ADs by Techtunes tAds
ADs by Techtunes tAds

যেভাবে ব্যবহার করা উচিত আমাদের প্রিয় টেকটিউনসকে [একটি ব্যাতিক্রমধর্মী টিউন]

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

ADs by Techtunes tAds

যদি আমাকে প্রশ্ন করা হয় বাংলাদেশে কতজন মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে । সেক্ষেত্রে আমার উত্তর হবে টেকটিউনসে যান সেখানে গেলেই বুঝতে পারবেন বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী কতজন!!! আসলেই তাই,এই ওয়েবসাইটের ভিজিটরের সংখ্যা বাংলাদেশের যেকোন ভালো অনলাইন নিউজপেপারের থেকে কম নয় । অনেক প্রযুক্তিমনা মানুষের প্রতিদিনের একখানা নিউজপেপার(রূপক অর্থে) হলো টেকটিউনস । বাংলাদেশের আনাচে কানাচে কত ইঞ্জিনিয়ার(রূপক অর্থে) আছেন তার প্রমান টেকটিউনসেই পাওয়া যায় । কিন্তু অনেকেই ঠিকমত ব্যবহার করি না টেকটিউনসকে । তাই আজকে আমার সীমিত জ্ঞান দিয়ে জানাতে চাচ্ছি কিভাবে আমরা টেকটিউনসকে ব্যবহার করবো ।

নিবন্ধিত সদস্য হওয়া জরুরী কেনঃ

ব্লগিং হচ্ছে মতবিনিময়ের একখানা কাগজ-কলম বিহীন মাধ্যম । একটা ভালো শিক্ষার মাধ্যমও বটে । একখানা ভালো ব্লগের চাহিদা নিউজপেপারের চেয়ে কম নয় । আবারও বলছি একখানা ভালো ব্লগের চাহিদা নিউজপেপারের চেয়ে কম নয় । আর সেরকম একটা ব্লগ হলো টেকটিউনস । এখানে অনেক ব্লগার তাদের পোস্ট নিয়মিত শেয়ার করে থাকেন । তাদের অনেকেই অভিজ্ঞ,অনেকেই উদীয়মান(Rising Star),অনেকেই নতুনও বটে । উদীয়মানরা উৎসাহ পেলে হয়ে যেতে পারেন একজন অভিজ্ঞ টিউনার । তাছাড়া অভিজ্ঞ ও অনভিজ্ঞরাও উতসাহ পেলে তাদের কাজ চালিয়ে যেতে পারেন । আপনি প্রতিনিয়ত টিউনারদের কাছ থেকে নতুন কিছু জানতে পারছেন বলে তাদের উতসাহ দেওয়া আপনার কর্তব্য । আর এ জন্যই রয়েছে কমেন্ট দেওয়ার ব্যাবস্থা । অনেকেই আছেন যারা নিয়মিত ভিজিট করেন কিন্তু নিবন্ধিত নন অথবা একটাও কমেন্ট করেন নাই ।আমার নিজের দেখা কয়েকজন আছে যারা কিনা ২০০৯ সাল থেকে টেকটিউনস ভিজিট করেন অথচ নিবন্ধিত নন অর্থাৎ একটাও কমেন্ট করেন নাই । যদি আপনার উৎসাহে একজন টিউনার উন্নতি করতে পারে তাহলে উৎসাহ দিতে দোষ কি । বরং আপনার উতসাহে একজন জীবনে অনেক বড় হতে পারবে । আর যদি আপনার উৎসাহে একজন জীবনে বড় হতে পারে তাহলে আপনার চেয়ে বড় হিরো আর কে হতে পারে । সনি ম্যাক্সে একটা এড দেখা যাচ্ছে যার স্ক্রিপ্ট “হার আইডল কি পিছে হতি না জানে কিতনে সারে আইডল  ” । অর্থাৎ বোঝা যায় উতসাহদানকারীরাই আসল হিরো । (এই স্ক্রিপ্টটা অবশ্য আমি আমার আগের অনুপ্রেরনামূলক টিউনে একজনকে কমেন্ট রিপ্লাই করেছিলাম) । আর এ জন্যই একজন নিবন্ধিত টিউনার হওয়া অনেক জরুরি ।

