ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

খাদ্যে বিষ প্রয়োগ: ফরমালিন পাকস্থলী, কিডনি ও লিভারের ক্ষতি করে, ক্যান্সার ডেকে আনতে পারে, সবাই সতর্ক হোন অন্যকে সতর্ক করুন, এড়িয়ে যাবেন না,আপনি সতর্ক হলে নিজের ও পরিবারের স্বাস্থ্যরক্ষা করতে পারবেন

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম।
কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালো আছেন। খুব বেশি ভালো থাকতে পারলাম না। পোস্টটি হয়তো অনেক বড় কিন্তু আশা করি আপনাকে একটু হলেও সতর্ক করবে। একটু কষ্ট করে পড়ে দেখুন,আমরা প্রতিদিন কি খাচ্ছি। আমরা নিজেরাই বিষ দিচ্ছি আমাদের খাবারে।ফল থেকে দুধ, ধান থেকে পান এমন একটি পচনশীল ভোগ্যপণ্য নেই যাতে ফরমালিন, কারবাইট বা বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থের ব্যবহার হচ্ছে না। আর বিষাক্ত পদার্থের নির্বিচার ব্যবহার সাধারণ মানুষকে রীতি মতো শঙ্কিত করে তুলেছে। গতকালই বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদকে বলতে শুনা গেছে ফরমালিনের কারণে তিনি নিজে বাজার থেকে কোনো ফল কেনেন না এবং খান না। শুধু তিনিই নন প্রতিটি নাগরিকই এখন বাজার করতে গেলে ফলমূল, সবজি, মাছ,  গোশত কিনতে আতঙ্কগ্রস্ত থাকেন। অনেকেই বাজার থেকে কেনাকাটা অনেকটা বন্ধ করে দিয়েছেন। যাদের সক্ষমতা রয়েছে তারা উৎপাদনস্থল অর্থাৎ ক্ষেতখামার থেকে ও নদী-পুকুর থেকে নিশ্চিত হয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় উপকরণ সংগ্রহ করছেন। তবে উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে আগে ল্যাবরেটরিতে বা লাশ সংরক্ষণের জন্য যে রাসায়নিক পদার্থগুলো ব্যবহার হতো এখন সেগুলো গ্রামের কৃষকের ক্ষেত পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। মওসুমি ফল আম, লিচু ও জাম গাছে থাকতেই ফরমালিন এবং বিষাক্ত রাসায়নিক স্প্রে করা হচ্ছে।অনুসন্ধানে জানা যায়, এখন রাসায়নিক পদার্থ মেশানো শুরু হয় ফল গাছে থাকতেই। গাছের উৎপাদনমতা বৃদ্ধি করতে প্রথমে দেয়া হয় প্ল্যান্ট গ্রোথ রেগুলেটর হরমোন। অপরিপক্ব ফল সংরণ করে রাখা হয় বদ্ধঘরে। তারপর চলে দুই পর্যায়ে রাসায়নিক ব্যবহার। এর একটি সোডিয়াম কার্বাইড, অপরটি ফরমালিন। সোডিয়াম কার্বাইড মূলত ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রিতে। কাঁচা আম, কাঁঠাল, লিচু, কলায় বেশি ব্যবহার হয় এ রাসায়নিক পদার্থ। সিরিঞ্জ দিয়ে তরমুজের ভেতরে দেয়া হয় তরল পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট। এর ফলে তরমুজের ভেতর থাকে লাল টকটকে। ক্যালসিয়াম কার্বাইড দিয়ে পাকানো হয় কলা।

ADs by Techtunes ADs

রাজধানীতে আসা ফলের ৯০ শতাংশ আমেই থাকছে ফরমালিন নামক বিষ। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় গত বছর এসেছিল এমন ভয়ঙ্কর তথ্য। যার ব্যবহারে কিডনির রোগ, লিভার সিরোসিস, স্থায়ী বন্ধ্যত্ব, পৌরষত্বহীনতা এমনকি ক্যান্সারও হতে পারে; কিন্তু তার পরেও এই বিষ থেকে মুক্ত হতে কোনো বাস্তব পদক্ষেপ নেই সরকারের। নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ সংসদে পাস করলেও তা কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। ফরমালিন নামক এই রাসয়নিক পদার্থ আমদানিতে নেই কোনো আইন। ফলে দেশের বাজারে কোকাকোলার মতোই সহজলভ্য হয়ে উঠেছে এটি।

