কিভাবে একটি ভালো কোম্পানি থেকে ডোমেইন – হোস্টিং সার্ভিস কিনবেন?

একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করতে গেলে প্রথমেই আপনাকে যে জিনিসটার প্রয়োজন হবে তা হলো একটি ডোমেইন। ডোমেইন এর কারনেই আপনার ওয়েবসাইট টি দৃশ্যমান হয়। তবে  ডোমেইন এর সাথে ভালো হোস্টিং সার্ভারের প্রয়োজন কারন আপনি নিশ্চয়ই আপনার কষ্ট করে বানানো ওয়েবসাইট টি অনেক বেশি সংখাক মানুষ দেখুক এবং ভিজিট করুক কোন ঝামেলা ছাড়াই। আর এটা তখনই সম্ভব যখন আপনি একটি ভালো ওয়েব হোস্টিং সার্ভিস ব্যবহার করবেন।

সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অসংখ্য ওয়েব হোস্টিং সার্ভিস প্রোভাইডার রয়েছে যারা সত্যিকার অর্থে ভালো সার্ভিস প্রদান করে। আমরা যদি বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কথা বলি তাহলে বাংলাদেশেও ছোট বড় অনেক হোস্টিং কোম্পানি আছে যাদের মধ্যে অনেকেই ভালো সেবা দিয়ে থাকে। ডোমেইন ও হোস্টিং সার্ভিস ক্রয়ের পূর্বে একটা কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে খুব ভালো ভাবে জেনে তারপর তাদের সার্ভিস নিবেন নাহলে পরবর্তীতে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন যেটা আপনার ব্যবসায়ের জন্য ক্ষতিকারক।

কোন জিনিস গুলো মাথায় রেখে আপনি ডোমেইন হোস্টিং ক্রয় করবেন এগুলো ভালোভাবে জেনে ও বুঝে নিলে পরবর্তীতে এসব নিয়ে আর কোন ঝামেলায় পড়তে হবেনা।

আমাদের একটা প্রবণতা আছে যে আমরা ডোমেইন - হোস্টিং ক্রয়ের ব্যাপারে বিদেশী কোম্পানির উপর নির্ভরশীলতা প্রকাশ করি। বেশ কিছু বাইরের কোম্পানি আছে যাদের উপর আসলেই নির্ভর করা যায় কারণ, তারা ভালো সার্ভিস প্রদান করে কিন্তু তুলনামূলক ভাবে মূল্য বেশি হয়ে থাকে দেশীয় কোম্পানির থেকে।

আপনি যদি দেশীয় কোম্পানির কাছ থেকে সার্ভিস নেন তাহলে ভালো সার্ভিস পাবেন এবং তাদের  থেকে অনেক কম দামে। তবে এর জন্য আপনাকে একটি ভালো কোম্পানির খোঁজ করতে হবে যার থেকে আপনি সব ধরনের সহযোগিতা পাবেন। আর দেশেই যদি ভালো মানের সার্ভিস পান তাহলে কেন বাইরে থেকে নিবেন?

ডোমেইন ক্রয়ের ক্ষেত্রে আপনি কিভাবে ভালো কোম্পানি বিবেচনা করবেন?

আন্তর্জাতিক ভাবে জনপ্রিয় টপ লেভেল ডোমেইন যেমনঃ.com.org.info.net গুলোর মূল্য সাধারনত ৮০০ - ১২০০ এর মধ্যে হয়ে থাকে। ডোমেইন সর্বনিম্ন এক বছরের জন্য ক্রয় করতে হয় এবং বছর শেষে রিনিউ করার প্রয়োজন পড়ে। ডট বিডি (.bd) এবং ডট বাংলা (.বাংলা) ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করার জন্য আপনি বিটিসিএল (BTCL) - থেকে কিনতে পারবেন।

তবে দেশীয় কোম্পানি হিসেবে আপনি Sharewebhost.com থেকেও এইসব ডোমেইন কিনতে পারেন, কারণ তারা বিটিসিএল এর দেয়া প্রাইস এবং তাদের নির্ধারিত সার্ভিস চার্জ নিয়েই ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করে থাকে। আর এখানকার সব থেকে বড় সুবিধা হচ্ছে আপনি আপনার সুবিধা মত পেমেন্ট Method ব্যবহার করেই ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