নিবন্ধিত সদস্যদের প্রাথমিক কর্তব্যঃ

অনেকেই আছেন যারা আইডি খুলেছেন অথচ তা ব্যাবহার করেন না । দিনের পর দিন ভিজিট করে চলেছেন । অনেক সাহায্য নিচ্ছেন,অনেক জ্ঞান অর্জন করছেন । অথচ কাউকে উতসাহ দেন না । টেকটিউনসের মান উন্নয়নে পরামর্শ দেন না । আপনার দারা কেউ উতসাহ পায় না,আপনি কমেন্ট করেন না অথচ আপনি টেকটিউনসের উপকার নেন । বুকে হাত রেখে বলুন তো আপনি আদর্শ ইউসার কিনা? উত্তরটা আমিই দেয় । আপনার পরিচয় আপনি নিষ্ক্রিয় ইউসার ( কথাগুলো পড়ে খারাপ লাগতে পারে অথবা আমাকে গালি দিতে ইচ্ছা করতে পারে । কিন্তু আমি নিজে জানি আমি মিথ্যা বলছি না ) ।

আমার মতে একজন নিবন্ধিত টিউনারের জন্য টেকটিউনসের ওয়েবসাইট হলো   http://www.Techtunes.com.bd/wp-admin  । আগে লগ-ইন করুন । সাহস থাকলে দুই-একটা পোস্ট করে দেখান আপনিও পারেন । তারপর ভিজিট করুন এবং অন্যের টিউন পড়ে ভালো লাগলে কমেন্ট করুন । উৎসাহ দিন ।

কুইজঃ ছবিটা দিয়ে আমি কি বুঝাইলাম?

টেকটিউন ডেস্কঃ

অনেক ইউসার আছেন যারা টেকটিউনস ভিজিট করেন অথচ টেকটিউনস ডেস্ক বলে যে একখানা শব্দ আছে তাও জানেন না । রি-পোর্ট করুন,ভোট দিন,সাহায্য নিন,পরামর্শ দিন । হতেও পারে আপনার পরামর্শে টেকটিউনস বাংলাদেশের এক নাম্বার ওয়েবসাইট । আমরা মানসন্মত টিউনে কমেন্ট পাই ৪০ + আর একটা মানসন্মত পরামর্শে ভোট পায় খুব বেশি হলে ৩-৫ টি । বা,বা,বা দেখলে হাততালি দিতে ইচ্ছা করে । কি অবস্থা টেকটিউনস ডেস্কের !!!! যদি আমরা সবাই পরামর্শ দেওয়া শুরু করি তাহলে একদিন না একদিন টেকটিউনস বাংলাদেশের ১ নম্বর সাইট হবে । আর তখন আমরা মাথা উচু করে বলতে পারবো আমরা বাংলাদেশের ১ নম্বর ওয়েবসাইটের একজন সক্রিয় সদস্য ।

টেকটিউন ডেস্কের ওয়েবসাইট   Desk.Techtunes.Com.Bd

কখন আপনার লেখা গ্রহনযোগ্য হবেঃ

আমরা অনেকসময় বলে থাকি “ কিছু পেতে হলে কিছু দিতে হয়” । আপনি নিজে ভালো টিউন করে প্রাউডফিল করেন অথচ অন্যের লেখায় সামান্য ভূল পেলে ভূল করেও তার অন্যান্য পোস্টে ক্লিক করেন না । আর আপনি কামনা করেন আপনার পোস্ট সবাই পড়ুক । আপনার অবস্থানটা একবার দেখুনতো । আমি ই দেখিয়ে দিচ্ছি আপনার অবস্থান শীর্ষে থেকেও নিচে । আপনার টিউনকে সবাই শ্রদ্ধা করবে যখন আপনি অন্যের পোস্টকে শ্রদ্ধা করবেন ।