মাছ আমিষের একটি প্রধান উৎস। শ্বেতসার না থাকায় ও সহজপাচ্য বলে সববয়সী মানুষের জন্য এটি উপযোগী। আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় তাই মাছ একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। কিন্তু বিগত কয়েক বছর ধরে মাছ বিক্রেতারা মাছকে দীর্ঘসময় সংরক্ষণ করার জন্য এতে ফরমালিন নামের একটি অত্যন্ত ক্ষতিকর রাসায়নিক মিশিয়ে চলেছে। খুচরা বিক্রেতারা এজন্য পাইকারি বিক্রেতাদের দায়ী করছে। কখনো তারা বলছে আমদানি করা মাছগুলোতে ফরমালিন থাকে, দেশীগুলোতে নয়। পাইকারি বিক্রেতা ও আমদানিকারকরা আবার এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে খুচরা বিক্রেতারাই ফরমালিন মেশায়।

কিন্তু এই বাদানুবাদে ক্রেতাদের কোনো লাভ হচ্ছে না। বাস্তব সত্য হচ্ছে তারা ফরমালিনযুক্ত মাছই কিনতে বাধ্য হচ্ছে। আমরা ২০০৫ ও ২০০৬ সালে বড় মাছের পাশাপাশি ছোট মাছও পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে অধিকাংশ মাছের স্যাম্পলেই ফরমালিন দেয়া রয়েছে। ছোট মাছতো আর বিদেশ থেকে আসে না। তাই এগুলোতে ফরমালিন নিশ্চয়ই আমদানিকারক পর্যায়ে মেশানো হয় না! ম্যাজিস্ট্রেট রোকন-উদ্-দৌলা যে কাজটি শুরু করেছিলেন তার ধারাবাহিকতায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ঢাকার বিভিন্ন বাজার থেকে ফরমালিনযুক্ত মাছ ব্যাপকহারে ধরে শাস্তিবিধানের পর এখন বাজারে ফরমালিনের উৎপাত কিছুটা হলেও কমেছে বলে মনে হচ্ছে।

ফরমালিন রাসায়নিকটি আগে লাশ বা প্রাণীদেহের কোন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দীর্ঘদিন সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হতো। এছাড়া বিভিন্ন কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিতে, স্টুডিওতে, ট্যানারি শিল্পে, প্লাস্টিক কারখানায় এটি ব্যবহৃত হয়। বিদেশ থেকে এরা এটি আমদানি করে।

তাদের হাত থেকে এই ফরমালিন খোলা বাজারে চলে আসছে এবং বাংলাদেশে এখন শুধু মাছই নয়, এমনকি দুধ ও বিভিন্ন ফলমূল সংরক্ষণের জন্যও ফরমালিন লুকিয়ে ব্যবহৃত হচ্ছে। অথচ সারা পৃথিবীতে কোনো দেশেই ব্যবসায়ীরা খাদ্যে ফরমালিন মেশায় না। খাদ্যসামগ্রীতে এর ব্যবহার আন্তর্জাতিকভাবেই নিষিদ্ধ। ফলে ক্রেতারা এসব খাদ্যসামগ্রী কিনে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

একটু সতর্ক হলে কেনার আগে ক্রেতা বুঝতে পারবেন মাছে ফরমালিন দেয়া আছে কিনা। ফরমালিন দেয়া মাছের গায়ে পিচ্ছিলভাব থাকবে না, মাছের গা খসখসে হবে, চোখের মণি উজ্জ্বল ও স্বচ্ছ না হয়ে ঘোলা আর মলিন দেখাবে, কানকো লালের বদলে হালকা বাদামি হবে (অবশ্য অনেক বিক্রেতা ফরমালিন দেওয়ার পর এটি লাল দেখানোর জন্য অন্য মাছের রক্ত কিংবা লাল রং লাগিয়ে রাখে)। রান্নার পর এই মাছে স্বাভাবিক স্বাদ পাওয়া যাবে না, বিশেষ করে মাথা ও পেটের অংশ অত্যন্ত বিস্বাদ ও রাসায়নিক গন্ধযুক্ত হবে।

