এয়ারটেল সিমের ব্যালেন্স ট্রান্সফার করুন কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই

Level 6
এইচএসসি ২য় বর্ষ, জুমারবাড়ী আর্দশ ডিগ্রি কলেজ, গাইবান্ধা

বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই? আশা করছি আপনারা সকলেই ভাল আছেন। বরাবরের মতো আজও নতুন একটি টিউন নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। তবে আজকের টিউনটি অন্যান্য সব টিউনের চাইতে ব্যতিক্রম। বন্ধুরা আজকে আমি আপনাদেরকে দেখাবো কিভাবে আপনি এয়ারটেল সিম থেকে অন্য একটি এয়ারটেল সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন।

একটি এয়ারটেল সিম থেকে অন্য একটি এয়ারটেল সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার তিনটি পদ্ধতি রয়েছে। যেগুলো হলোঃ এসএমএস, কোড ডায়াল এবং এয়ারটেল অ্যাপ এর মাধ্যমে। আজকে আমি তিনটি মাধ্যমেই কিভাবে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন সেটি দেখাবো। আশা করছি এজন্য সম্পূর্ণ টিউনটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে থাকবেন। তবে চলুন কথা না বাড়িয়ে এবার দেখে নেয়া যাক কিভাবে আপনি এসএমএস, কোড ডায়াল করে এবং এয়ারটেল অ্যাপ এর মাধ্যমে একটি এয়ারটেল সিম থেকে অন্য সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন।

এয়ারটেলে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে কিছু শর্ত রয়েছে। যেসব শর্ত মেনে একটি সিম থেকে অন্য একটি সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করা যায়। চলুন নিচে এক নজরে দেখে নেয়া যাক যে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার শর্ত গুলো কি কি।

১. ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার আগে আপনাদেরকে প্রথমেই জেনে নিতে হবে আপনার সেই সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার জন্য একটিভ আছে কিনা। আপনি যে সিম থেকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন সেই সিম অবশ্যই 30 দিনের জন্য একটিভ থাকতে হবে। অর্থাৎ আপনি যে সিম থেকে অন্য কাউকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন সেই সিম টি আপনাকে 30 দিন ধরে ব্যবহার করতে হবে। আপনি যদি সেই সিম টি অনেকদিন ধরে খুলে রাখেন কিংবা ব্যবহার না করেন তবে কিন্তু সেটি একটিভ নয়। ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার শর্ত অনুযায়ী অবশ্যই সেই সিম 30 দিনের জন্য একটিভ থাকতে হবে।

এ তো গেল ব্যালেন্স ট্রান্সফার হওয়ার ক্ষেত্রে শর্ত। যদি আপনার সিম থেকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার হওয়ার শর্তগুলো পূরণ হয়ে যায় তবে পরবর্তীতে আরো কিছু শর্ত রয়েছে। যেগুলো নিচে পর্যায় ক্রমে দেওয়া হল।

২. প্রতিদিন একটি সিম থেকে সর্বমোট বা সর্বোচ্চ 500 টাকা পর্যন্ত সেন্ড করা যাবে। এছাড়া আপনি যদি কারো কাছে থেকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করে নিজের সিমে নেন, এক্ষেত্রেও আপনি প্রতিদিন সর্বোচ্চ 500 টাকা পর্যন্ত নিতে পারবেন।

৩. কাউকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে প্রতি সপ্তাহে সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা পাঠানো যাবে এবং সেইসঙ্গে সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা নিজে অন্য কারো কাছ থেকে গ্রহণ করা যাবে। অর্থাৎ প্রতি সপ্তাহে আপনি সর্বোচ্চ 1, 000 টাকা লেনদেন করতে পারবেন।

৪. প্রতি সপ্তাহের মত প্রতি মাসে সর্বোচ্চ 1, 000 টাকা লেনদেন করা যাবে। এক্ষেত্রে আপনি অতিরিক্ত কোন টাকা কাউকে পাঠাতেও পারবেন না, আবার সর্বমোট আপনি 1000 টাকার চাইতে বেশি কারো কাছ থেকে নিতেও পারবেন না।