ADs by Techtunes tAds

স্ট্রেটেজিক টাইমআউট-৩ মিনিট

যেভাবে আপনারা টিউনারের চিন্তা-চেতনাকে বদলে দেনঃ

আমি নিজে একজন ছোটখাট ভিজিটর ও টিউনার । টেকটিউনস ভিজিট করা প্রায় ৩-৪ মাস প্রত্যক্ষভাবে আর প্রায় ১ বছর পরোক্ষভাবে (অফলাইনে অন্যজনের ডাউনলোড করা পিডিএফ ফাইলে) । বুঝতেই পারছেন আমি কত নতুন । প্রথমদিকে ৬-৭ টা টিউন করলাম । অনেক সফটওয়ার শেয়ার করলাম,গেম এডিটিং করার অস্ত্র দিলাম । পরিচিতিও পেলাম বেশ । অনেক টিউন পরলাম । কিন্তু হায় আফসোস অনুপ্রেরনামূলক টিউন পেলাম খুবই কম । তাই একদিন সাহস করে কি-বোর্ড ধরলাম,ভাবলাম দুই-একটা টিউন করেই ফেলি (যদি সাড়া পাওয়া যায়) । লেখা শুরু করলাম পুরোটা শেষ হতে প্রায় ৭-৮ দিন লাগলো । অনেক বড় হলো । সেটাকে আবার আরও ছোট করলাম ।তারপর একদিন করেই ফেললাম টিউনটা । শুরুতেই ভেবেছিলাম এত-বড় তার ওপর আবার আমার মত ছোট টিউনারের টিউন আবার কতজন পড়বে । সেক্ষেত্রে ৫০০ বার (ভূল করে) ক্লিক পড়লেই আমি খুশি । টিউন করে গনিত প্রাইভেট(কোচিং) করতে গেলাম ।বাড়ি ফিরে এলাম ।প্রায় ৩ ঘন্টা পর আমার ফোনে মেইল চেক করতে বসলাম । আমি অবাক এবং ভীতও বটে । প্রায় ১৫ খানা মেইল এসেছে টেকটিউনস থেকে সবখানাই কমেন্ট । ভয়ে ভয়ে চেক করতে লাগলাম ( শুরুতে ভেবেছিলাম কেউবা টিউন পড়ে জুতাসহ কমেন্ট রিপ্লাই করলো না তো ) ।

*************১৫ মিনিট পর**************

আমি চোখে তারা দেখিতেছি । ভয়ে নয়,জ্ঞান হারিয়ে নয়.................. আনন্দে ।সবার কাছে দারুন উতসাহ পেলাম । কিছু কমেন্ট পড়ে সারাটা রাত ঘুমাতেই পারলাম না । পরের দিন শুরু করলাম এই টিউনটি করার কাজ,যেটা আপনারা পড়ছেন ।

এখন মনে একবিন্দুও ভয় নেই,হয়তো বা ভয় কি সেটা বুঝতেও পারছিনা । সবসময় মনে হচ্ছে আমার সাথে সবাই আছে ।চালিয়ে যাচ্ছি আমার টিউন করার কাজ ।সামনে রেসাল্ট,তাও কোন টেনশন কাজ করছে না।

এভাবেই কয়েকটা কমেন্ট পড়ে একজন ভীতু-কাপুরুষ যে কিনা টিউন করতে ভয় করতো তাকে আপনারা সাহসী বানালেন ।

 

নতুনদের জন্য কিছু পরামর্শঃ

পরামর্শ দেওয়া সহজ কিন্তু মানা কঠিন । তাই পরামর্শ নিয়ে একবার জীবনের সাথে মিলিয়ে নেওয়া ভালো । এতে যথেষ্ট প্লানিং এর দারা আপনি সফল হতে পারবেন । আর আমি মহাজ্ঞানি নয় যে আমার পরামর্শ মানতেই হবে । তবুও কিছু পরামর্শ শুনুন ।

