ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

“অটোরান” কি ভাইরাস ?

"অটোরান" কি ভাইরাস নাকি অন্ন কিছু ?? হেল্প করুন।
কম্পিউটারে আক্রমন করা মাত্র ফোল্ডার অপশন ডিজেবল হয়ে যায়...কি করা যায় বুঝতে পারছি না।
কেউ কি বিস্তারিত জানাতে পারেন ? বিশেস করে কিভাবে এইটা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় তা সম্পরকে।
আগে যদি এই সম্পরকে কেউ লিখে থাকে তাহলে ওই লিঙ্কটা ও চাই।

ADs by Techtunes ADs

দয়া করে হেল্প করুন।

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি Shahadat। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 11 বছর 11 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 2 টি টিউন ও 36 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

আপনি ভালো কোন এন্ট্রিভাইরাস দিয়ে কম্পিউটার চেক করুন।

এটা থেকে বাঁচতে প্রয়োজনে পিসিতে আগে থেকে autorun.inf নামে খালি ফোল্ডার তৈরী করা যেতে পারে। আর যদি ভাইরাস আক্রমন করেই ফেলে তাহলে Folder option – click show hidden file- delete autorun.inf file- restart pc. দেখবেন আপনার সমস্যা চলে গেছে। আর এতেও যদি না যায় তাহলে জানাবেন। তখন অন্য আর এক ধরনের চিকিৎসা আছে বলব।

শাহাদাত ভাই,
আপনার উলেস্নখিত অটোরান.আইএনএফ ফাইলটি সরাসরি কোন ভাইরাস নয়৷ তবে ভাইরাসকে অটোম্যাটিক্যালি এক্সিিকউট বা রান করাতে এটি সাহায্য করে৷ এই ফাইলটি সাধারণত কোন ড্রাইভে অবস্থান করে তবে অবশ্যই কোন ফোল্ডারের মধ্যে নয়৷ কারণ ফোল্ডারের মধ্যে অবস্থান করলে এই ফাইলটির মধ্যকার টেক্সটকোড কাজ করেনা৷ অর্থাত্‍ কাংখিত এক্সিিকউটেবল ফাইল বা ভাইরাসকে রান করাতে পারেনা৷ মুলতঃ এই ফাইলটি অটোরান সিডি (যেমন ডিভাইস ড্রাইভার সিডি) তৈরী করতে ব্যবহৃত হতো৷ তবে এখন কিছু দুষ্ট নবীশ প্রোগ্রামার এটিকে ফ্লাশ ড্রাইভের মাধ্যমে তাদের তৈরীকৃত ভাইরাস সমূহকে দ্রম্নত ছড়ানোর মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে৷

আপনি ফোল্ডার অপশন গায়েব হওয়ার কথা বলেছেন৷ কেন হয় সেটা সম্পর্কে টেকনিক্যাল কথা গুলো বিসত্মারিত বলছিনা৷ তবে কিভাবে এ থেকে চিরতরে রৰা পাবেন তা বলছি৷

(১) আপনার কম্পিউটারে নতুন করে এক্সপি ইনষ্টল করে নিন৷

(২) ইনষ্টল শেষ হয়ে গেলে কোন ড্রাইভে প্রবেশ করবেন না (খেয়াল রাখবেন কিন্তু)৷ এবার টুল থেকে ফোল্ডার অপশনে যান৷ ভিউ থেকে শো অল ফাইলস রেডিও বাটন সিলেক্ট করম্নন৷ এর নিচেই দুটি চেক বক্স আছে৷ দুটির মধ্যে নিচের চেক্স বক্সটি অফ করে দিন৷ একটি ম্যাসেজ আসবে৷ ইয়েস করে দিন৷

(৩) এবার উইন্ডোজ কি এবং ই কী চাপুন৷ উইন্ডোজ এক্সপেস্নারার ওপেন হবে এবং এর সাথে বাম পাশে ট্রি ভিউ থাকবে৷ ডি ড্রাইভে ক্লিক করম্নন৷ ডানপাশে দেখুন কোন অটোরান আইএনএফ ফাইল আছে কিনা৷ এবং এর সাথে অন্য কোন হিডেন ফাইল আছে কিনা৷ রিসাইকেল বিন এবং সিস্টেম ভলিউম ইনফরমেশন নামে দুটি হিডেন ফোল্ডার দেখতে পারেন তবে এরা ভাইরাস নয়৷ অর্থাত্‍ এ দুটো বাদে বাকি হিডেন ফাইলগুলো মুছে ফেলুন৷ একই ভাবে অন্যান্য ড্রাইভগুলো থেকেও মুছে ফেলুন (যদি থাকে)৷ এবার পিসি রিষ্টার্ট করে নিন (জরম্নরী)৷