যাইহোক, এ তো গেল টাকা পাঠানোর শর্ত। তবে এবার প্রশ্ন হতে পারে যে, তবে একসঙ্গে সর্বনিম্ন এবং সর্বোচ্চ কত টাকা পাঠানো যাবে? টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৫ টাকা এবং সর্বোচ্চ 300 টাকা একসঙ্গে পাঠাতে পারবেন। তবে আপনি যে পরিমাণ টাকাই পাঠান না কেন এক্ষেত্রে আপনার এবং যাকে টাকা পাঠাবেন তার ব্যালেন্স থেকে 2.67 টাকা চার্জ প্রযোজ্য হবে। অর্থাৎ, টাকা পাঠানো এবং গ্রহণ করার ক্ষেত্রে উভয়ের কাছ থেকে 2.67 টাকা কাটবে।

এখানে আরো একটি শর্ত রয়েছে যে টাকা পাঠাবে তার ব্যালেন্সে টাকা পাঠানোর পর যেন 2.50 টাকা থাকে। এক্ষেত্রে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে আপনাকে হিসাব করতে হবে যে পরবর্তীতে আপনার ব্যালেন্সে 2.5 টাকা থাকবে কিনা। টাকা পাঠানোর পর আপনার ব্যালেন্সে যদি 2.5 টাকা না থাকে তবে আপনার ব্যালেন্স ট্রান্সফার সফল হবে না। তাই ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে অবশ্যই একাউন্টে অতিরিক্ত টাকা রাখতে হবে। চলুন তবে এবার দেখে নেয়া যাক ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার পদ্ধতি সমূহ।

১. এয়ারটেল সিমে এসএমএস এর মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার

প্রথমেই আমি দেখাবো কিভাবে এসএমএসের মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন। এসএমএসের মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার প্রক্রিয়াটি খুবই সহজ। এই প্রক্রিয়াটি কোড ডায়াল এবং অ্যাপ এর চাইতেও অনেক সহজ পদ্ধতি। কিভাবে এসএমএস এর মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন সেটি নিচে দেখানো হলো।

১. এসএমএসের মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে আপনাকে আপনার মোবাইলের মেসেজ অপশনে যেতে হবে। এবং সেখানে গিয়ে টাইপ করতে হবে BTR (space) phone number (space) transfer amount। যেমন ধরুন, BTR 01645432121 20 এরকম। এখানে আমি এই নাম্বারে 20 টাকা ট্রান্সফার করবো। তারপর এটি লিখে আপনাকে সেন্ড করতে হবে 1000 নাম্বারে। যেমনটি আপনি নিচে দেখতে পাচ্ছেন।

Airtel SMS balance transfer

উপরের ছবিটিতে নাম্বারের জায়গায় কিছুটা অংশ ঝাপসা করে দেওয়া হয়েছে। এখানে আমি আমার পার্সোনাল নাম্বারটি দিয়ে ছিলাম সেজন্য। ‌ আপনি যদি এসএমএস প্রেরণের এই প্রক্রিয়াটি দেখেন, তবে খুব সহজে আপনি ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন। যেখানে অন্যান্য পদ্ধতির চাইতে এসএমএস এর মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত সহজ। সেজন্য আমি এই পয়েন্টটিকে সবার উপরে রেখেছি। এছাড়া আপনি কোড ডায়াল করে এবং অ্যাপ এর মাধ্যমেও ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন। যে প্রক্রিয়া গুলো নিচে দেখানো হয়েছে। তবে চলুন এবার দেখে নেয়া যাক কিভাবে কোড ডায়াল করে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন।