একই ভাবে ফরমালিন দেয়া দুধের তৈরি মিষ্টিতে দুধের স্বাদ ও গন্ধ পাওয়া যাবেনা, তার বদলে রাসায়নিক গন্ধ ও স্বাদ পাওয়া যাবে। ফরমালিন দেয়া আঙ্গুরের গায়ে মৌমাছি বসবে না, আঙ্গুরের মিষ্টি সুগন্ধ পাওয়া যাবে না। আপেল নাশপাতির বেলাতেও এই সুগন্ধ থাকবে না। আগে দোকানে আঙ্গুর ঝুলিয়ে রাখলে একদিন পরই আঙ্গুর একটা-দুটা খসে পড়তো, এখন ফরমালিন দেয়ার কারণে পচে না ও পড়ে না। আপেল নাশপাতিও দিনের পর দিন একারণেই পচে না। কোনো মাছের বা ফলের দোকানে ক্রেতার চোখ বা নাকে ঝাঁজ লাগলে বুঝতে হবে এখানে ফরমালিন ব্যবহার করা হয়।

ফরমালিন অত্যন্ত বিষাক্ত বলে নিয়মিত ফরমালিনযুক্ত খাবার খেলে শরীরের বিভিন্ন অংশে ক্যান্সার হওয়ার আশংকা থাকে। এছাড়া ফরমালিন খাদ্য পরিপাকে বাধা দেয়, পাকস্থলীর ক্ষতি করে, লিভারের এনজাইমগুলোকে নষ্ট করে এবং কিডনির কোষ নেফ্রনগুলোকে ধ্বংস করে। ফলে গ্যাস্ট্রিক আলসার বাড়ে, লিভার ও কিডনির নানা রকম জটিল ও দুরারোগ্য রোগ দেখা দেয়। মহিলাদের শরীরে ফরমালিন প্রবেশ করলে মাসিক ঋতুস্রাবের সমস্যা দেয়। গর্ভবতী মায়েদের জন্য ফরমালিন আরো ক্ষতিকর, অন্যান্য সমস্যা ছাড়াও এর কারণে গর্ভস্থ শিশু বিকলাঙ্গ হয়।

১৯৯৪ সালে আমেরিকার এনভায়রনমেন্ট প্রটেকশন এজেন্সি বলেছে ফরমালিন ফুসফুস ও গলবিল এলাকায় ক্যান্সার সৃষ্টি করে। এর আগে ১৯৮৭ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সার বলেছে ফরমালিন মানবদেহের বিভিন্ন অংশের ক্যান্সার সৃষ্টির জন্য দায়ী। ১৯৯২ ও ১৯৯৬ সালে আমেরিকার স্টেট অব ক্যালিফোর্নিয়াও ক্যান্সার সৃষ্টি করে বলে ফরমালিনকে কার্সিনোজেন বা ক্যান্সার সৃষ্টিকারী বলে চিহ্নিত করে।

ADs by Techtunes ADs

২০০৪ সালের ১লা অক্টোবর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে গলবিল এলাকায় ক্যান্সার সৃষ্টির জন্য ফরমালিনকে দায়ী করে (সংস্থার প্রেস বিজ্ঞপ্তি নং ১৫৩)। ২০০৫ সালের ১০ই ডিসেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা পোস্ট পত্রিকায় ফরমালিনযুক্ত মাছ খেয়ে মৃত্যুর ঘটনায় মাছ ও শুটকি ব্যবসায়ে ব্যাপক মন্দার কথা জানা যায়।