এবারে পেন ড্রাইভের ব্যাপারে বলছি৷ কোন পেন ড্রাইভ পিসিতে এটাচ করার পর কোন ক্রমেই তা অটোম্যাটিক এক্সসে করার অপশন দিলেও তা ব্যবহার করবেন না৷ অর্থাত্‍ পেন ড্রাইভ এটাচের পর ওপেন করার যে কোন ম্যাসেজ বা অপশন ক্যানসেল করে যাবেন৷ পুর্বের নিয়মে উইন্ডোজ এক্সপেস্নারার ওপেন করে প্রথমে চেক করে নিবেন৷ থাকলে মুছে দিয়ে পেন ড্রাইভ ডিটাচ করে আবার এটাচ করবেন৷ কখনোই কোন পেন ড্রাইভে ডাবল ক্লিক করে প্রবেশ করার চেষ্টা করবেন না৷ কারণ কেবল মাত্র কোন ড্রাইভে ডাবল ক্লিক করলেই অটোরান.আইএনএফ ফাইলটি তার সম্পর্কিত ভাইরাসটিকে রান করতে পারে৷

নিচের দুটি প্রক্রিয়া অভ্যাস করম্নন, চিরতরে ভাইরাস থেকে দুরে থাকতে পারবেন৷
(১) উপরের প্রক্রিয়ার (২) নম্বর ধাপটি সব সময় একটিভ রাখুন৷
(২) উইন্ডোজ এক্সপেস্নারারের বাম পাশের ট্রি ভিউ ব্যবহার করে ফোল্ডারে বা ড্রাইভে বা পেন ড্রাইভে এক্সসে করবেন৷

এই লেখাটিই কোন সাইটে আমার প্রথম লেখা৷ আশা করছি ভবিষ্যতে আরও লিখব৷

*** সবাইকে ধন্যবাদ ****

কামরম্নল ইসলাম রম্নবেল
ব্রডকাষ্ট ইঞ্জিনিয়ার

আমিও এই সমস্যায় পরেছিলাম। Autorun Eater নামের এই সফটওয়্যার টা আমার ভাল কাজে এসেছে। আসা করছি আপনার ও কাজে আসবে। নিচে ডাউনলোড লিংক দিলাম।
http://files.filefront.com/aesetup23exe/;12479842;/fileinfo.html

https://www.techtunes.co/tips-and-tricks/tune-id/1904/
https://www.techtunes.co/tips-and-tricks/tune-id/1253/

লিংক দুটি আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

Level 0

microqatar, নিশান, কামরুল ইসলাম রুবেল, মন্ময় এবং মেহেদী হাসান ভাই – হেল্প করার জন্য অনেক অনেক ধন্নবাদ ও ক্রিতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

Level 0

মন্ময় ভাই, কি জিনিশ দিলেন ?
ইন্সটল করার সাথে আরো দুইটা ভাইরাস ধরছে। যদিও দুইটাই ডিলিট করছি।
কেউ ট্রাই করবেন না।

Level 0

আপনি Mcafee 8.0i Or Mcafee8.5i এবং এর সাথে আপডেট ব্যবহার করুন। তাহলে আপনার অটোরান দূর হয়ে যাবে। আমিও Mcafee8.5i ব্যবহার করি আমার কম্পিউটার ভাইরাস থেকে মুক্ত। Mcafee একটি শক্তিশালী এন্টিভাইরাস এটি সব ধরনে ভাইরাস ধরে। Mcafee আপডেট ডাউনলোড করতে এই ঠিকানা লিখে ইন্টার দিন। তাহলে সরাসির আপডেট এ চলে যাবে। মনে রাখবেন, mcafee ইনস্টল করার সময় শেষে অটোআপেডট ও অটোস্কান চাবে। তখন আপনি এগুলো আনচেক করে দিবেন। এরপর আপডেট দিয়ে কম্পিউটার রিস্টাট করুন এবং এরপর অল কম্পউটার স্কান করুন। ধন্যবাদ………………………

http://www.mcafee.com/apps/downloads/security_updates/dat.asp?region=us&segment=enterprise

Level 0

Yusuf ভাই, অনেক অনেক ধন্নবাদ।

Level 0

শাহাদত ভাই, আপনাকেও ধন্যবাদ। আপনার সমস্যা তুলে ধরার জন্য। আবারো কোন সমস্যায় পরলে তুলে ধরবেন, টেকটিউন আপনার পাশে দারাবে।

Level 0

আপনাকেও ধন্যবাদ। টেকটিউনে আসার জন্য……………

সবার সাথে ভাইরাস সংক্রান্ত কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য শেয়ার করছি।