২. কোড ডায়াল করে এয়ারটেল ব্যালেন্স ট্রান্সফার

এয়ারটেল প্রিপেইড সিম থেকে প্রিপেইডে সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে আপনি কোড ডায়াল করে করতে পারেন। যে প্রক্রিয়ার সাহায্যে আপনি খুব সহজেই 5 টাকা থেকে 300 টাকা পর্যন্ত একসঙ্গে ট্রানস্ফার করতে পারবেন। এসএমএস এবং কোড ডায়াল করার মাধ্যমে সর্বনিম্ন পাঁচ টাকাও ব্যালেন্স ট্রান্সফার করা যায়। কিন্তু অ্যাপের মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে এই স্বাধীনতাটি নেই। এয়ারটেল অ্যাপ এর মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে আপনাকে টাকার অপশন সিলেক্ট করতে দেয়া হবে। যেখানে 20 টাকা, 30 টাকা, 50 টাকা, 100 টাকা ইত্যাদি অপশন রয়েছে। এয়ারটেল অ্যাপ থেকে এসবের বাইরে আপনি কোন ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন না।

আপনি যদি এসএমএস এবং কোড ডায়াল করে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করেন তবে এখানে 5 টাকার ওপরে যে কোন পরিমাণ টাকা ম্যানুয়ালি আপনি লিখে দিতে পারবেন, যেটি কিন্তু অ্যাপ এর ক্ষেত্রে হবে না। তবে চলুন এবার দেখে যাক কিভাবে কোড ডায়াল করে এয়ারটেল ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন।

১. এয়ারটেল ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার জন্য প্রথমেই আপনার মোবাইলের ডায়াল প্যাডে চলে যেতে হবে এখানে গিয়ে ডায়াল করতে হবে *1212# লিখে। এটি লিখে ডায়াল করার পর আপনার সামনে দুইটি অপশন আসবে 1. Gefting এবং 2. Balance transfer। যেখানে আপনি 2 তুলে সেন্ড করুন।

২. তারপর আপনাকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার অপশন এ নিয়ে আসবে। এবার আপনি এখানে অন তুলে Send করুন।

তারপরের অপশনে আপনাকে একটি এয়ারটেল নাম্বার দিতে বলবে। এই অপশনে আপনাকে অবশ্যই একটি এয়ারটেল প্রিপেইড নাম্বার দিতে হবে। কেননা শুধুমাত্র এয়ারটেল প্রিপেইড নাম্বারগুলোতে ব্যালেন্স ট্রান্সফার হবে। পরের অপশনে অর্থাৎ নিচের চিত্রের দ্বিতীয় নাম্বার ছবিতে দেখানো অপশনে আপনার নাম্বার দেবার পর send লেখার উপর ক্লিক করবেন।

৩. এবারের এই অপশনে আপনার কাজ শেষের ধাপ। তারপরের অপশনে আপনাকে এমাউন্ট দিতে হবে। অর্থাৎ যে টাকাটা আপনি কাউকে ট্রান্সফার করবেন সে টাকাটি এখানে বসিয়ে দিবেন। আপনি সর্বনিম্ন পাঁচ টাকা থেকে শুরু করে আপনার সর্বোচ্চ 300 টাকা পর্যন্ত ট্রান্সফার করতে পারবেন। কোড ডায়াল করে এবং এসএমএসের মাধ্যমে আপনি সর্বনিম্ন পাঁচ টাকা ও ট্রান্সফার করতে পারবেন যেটি আপনি অ্যাপের মাধ্যমে পাবেন না।

তবে 5 টাকা টান্সফার করার ক্ষেত্রে উভয়েরই 5 টাকার বেশি যাবে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার চার্জ এর ক্ষেত্রে। কেননা এয়ারটেল ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে উভয়ের কাছ থেকে 2.67 টাকা চার্জ করে থাকে।

উপরের ওই অপশনে আপনার টাকা সেন্ড করার পর দ্বিতীয় চিত্রের মত একটি লেখা ভেসে উঠবে। যেখানে আপনার অনুরোধটি প্রসেসিং হবে। আপনি এখানে অনুরোধ রাখার কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনার ব্যালেন্স সেই নাম্বারে ট্রান্সফার হয়ে যাবে। আর যদি আপনার মূল ব্যালেন্সে টাকা কম থাকে তবে সেটিও আপনাকে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার মূল ব্যালেন্সে পরবর্তীতে দুই টাকা অবশিষ্ট থাকতে হবে, তবেই আপনার একাউন্ট থেকে অন্য একটি নাম্বারে ব্যালেন্স ট্রান্সফার হবে।

