ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

সি টিউটোরিয়াল, পর্ব ৪– (C প্রোগ্রাম এর ফরম্যাট)

ADs by Techtunes ADs

এই সিরিজের পূর্বের টিউটোরিয়াল গুল।

1.সি টিউটোরিয়াল, পর্ব ১- (প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের ইতিহাস)

2.সি টিউটোরিয়াল, পর্ব ২ –(প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের সূচনা লগ্ন)

3.সি টিউটোরিয়াল, পর্ব ৩- (সিল্যাংগুয়েজেরইতিহাস)

Objective_C_Programmin_Languageআরো একবার সবাইকে আমন্ত্রন জানাচ্ছি Programming C টিউটোরিয়ালে। আজকে আমরা আলোচনা করব প্রোগ্রাম লিখার রুল নিয়ে। চলুন শুরু করা যাক। একটি দেশ, একটি কম্পানি সহ একাধিক অংশ/পার্ট নিয়ে যে স্থানে কাজ করা হয় সেই কাজেই আকটি নিয়িম মেনে চলা হয়। যেমন আপনি ও আপনার এক বন্ধুম একাত্রে একটি ওয়েভ পেজ তৈরি করবেন এক্ষেত্রে আপনাকে হয়ত ডিজাইন করবেন এবং আপনার বন্ধু ডাটাবেজ এর কাজ এবং প্রথমে ডিজাইন এর কাজ এরপর ডাটাবেজ এর কাজ। তেমন করে একটি পরিপূর্ন প্রোগ্রাম লিখতে হলেও ওনেক গুল অংশ এর সমন্বয়ে লিখতে হয়। হেডার ফাইল, মেইন প্রোগ্রাম, সাব-ফাংশন ইত্যাদিএই অংশ গুলকে সাজাতেও হয় কিছু নিয়ম মেনে। চলুন দেখি C language এ একটি প্রোগ্রাম লিখতে হলে কি কি অংশের দরকার হয় এবং কিভাবে সাজিয়ে লিখতে হয়।

C প্রোগ্রাম এর ফরম্যাটঃ

1.Documentation Section

2.Link Section

3.Definition Section

5.main() function Section

ADs by Techtunes ADs

a.{

Global Declaration Section

i.Declaration Part

ii.Executable Part

b.}

6.Sub Program Section

a.function 1

b.function 2

c...........

d...........

ADs by Techtunes ADs

e.Function 10

f.function n

000081-librariesDocumentation Section: একটি উদ্দেশ্য অথবা সমস্যা সমাধানের জন্যই মূলত একটি প্রোগ্রাম লিখা হয়। Documentation Section এ ঠিক তাই লিখা হয়। এক কথায় বলা যায় Documentation Section হল প্রোগ্রাম সম্পর্কৃত কমেন্ট অংশ। পরবর্তিতে যদি কেউ প্রোগ্রাম গুল দেখে বুঝতে পারে এজন্যও Documentation Section ব্যবহার করা হয়। Documentation Section শুরু হয় ‘/*’ দিয়ে এবং শেষ হয় ‘*/’ দিয়ে। উদাহরন - /* This is a comment. This program m……….*/. Documentation Section যা লেখা হয় তা কখনই মেশিন ভাষায় রুপান্তর করা হয়না। জেনারেট হওয়া (.exe) ফাইলের সাথে Documentation Section এর কোন অংশই থাকেনা। তবে Documentation Section প্রোগ্রামের জন্য আবশ্যক নয়

Link Section: এখানে বিভিন্ন ধরনের হেডার ফাইল সংযুক্ত করা হয়। হেডার ফাইলে প্রোগ্রামের স্কল লাইব্রেরী ফাংশন ও কী-ওয়ার্ড সমূহ বলে দেওয়া (ডিফাইন) থাকে তাই প্রোগ্রামের জন্য হেডার ফাইল বাধ্যতামূলকহেডার ফাইল শুরু হয় “<” দিয়ে এবং শেষে হয় “>” দিয়ে। হেডার ফাইলের এক্সটেনশন ‘.h’ উদাহরন : <stdio.h> , <conio.h> ইত্যাদি