এখানে টিউন করা খবই সহজ । আর ওয়ার্ডপ্রেসে পোস্ট করা তো কোন ব্যাপারই নয় । আমি যখন প্রথম পোস্ট করার ইচ্ছা করি,তখন আমারও খুব কঠিন মনে হয়েছিলো । আমি ভেবেছিলাম পোস্ট করতে হয়তোবা পিএইচপি,সিএসএস,এইচটিএমএল ইত্যাদি শিখতে হয় ? ওয়েবডিজাইনার না হলে মনে হয় পোস্ট করা যায় না? আমার ভ্রান্ত ধারনা ভেঙ্গে দিয়েছিলেন আব্দুর রহিম ভাই । ফেইসবুকে তার কাছ থেকে সাহায্য নিয়েই আমি আজ টিউন করতে পারি ।তবে আমি সাহায্য নেওয়ার আগে নিজে ট্রাই করি নি । এটাই আমার ভূল ছিলো ।

আগে ট্রাই করা উচিৎ । তারপর সাহায্য নেওয়া ।

ADs by Techtunes tAds

কিছু কথাঃ

আমার বয়স খুবই কম । ছোট হয়েও অনেক কিছু কড়া কথা লিখে ফেলেছি । কিন্তু করার কিছুই নেই । টিউনটি পড়ে কারও কারও মন খারাপ হতে পারে । কিন্তু একথা সত্য যে,নিজের দোষ শুনলে প্রথম প্রথম একটু কষ্টই লাগে । আর ভূলত্রুটি ঠিক করতে পারলে আপনার সামনে উজ্জ্বল ভবিষ্যত । কমেন্ট না করা,টেকটিউনস ডেস্ক ভিজিট না করা ইত্যাদি দোষ আমারও ছিলো । এখন তা আমি নিজে শুধরে নিতে পেরেছি ।

ভাইজানরা,টেকটিউনস আমাদের অনেক কিছুই দিয়েছে । এখনই সময় টেকটিউনসকে কিছু দেওয়া । তাই আসুন সবাই এই ওয়েবসাইটের উন্নয়নে কাজ করি,পরামর্শ দেই,নিজে টিউন করি,অন্যকে উৎসাহ দেই । ছোটদের ভূল ভাঙ্গিয়ে দেই । আর অবশ্যই টেক চর্চা করি ।

বিঃদ্রঃ ছোট হয়ে এরকম পোস্ট করায় কিছু ভূল-ভ্রান্তি থেকে যেতে পারে । তাই ভূল খুজে পেলে ক্ষমাসূচক দৃষ্টিতে দেখবেন ।

আমার আগের অনুপ্রেরণামুলক টিউনটি দেখতে নিচে ক্লিক করুন ।

যেভাবে পালটিয়ে ফেলবেন জীবনটাকে [একটি অনুপ্রেরণামূলক পোস্ট]

ADs by Techtunes tAds
Level 0

আমি মোঃ আসেফ হাবীব তিসাদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 17 টি টিউন ও 327 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ছোট হলেও টিউনগুলো বেশ ভাল হচ্ছে। 🙂
Carry on bro …..

Level 0

vai,darun hoise.

Level 0

vai apni koto choto seta to likhlen na….jai hok tune valo hoyece

ভালো লাগলো 🙂

নিয়মিত লিখবেন আশা করি। ভালো হচ্ছে টিউনগুলো। কোয়ালিটি সম্পন্ন…

Thanks

অসাধারন।খুব সুন্দর করে গুছিয়ে লেখার জন্য এবং একটি উৎসাহ মুলক টিউন লেখার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

আসাধারন

Level 0

🙂

Level 0

Thank you.

ভাইয়া,লজ্জার কথা কি বলব!!!
আমি ও আনেক দিন ধরেই ব্লগ এ ঘুরা ঘুরি করি…
আজকে আপনার লেখা পরে ই সাথে সাথে একটা ID খুলে ফেল্লাম 😀

ভাইয়া খুবই ভাল লাগলো…তোমার একটা পোস্ট আগেও পরেছি……সত্যি অনেক ভাল লিখ তুমি……