অর্থাৎ আপনি যখন ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার অনুরোধ রাখবেন, আপনি যে টাকার অংকটির দিবেন তার চাইতে যেন আপনার মূল ব্যালেন্সে 5.17 টাকা বেশি থাকে। আপনি যখন ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন তখন আপনার ক্ষেত্রে 2.67 টাকা চার্জ হবে এবং তাদের শর্ত অনুযায়ী আপনার ব্যালেন্সে পরবর্তীতে 2.5 টাকা থাকতে হবে। আশা করছি আপনারা এই বিষয় সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। তবে চলুন এবার দেখে নেয়া যাক যে অ্যাপের মাধ্যমে কিভাবে আপনি ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন।

৩. অ্যাপের মাধ্যমে এয়ারটেল ব্যালেন্স ট্রান্সফার

এয়ারটেল অ্যাপ এর মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার যদিও খুব সিম্পল, কিন্তু এ পদ্ধতিতে ইচ্ছাধীন অ্যামাউন্ট সিলেক্ট করা যায় না। এয়ারটেল অ্যাপ এর ভিতরে যেসব অ্যামাউন্ট দেওয়া রয়েছে আপনি যদি সেই টাকাই কাউকে ট্রান্সফার করতে চান তবে আপনি অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন। চলুন এবার দেখে নেয়া যাক কিভাবে আপনি অ্যাপের মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন।

১. অ্যাপের মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার জন্য আপনাকে প্রথমে চলে যেতে হবে এয়ারটেল অ্যাপ টিতে। অ্যাপটিতে চলে আসার পর এখানকার Quick links থেকে Balance transfer অপশনটি খুঁজে নিবেন। এটি পাবার জন্য আপনি Quick links-এ ডান থেকে বামদিকে swipe করুন। তারপর আপনি এখানে 'balance transfer' অপশন টি খুঁজে পেলে এখানে ক্লিক করুন।

Airtel app

২. এবার এখান থেকে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার অপশন-এ নিয়ে আসবে। এখানে উপরে আপনি দেখতে পাবেন নাম্বার দেওয়ার অপশন। এখানে আপনি যে নাম্বারে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করবেন সেই নাম্বারটি দিয়ে দিবেন। তারপর নিচে রয়েছে এমাউন্ট সিলেক্ট করার অপশন। যেখানে আপনি ২০, ৫০, ১০০, ২০০, ৫০০ টাকা সিলেক্ট করতে পারবেন।

অ্যাপ এর ভিতরে যেসব অ্যামাউন্ট দেওয়া রয়েছে আপনি শুধুমাত্র সেই টাকাই সিলেক্ট করতে পারবেন। এখানে আপনি অতিরিক্ত বা ইচ্ছাধীন কোন অ্যামাউন্ট দিতে পারবেন না। যেমনটি আপনি এসএমএস এবং কোড ডায়াল করে পেয়েছেন। তবে আপনি যদি অ্যাপ এর ভেতরে থাকা এসব টাকাই কাউকে দিতে চান তবে আপনি অ্যাপ ব্যবহার করে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারেন।

নাম্বার এবং টাকার অংক সিলেক্ট করার পর আপনাকে নিচের 'Transfer the balance' অপশনে ক্লিক করতে হবে।

৩. ব্যালেন্স ট্রান্সফার সফল করার জন্য নিচের মত একটি উইন্ডো দেখতে পাবেন। এখানে আপনার ফোনে একটি ভেরিফিকেশন কোড চলে আসবে। যে কোডটি এখানে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বসে যাবে। যদি ভেরিফিকেশন কোড টি স্বয়ংক্রিয়ভাবে এখানে বসে না যায় তবে আপনি মেসেজ থেকে সেটি নিয়ে এখানে লিখে দিয়ে 'transfer' লেখাতে ক্লিক করবেন।