কোন এন্টিভাইরাসই আপনাকে ১০০% প্রোটেকশন দিতে পারবেনা। কারণ কেবলমাত্র তখনই কোন ভাইরাসকে কোন এন্টিভাইরাস শনাক্ত করতে পারে যখন উক্ত এন্টিভাইরাসের প্রস্তুতকারক উক্ত ভাইরাসের সিগনেচার বা শনাক্তকরণ তথ্য এন্টিভাইরাসের সাথে যোগ করেন। আর এজন্যই নিয়মিত এন্টিভাইরাস আপডেট রাখতে পরামর্শ দেয়া হয়। আমাদের দেশের নবীশ প্রোগ্রামাররা ভিজুয়্যাল বেসিক দিয়ে খুব সহজেই কিছু উদ্ভট প্রকৃতির পেন ড্রাইভ নির্ভর ভাইরাস তৈরী করছে। যেগুলো বর্তমানে ব্যবহারকারীদের সবচাইতে বিরক্তির কারণ। এই ভাইরাসগুলোর সিগনেচার বিভিন্ন এন্টিভাইরাস কোম্পানীর কাছে এখনো পৌছায়নি। যে কারণে বিভিন্ন আপডেটেড এন্টিভাইরাসও এগুলোকে ডিটেক্ট করেনা। তবে যে এন্টিভাইরাস এই ভাইরাসের বাহক autorun.inf ফাইলকে প্রতিহত করে সেটি ব্যবহারে বেশ কাজে দেবে। কিন্তু ভাইরাসকে ডিটেক্ট নাও করতে পারে। এক্ষেত্রে সতর্ক থাকা জরূরী। autorun.inf ফাইল থেকে এর দ্বারা বাহিত ভাইরাসের ইনফরমেশন পাওয়া যেতে পারে। এজন্য ফাইলটিকে ওপেন করে একটি লাইন পাবেন যেটি নিম্নরুপ
open = [virus name]

উদাহরণ স্বরুপ open = SSVICHOST.exe

এই ধরনের নামীয় ফাইলটিকে কোন ভাবেই এক্সিকিউট করা যাবেনা। সাধারণত *.exe, *.com, *.cmd এই তিন ধরনের ফাইল ভাইরাস হিসেবে ছড়ায়। তাই অপরিচিত নামের এই এক্সটেনশনের কোন ফাইল ওপেন করার ব্যাপারে সর্তক থাকবেন।

ভাইরাস থেকে দুরে থাকার আরো কিছু গুরূত্বপূর্ণ টিপস আছে। আমি জানিনা এভাবে মন্তব্যের জায়গায় টিপস দেওয়া এই সাইটের নীতিবিরূদ্ধ কিনা তাই আর বাড়ালাম না। কেউ উপকৃত হলে জানাবেন ভবিষ্যতে আরো কিছু জানানোর ইচ্ছে রইল।

সবাইকে একটি লিংক দিচ্ছি। লিংকটিতে একটি পেনড্রাইভ ভাইরাস ব্লকার পাবেন। এখন থেকে এটি ফ্রি পাওয়া যাবে। লিংকটি হচ্ছে http://www.pendrive.tk

কামরুল ইসলাম রুবেল
ব্রডকাষ্ট ইঞ্জিনিয়ার
মাই টিভি

Level 0

রুবেল ভাই, আপনার মন্তব্ব গুলো খুবই কাজের। Please carry on.
আরও টিপস আশা করছি।
Thanks

Level 0

Shahadat ভাই মাত্র ফোল্ডার অপশন ডিজেবল হইছে আমারতো পুরা 2GB ফাইল গায়েব ।প্রতি ড্রাইবে অটোরান.আইএনএফ ফাইলটি আইসা রইছে এখন কি করবো গায়েব ফাইলগুলোকি আনার কোনো ব্যবস্হা আছে ? ভাইয়েরা আমাকে সাহায্য করুন pls ……………………….

Level 0

রকি ভাই, হা হা হা মজা পাইলাম। আমি এই ভাইরাস থেইকা মুক্তি পাওনের লাইগা বহুত জনের কাছে ধরনা দিছি। কোনো কাম হয় নাই।
তা ও টেকটিউন্স এর ওস্তাদেরা কিছু সমাধান দিছে। কোনো কোনো সময় কামে ও দিছে। যাই হোক আপ্নে আপাতত উপরের পদ্ধতি গুলান এপ্লাই কইরা দেখেন কি অবস্থা হয়।
ধন্নবাদ।

