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে লেখকের নিজস্ব সৃস্টি। এর সাথে আসল গেমটির কোনো সর্ম্পক নেই
  • গেমস জোন এর সাথে উক্ত গেমসগুলোর কোনো সরাসরি সম্পৃত্ত নেই এবং থাকবে না।
  • গেমস জোন এর গেমসগুলোর রিলিজ তারিখ, নির্মাতা, প্রকাশক, মুক্তির তারিখ, সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস এবং চিটকোড  তথ্য গুলো বিভিন্ন ওয়েবসাইট হতে সংগৃহকৃত। লেখক এখানে শুধুমাত্র বাংলায় লিখেছেন।
  • ডাউনলোড লিংক এবং এর ফাইলসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে অন্য সাইট হতে কপিকৃত। লেখকের সাথে ডাউনলোড লিংক এর কোনো সম্পৃত্ততা নেই।
  • সর্বপরি গেমস জোন লেখক গেমওয়ালার ব্যক্তিগত কর্ম মাত্র। এর সাথে এই ব্লগের কোনো সর্ম্পক নেই এবং গেমস জোনের সকল তথ্য (ডাউনলোড লিংক ব্যাতিত) এর জন্য শুধুমাত্র লেখক গেমওয়ালা দায়ী থাকবে।
  • গেমস জোন একটি সর্ম্পূণ ফ্রি গেমস রিভিউ এবং প্রিভিউ টিউন। তাই এর যেকোনো উপদান স্বাধীনভাবে “ব্যক্তিগত” উদ্দেশ্যে যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে। তবে গেমস জোন কে “করপোরেট” ভাবে কখনোই ব্যবহার করা যাবে না।

গেমস জোন সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যা, পরামর্শ, অভিযোগ এবং অন্যান্য যে কোনো বিষয়ের জন্য গেমস জোন এর ফেসুবক পেইজ http://www.facebook.com/games.zone.bd তে যোগাযোগ করুন অথবা সরাসরি লেখক গেমওয়ালার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন http://www.facebook.com/talented.fahad

সময় পেলেই ঘুরে আসো গেমস জোনের  সাইট থেকে : http://www.gamewala.net

Level 10

আমি ফাহাদ হোসেন। Supreme Top Tuner, Techtunes, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 662 টি টিউন ও 429 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 118 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

Level 0

43 gb file 1month lagbo sudu download dite bangladeser j speed

    @skynet: আপনার সাথে একমত। তার বেশিও লাগতে পারে :p যদিও টিউনার ভাই লিখছেন এটা ৫১ জিবি 🙂