মাছে দুধে বা ফলে যে অসৎ ব্যবসায়ী ফরমালিন মেশায় তার জন্যও দুঃসংবাদ রয়েছে। ফরমালিন অত্যন্ত ঝাঁঝালো এবং মেশানোর সময় এর বাষ্প চোখের সংস্পর্শে এসে চোখের কর্নিয়ার ক্ষতি করে, কর্নিয়া তার স্বচ্ছতা হারিয়ে ঘোলা হয়ে যায়। এর পরিণামে ব্যবসায়ী চোখে ঝাপসা দেখে, ছানি তৈরি হয়। ফরমালিনের বাষ্প শ্বাস নেয়ার ফলে বমিভাব, মাথাব্যথা, শ্বাস নিতে কষ্ট, হাঁপানি এবং ফুসফুস ও গলবিলে ক্যান্সার দেখা দেয়। তাছাড়া ফরমালিন পানিতে মিশিয়ে ব্যবহারের ফলে হাতের ত্বকে ঘা দেখা দেয়, দীর্ঘদিন ব্যবহারে যে ঘা ক্রমাগত বাড়তেই থাকে, কোনো ওষুধেই তা সারে না। অর্থাৎ ফরমালিনের কারণে শুধু যে ক্রেতারই ক্ষতি হচ্ছে তা নয়, ব্যবসায়ীও আক্রান্ত হচ্ছে।

আমরা তাই ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করবো ক্রেতার ও নিজেদের মারাত্মক স্বাস্থ্যগত ক্ষতির কথা ভেবে ফরমালিনের ব্যবহার অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য।

সেই সাথে সরকারের প্রতিও আমরা আবেদন জানাই খোলা বাজারে ফরমালিনের বিক্রি বন্ধ করার প্রয়োজনীয় আইন প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়নের জন্য। অবশ্য আমরা শিল্প-কারখানায় যেখানে সত্যিই প্রয়োজন সেখানে ফরমালিনের ব্যবহার বন্ধ করার কথা বলছি না। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরিগুলোতে স্যাম্পল সংরক্ষণের জন্য যতটুকু ফরমালিন প্রয়োজন তা তাদেরকে না দেওয়ার কথা বলছি না। মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালগুলোতে ব্যবহার্য ফরমালিনও বন্ধ করার প্রয়োজন নেই। কিন্তু খোলা বাজারে খুচরা আকারে অবাধে ফরমালিন বিক্রির কোনোই কারণ নেই, অন্য কোথাও এর কোনো ব্যবহার নেই।

ফরমালিন এদেশে তৈরি হয় না বা চোরাচালান হয়ে ভারত থেকেও আসে না। ফরমালিনকে আমদানি লাইসেন্স ব্যবহার করে বিদেশ থেকে আনা হয়। তাই কোন শিল্প-কারখানা কতটুকু ফরমালিন আমদানি করলো তা সরকারের জানা আছে। এখন প্রয়োজন কতটুকু ফরমালিন ওই প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করেছে এবং কতটুকু উদ্বৃত্ত আছে তার হিসাব নেয়া। এভাবে হিসাব নিলে খোলাবাজারে ফরমালিন বিক্রি বন্ধ করা যাবে। তাছাড়া মোবাইল কোর্টগুলো মাছের বাজারে অভিযান চালানোর সময় বাজারের ওষুধের ও হার্ডওয়্যার দোকানগুলোতে ফরমালিন বিক্রি হয় কিনা তা খুঁজে দেখতে পারেন।

মিটফোর্ড মার্কেটসহ সব রাসায়নিক বিক্রির দোকানে ফরমালিনের বিক্রি অবিলম্বে বন্ধ করা উচিত। আমদানি লাইসেন্স ও ব্যবহারের হিসাব ছাড়া ফরমালিনের মজুদ, বিক্রি এমনকি বহনও নিষিদ্ধ করলে এবং অপরাধীকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিলে ফরমালিনের ব্যাপক ব্যবহার বন্ধ হতে পারে বলে আমরা মনে করি। আশা করি জনস্বাস্থ্য রক্ষার স্বার্থে সরকার এ বিষয়ে দ্রুত প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

আপনাদের মন্তব্যের অপেক্ষায় রইলাম। সবাইকে শেয়ার করুন,সবাইকে সতর্ক করুন। জাতিকে রক্ষা করার দায়িত্ব আপনার নিজের।

পূর্বে এখানে প্রকাশিত

পেজটিতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন টেকটিউনারস বিডি

ADs by Techtunes ADs

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি Shaheen Parvez। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 45 টি টিউন ও 121 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

Shaheen Parvez, Manikganj, Dhaka


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

খাদ্যে মন্ত্রী। ধন্যেবাদ…..

Thnx for advise or advice