Definition Section: এই সেকশনে/অংশে Constants (ধ্রুবক) Define করা থাকেConstants সম্পর্কে পরবর্তিতে আলোচনা করা হবে।

Thought_thumb[7]main() function Section: main section হল সি এর মূল বিষয়। এই সেকশনে বিভিন্ন লাইব্রেরী ফাংশন নিয়ে কাজ করা হয় এবং ইউজারের তৈরি করা ফাংশন কে কল করা হয়। কম্পাইলার শুধু মাত্র এই অংশ ও এর সাথে সম্পৃর্ক্ত অংশ গুলোক কে এমশিন ভাষার রুপান্তর করবে। main() function শুরু হয় ‘{’ দিয়ে এবং শেষ হয় ‘}’ দিয়ে এবং প্রতিটি Statement এর শেষে অবশ্যই সেমিক্লোন (;) দিতে হবে। main() function সেকশন ২ টি অংশের সমন্বয়ে গঠিত

Global Declaration Section: Global Declaration Section Global ভেরিয়েবল ডিক্লিয়ার করা হয়। ভেরিয়েবল সম্পর্কে পরবর্তিতে আলোচনা করা হবে।

A.Declaration Part: মেইন ফংশনের এই সেকশনে বিভিন্ন লোকাল ভেরিয়েবল ডিক্লিয়ার করা হয়।

B.Executable Part: এই সেকশনে Statement লিখা হয়। এই সেকশনে কমপক্ষে একটি থাকবে।

Sub Program Section: এর অংশ ইউজারের তৈরি করা ফাংশন লিখা হয়। যা পরবর্তিতে main() function এ কল করা হয়।

ADs by Techtunes ADs

উদাহরন

  1. /*This is a example program code */ //Documentation Section:
  2. #include <stdio.h> // Link Section
  3. #define GRADE 'A' // Definition Section
  4. void main() // main() function Section start
  5. {
  6. char globa = "E"; // Global Declaration Section
  7. printf("hellow"); // Executable Part
  8. }
  9. // // main() function Section end

প্রাথমিক আলোচনায় কিছু নতুন শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে যা নবীনদের পক্ষেবুজতে কষ্ট হবে এবং একই সাথে এসব কাজের না মনে হবে। কিন্তু আসলে তা নয় বরং এই আলোচনা গুল পরে করা হলে অথবা আলোচনা না করা হলে পরবর্তিতে কাজ করার সময় জামেলায় পড়তে হবে এবং অনেক লজিক্যাল ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। পরবর্তী পর্বে আমরা ভেরিয়েবল নিয়ে আলোচনা করব

টিউনটি পূর্বে টিউটোরিয়ালবিডিতে প্রকাশীত। টিউনটির মূল লেখক ইমরান

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি টিউটোহোস্ট। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 5 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 162 টি টিউন ও 69 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

টিউটোহোস্ট বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় ওয়েব হোস্টিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। যুক্তরাস্ট্র এবং যুক্তরাজ্য ভিত্তিক দ্রুতগতির বেশ কিছু ওয়েব সারভারে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো নিরাপদে সংরক্ষণ করা হয়। আমরা এদেশে ২৪ ঘন্টা এবং বছরে ৩৬৫ দিন অনলাইন এবং ফোন সাপোর্টের ব্যবস্থা রেখেছি। বাংলেদশসহ অনেক দেশের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট আমাদের সারভার ব্যবহার করছে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ভাই আমি C language নবাগত। ধারাবাহি টিউন পেলে অনেক উপকৃত হব।
অনেক অনেক ধন্যবাদ সুন্দর টিউন এর জন্য।

    আপনাকেও ধন্যবাদ। এই সিরিজের সকল টিউন গুল পাওয়ার জন্য ভিজিট করতে পারেন tutorialbd.com/blog 😀