শাহাদাত ও রকি ভাইকে বলছি।

কিভাবে ভাইরাস দুর করবেন:
==================
এই ভাইরাসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া কঠিন কিছু নয়। নতুন করে উইন্ডোজ ইনষ্টল করুন। ইনষ্টল করার পর কোন ড্রাইভে ঢুকবেন না। যেহেতু নতুন উইন্ডোজ ইনষ্টল করেছেন সেহেতু আপনার ফোল্ডার অপশনটি বর্তমানে একটিভ অবস্থায় আছে। এবার মাই কম্পিউটার ওপেন করে tools>folder options…>view তে যান Advance Settings হতে হিডেন ফাইলস এন্ড ফোল্ডারস অপশন থেকে Show hidden files and folders একটি করুন। এতে করে আপনার পিসির হিডেন ফাইল গুলো শো করবে। এর একটু নিচে গিয়ে Hide protected operating system files চেক বক্সের টিকটি উঠিয়ে দিন। এ কারণে আপনার পিসির প্রোটেক্টেড অপারেটিং সিস্টেম ফাইলগুলো শো করবে। সাধারণত: ভাইরাস রাইটার ভাইরাসকে অপারেটিং সিস্টেমের ফাইল হিসেবে তৈরী করে যদিও এগুলো কোনক্রমেই অপারেটিং সিস্টেমের ফাইল নয়।

এবার ষ্টার্ট থেকে রান এ গিয়ে ড্রাইভের নাম এরপর কোলন লিখে এন্টার করুন যেমন: ডি ড্রাইভে প্রবেশের জন্য
Click Start Button>Run>Type D: এন্টার প্রেস করুন। ডি ড্রাইভে এক্সেস করা সম্ভব হবে। এই ড্রাইভে একটি autorun.inf এবং আরও কিছু হিডেন ফাইল পেতে পারেন। সেগুলো মুছে দিন। তবে Recycle Bin এবং System Volume Information নামে দুটি হিডেন ফোল্ডার পাবেন এ দুটি মোছার চেষ্টা করার প্রয়োজন নেই। কারণ এগুলো উইন্ডোজেরই অংশ। উপরের প্রক্রিয়া অনুসরণ করে সবগুলো ড্রাইভ ক্লিন করুন। সাবধান থাকবেন যে কোন ড্রাইভে কোন ক্রমেই ডাবলক্লিক করে ঢুকবেন না। এবার পিসি রিষ্টার্ট করে নিন। রিষ্টার্ট করার পর আপনার পিসি ভাইরাসমুক্ত। এখন যে কোন ড্রাইভে এক্সেস করতে পারবেন।

কিভাবে ভাইরাসকে প্রতিহত করবেন:
=======================
সাধারণত ভাইরাসগুলো পেন ড্রাইভের মাধ্যমে ছড়ায়। তাই কোন পেন ড্রাইভ এটাচ করলে অটোরান হলেও অটোরান ফিচারের মাধ্যমে প্রবেশ করবেন না কিংবা ডাবল ক্লিক করে প্রবেশ করবেন না। পুর্বের নিয়মে রান অপশন ব্যবহার করে এক্সেস করবেন এতে করে ভাইরাস অটো এক্সিকিউট করতে পারবেনা। পেন ড্রাইভে রান দিয়ে ঢুকার পর ভাইরাস এবং অটোরান ফাইল পেলে তা মুছে দিয়ে ডিটাচ করুন এবং পুনরায় এটাচ করুন। এবার আপনি ডাবলক্লিক করে ঢুকতে পারবেন।

তবে মুলত কথা হচ্ছে অভ্যাস। যদি আপনি রান কমান্ড ব্যবহার করে ড্রাইভে ঢুকার অভ্যাস তৈরী করে ফেলতে পারেন তাহলে আর কখনোই পেন ড্রাইভ বাহিত ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হবেন না। এ থেকে উত্তরণে আপনাকে সাহায্য করতে পারে গ্যারিসন। গ্যারিসন সম্পর্কে জানতে টপিকসটি পড়ুন।

সবাই কে ধন্যবাদ
কামরুল ইসলাম রুবেল

Level 0

কামরুল ভাই, আবার ও অনেক অনেক ধন্যবাদ। আমি আপনার লেখা পড়েই একটা পিসি এইমাত্র ফরমেট দিলাম।
আপনার পরামশের জন্য ধন্যবাদ। ভবিশ্যতে আরো পরামরশ আশা করছি।

Level 0

আমিও পিসি ফরমেট দিলাম ।আমি এখন ভাইরাস থেকে মুক্ত।কামরুল ভাই আপনার মূল্যবান পরার্মশের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

আমার একটি Sprint GG 02 (স্প্রিন্ট জি জি ০২ চায়না ডাবল সিম) মোবাইল ফোন রয়েছে। এটা কি ইন্টারনেট মডেম হিসাবে ল্যাপটপ এ ব্যবহার সম্ভব? It will be very kind of someone, if I receive an advise in this regard. এছাড়া how to use it’s webcam ? উপদেশ পেলে ভীষণভাবে কৃতজ্ঞ থাকবো।