এরপরে আপনার সেই টাকাটি সেই নাম্বারে চলে যাবে এবং উভয় সিম থেকে 2.67 টাকা চার্জ কাটবে। তারপরও প্রত্যেকটি মোবাইলে একটি কনফার্মেশন মেসেজ পাবেন।

৪. অ্যাপের মাধ্যমে কিংবা যে কোন মাধ্যমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার পর নিচের মত একটি কনফার্মেশন মেসেজ পাবেন।

Airtel balance transfer confirmation message

উপরের দেখানো তিনটি পদ্ধতিতে আপনি এয়ারটেল সিম থেকে অন্য একটি এয়ারটেল সিমে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন। ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার জন্য অবশ্যই দুইটি সিম প্রিপেইড হতে হবে। এছাড়া ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে আরও যেসব শর্ত রয়েছে সেগুলো উপরে দেওয়া রয়েছে। ব্যালেন্স ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে আপনি যদি কোন রকম সমস্যায় পড়ে থাকেন তবে আপনি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার এর সঙ্গে অনলাইন চ্যাট কিংবা সরাসরি ১২১-এ ফোন করে কথা বলতে পারেন।

বন্ধুরা এই ছিল তবে আজকের টিউনের বিষয়। প্রতিদিন মোবাইল ব্যবহার করার ক্ষেত্রে একটি সমস্যা হচ্ছে অতিরিক্ত এসএমএস আসা। যেটি কিন্তু আমাদের সকলের জন্য বিরক্তিকর। রবি এবং এয়ারটেল সিমে কিভাবে প্রমোশনাল এসএমএসগুলো আসা বন্ধ করবেন সেটি নিয়ে আমার আগের একটি টিউন রয়েছে, আপনারা চাইলে সেই টিউনটি ও দেখে আসতে পারেন। সেই টিউনটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

এছাড়াও আমরা অনেক সময় একাধিক ইন্টারনেট প্যাক কিনে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি। তখন একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় যে, কোন একটি প্যাক আগে কেনা থাকলে সেটি আগে খরচ হওয়া শুরু করে। কিন্তু এক্ষেত্রে আপনি যদি একটি প্যাক বন্ধ রেখে অন্য একটি প্যাক দিয়ে ইন্টারনেট চালাতে চান তবে এই টিউনটি দেখে আসতে পারেন। এই টিউনে আলোচনা করা হয়েছে কিভাবে আপনি একটি ইন্টারনেট প্যাক বন্ধ রেখে অন্য একটি প্যাক দিয়ে ইন্টারনেট চালাবেন। তবে একটি প্যাক বন্ধ রেখে অন্য একটি প্যাক দিয়ে ইন্টারনেট চালানোর এই প্রক্রিয়াটি শুধুমাত্র রবি এবং এয়ারটেল সিমের ক্ষেত্রে হয়। আপনি যদি রবি এবং এয়ারটেল সিমে একাধিক ইন্টারনেট প্যাক ব্যবহার করে থাকেন তবে এই টিউনটি দেখতে পারেন।

বন্ধুরা আজকের টিউনটি তবে এখানেই শেষ করে এবং পরবর্তী টিউন দেখার আমন্ত্রণ জানিয়ে বিদায় নিচ্ছি। দেখা হবে আগামী টিউনে আরো নতুন কিছু নিয়ে ইনশাআল্লাহ।

Level 6

আমি আতিকুর ইসলাম। এইচএসসি ২য় বর্ষ, জুমারবাড়ী আর্দশ ডিগ্রি কলেজ, গাইবান্ধা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 5 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 98 টি টিউন ও 48 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 11 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 2 টিউনারকে ফলো করি।

মানুষ পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করে। তারপর কিছুদিন সুখ-দুঃখ ভোগ করে। তারপর মৃত্যুবরণ করে। এটাই মানুষের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস। আমিও সেরকম একজন


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস