ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

টেলিটক প্রত্যাশা পুরণে ব্যর্থ এক মোবাইল অপারেটর-(১)

এটি একটি দুই পর্বের ধারাবাহিক লেখা

ADs by Techtunes ADs

দেশের একমাত্র সরকারী মালিকানাধীন মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক নিয়ে দৈনিক নয়া দিগন্তের রম্য ম্যাগাজিন ‘থেরাপি’র এক সংখ্যায় ছাপা হয়েছিল একটি মজার কার্টুন। টেলিটক সিম কেনার জন্য মানুষের দীর্ঘ লাইন সেই ভোর থেকে। দুপুর গড়িয়ে বিকাল হতে চলল। তবুও লাইনে দাড়িয়ে অনেক সাধের (!) কাঙ্খিত ‘সরকারী মোবাইল ফোনের সিম’ হাতে না পেয়ে একদল মানুষ উত্তেজিত হয়ে পড়লো। তাদের ঠান্ডা করার দায়িত্বে এগিয়ে এল সরকারের আরেক লাইসেন্সধারী গুন্ডা বাহিনী , জনগনের বন্ধু (!) খ্যাত ‘পুলিশ’। পুলিশ নিজ দায়িত্বে সযতনে রাখা লাঠিখানার ব্যবহারে যথেষ্ট আন্তরিকতার পরিচয় দিতে লাগলো লাইনে দাড়ানো মানুষগুলোর প্রতি। আর হুংকার দিয়ে লাইনে দাড়ানো মানুষ গুলোকে জিজ্ঞাস করছিলো, ‘সরকারী মোবাইলে আর কথা কইবি? দাড়া তোগো শখ মিটাইতেছি’।

এ কার্টুনটির প্রেক্ষাপট ছিল পুরোপুরি বাস্তব ঘটনা থেকে নেয়া। ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকটি বছর পার হয়েছে কিন্তু টেলিটক কর্তৃপক্ষের স্বেচ্ছাচারিতার অবসান হয়নি আজও। এর প্রমান মিলেছে সাম্প্রতিক তাদের কর্মকান্ডে।পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে টেলিটক কর্তৃপক্ষ তাদের মোবাইল ট্যারিফ কমানোর নামে ট্যারিফ বাড়িয়ে সিমের মেয়াদ কমানোর খেলায় মেতে ওঠে। স্বাধীনতা নামের প্যাকেজে ‘অটো’ মাইগ্রেশনের নামে গ্রাহকদের বাড়তি ভোগান্তিতে ফেলে কী সুযোগ নিতে চাইছে টেলিটক, তা অনেকটাই ধুম্রজালের মত অস্বচ্ছ এর গ্রাহকদের কাছে। মোবাইল সিমের দীর্ঘ মেয়াদী জীবন দেয়ার ক্ষেত্রে টেলিটক ছিল ‘পাইওনিয়ার’।

টেলিটক গ্রাহকদের কারও কারও সিমের মেয়াদ ২০১৬/১৭ পর্যন্ত ছিল। কিন্তু পহেলা বৈশাখে ঘুম থেকে উঠে ‘ব্যালান্স’ চেক করতে গিয়ে কারও কারও চোখ কপালে উঠেছে এবার। সিমের মেয়াদ ২০১৬/১৭ থেকে নামিয়ে ২০০৮ এ এনেছে টেলিটক। শুধু তাই নয়, যদি এই সিম ১০০ দিনের মধ্যে অব্যবহৃত থাকে তবে স্থায়ীভাবে এই সিমকে ‘কবর’ দিতে হবে তার গ্রাহককে! এছাড়াও মোবাইল বিল বিকাল ৫টার পর অন্যান্য অপারেটর থেকে সবচেয়ে বেশি (১.৪৫ টাকা, ভ্যাট ছাড়া) ধরা হয়েছে। এক্ষেত্রে কলরেট বাড়ানোর ব্যাপারে কোন ব্যাখ্যা দেয়া হয়নি। আর নেটওয়ার্কের দুর্বলতা অনেকটা স্থায়ী ব্যাধির মত বাসা বেঁধেছে টেলিটক নেটওয়ার্কে।দিন দিন যেখানে অন্যান্য অপারেটররা তাদের সুযোগ সুবিধা বাড়াচ্ছে, সেখানে সরকারী কোম্পানি হিসাবে টেলিটকের উচিৎ তাদের সার্ভিস বাড়ানোর আর ট্যারিফ রেট কমানোর। কিন্তু উল্টো রথে চলতেই যেন তারা ভালবাসে! গ্রাহকদের কেউ কেউ অবশ্য মন্তব্য করেছেন আসলে টেলিটকের জন্ম তো সেই টিএন্ডটি’র কর্মকর্তা আর কর্মচারীদের ভেতর থেকেই। তাই ভোগান্তিমূলক সেবা(!) দেয়ার জন্য যা যা করনীয় তার কোনটিই বাকি রাখতে চায় না টেলিটক কর্তৃপক্ষ।

গ্রাহকদের প্রত্যাশা পুরণে ব্যর্থ এক মোবাইল অপারেটর হিসাবেই রয়ে গেল সমালোচিত টেলিটক কর্তৃপক্ষ। ভুক্তভোগি গ্রাহকদের জিজ্ঞাসা এখন একটিই, এসব ভোগান্তি থেকে কী কোন মুক্তি নেই তাদের? এমন কেউ কী নেই তাদের এসব ভোগান্তি থেকে মুক্তি দেয়ার?

২য় পর্ব পড়ুন: টেলিটকঃ প্রত্যাশা পুরণে ব্যর্থ এক মোবাইল অপারেটর-(২)

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি দুরন্ত। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 12 বছর 4 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 13 টি টিউন ও 7 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

প্রযুক্তিতেই মুক্তি


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

দুরন্ত ভাই, অনেক দিন পর ফিরে এলেন। খুব ভাল লাগল।

মি:দুরন্ত আরো একটি চমৎকার লেখা! টেলিটক নিয়ে কী যে ভোগান্তিতে আছি! কেবল ভুক্তভোগীরাই বুঝবে এর জ্বালা। মাথামোটা টেলিটক কর্তৃপক্ষের এ দিকে কোন নজর আছে বলে তো মনে হয় না। এ লেখাটি ঐ কর্তৃপক্ষের কারো নজর কাড়বে কী?? প্লিজ মি: দুরন্ত আরো লিখুন এমন গুরুত্বপূর্ন বিষয় নিয়ে। তাহলে যদি োদের জ্ঞানবুদ্ধির উদয় হয়!!!!

অত্যন্ত সাহসী একটি লেখা…..ধন্যবাদ লেখককে। আমরা এ ধরনের লেখার জন্যে অপেক্ষা করব।

ottonto sahosi ekti lekha…dhonnobad lekhok ke.amra e dhoroner lekhar jonno opekkha korbo.

টেলিটক নিয়ে আরো লিখুন। এরা দেশীয় প্রতিষ্ঠান হয়ে জনগণের সাথে প্রতারণা করার জন্য এদের বিরুদ্ধে জন সচেতনতা মূলক আরো লেখালেখি প্রয়োজন। মি:দুরন্ত আপনার লেখার হাত ভাল। ভাষার গাথুনি চমৎকার। তাই এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে হাত খুলে লিখুন।আমরা আছি আপনার সাথে।

আমি টেলিটক ব্যবহার করি। অনেক যন্ত্রনায় আছি।
নম্বর পরিবর্তন করতে ইচ্ছে করছে না, তাই পরে আছি।