ডোমেইন ক্রয়ের ক্ষেত্রে আমরা খুব সহজেই আকৃষ্ট হই এমন কিছু বিষয়ের প্রতি সতর্ক থাকতে হবে। ফ্রী ডোমেইন বা খুব কম দামে পাওয়া ডোমেইন আমাদের আকৃষ্ট করে। ফ্রী সার্ভিস যেমন সবসময় ভালো হয়না তেমন সব সময় খারাপও হয়না। অনেক হোস্টিং কোম্পানি আছে যারা তাদের নির্দিষ্ট  কোন একটা প্যাকেজের সাথে ফ্রী ডোমেইন অফার করে থাকে। প্যাকেজ টি হয়তো এক বছরের জন্য নিলে আপনি ফ্রী ডোমেইন টি পাবেন। আবার অনেক সময় খুব কম দামে ডোমেইন অফার করে থাকে কিছু কোম্পানি যেটা ভাবনার বাইরে। এগুলো আসলে কাস্টমার ধরার একটা ফাদ বলতে পারেন কারণ মনে রাখবেন কেউ নিজের বিজনেসে লস করে আপনাকে এত কম দামে সার্ভিস দিবেনা। আর ৮৫০ টাকার চেয়ে কম মূল্যে কোন ব্যবসায়ীর পক্ষে ডোমেইন বিক্রি করে লাভ করা সম্ভব নয়। তাই এত কম দাম দেখে আনন্দিত হবার কিছু নেই। এই সব কিছু বিবেচনা করেই একটি ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে আপনার ডোমেইন টি রেজিস্ট্রেশন করবেন।

হোস্টিং ক্রয়ের ক্ষেত্রে কোন জিনিসগুলো বিবেচনা করবেন?

ডোমেইন এর পাশাপাশি কিভাবে একটি ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে হোস্টিং সার্ভিস নিবেন সেটাও জেনে রাখা জরুরী। কারণ, শুধু ডোমেইন দিয়েই তো আর ওয়েবসাইট চলেনা, আপনি যে হোস্টিং ব্যবহার করবেন সেটা যদি ভালো না হয় তাহলে তা আপনার ওয়েবসাইট এবং বিজনেসের জন্য কখনোই ভালো ফল বয়ে আনবে না। তাই, প্রতিষ্ঠান এবং সার্ভিসের ব্যাপারে নিম্নলিখিত বিষয় গুলো বিবেচনায় রাখবেনঃ

  • যে প্যাকেজ টি নিতে চান সেটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন
  • ডিস্ক স্পেস, ব্যান্ডউইথ ও সার্ভার পারফর্মেন্স চেক করুন।
  • ব্যাকআপ, আপটাইম গ্যারান্টি, সিকিউরিটি এবং ইউজার কন্ট্রোল প্যানেল সম্পর্কে জানুন।
  • বড় বড় রিভিউ সাইটগুলোতে বিভিন্ন কোম্পানির রিভিউ দেখতে পাবেন, সেগুলো মন দিয়ে পড়ুন
  • দেশীয় কোম্পানির থেকে যদি সার্ভিস নিতে চান তাহলে এ ক্ষেত্রে ভালো সার্ভিস পাওয়া টা আরও সহজ, কারণ আপনি আপনার পরিচিত এমন অনেককেই পাবেন যারা ভালো প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানে অথবা সার্ভিস ব্যবহার করেছে
  • কাস্টমার সাপোর্ট কেমন সেটা যাচাই করুন। নিজে যাচাই করুন অথবা ইতিপূর্বে যারা সার্ভিস নিয়েছে তাদের কাছ থেকে জানুন
  • প্রতিটা কোম্পানিই ফ্রী ট্রায়াল অফার করে থাকে। এটা ব্যবহার করেও অনেকটা ধারনা পাবেন
  • কোম্পানি মানি ব্যাক গ্যারান্টি দিচ্ছে কিনা সেটা অবশ্যই জেনে নিবেন।

প্রথমবার ডোমেইন - হোস্টিং কেনার ক্ষেত্রে আপনি দ্বিধাদন্দে পড়তেই পারেন। তবে সঠিক কাজ হল মাথা ঠাণ্ডা রেখে সিদ্ধান্ত নেয়া। আপনি যদি একটি হোস্টিং প্রোভাইডারের সার্ভিস ব্যবহার করে সন্তুষ্ট না হন তাহলে আপনি আপনার সার্ভিস টি মাইগ্রেট করে নিতেই পারেন তবে সেটি আপনার জন্য ভালো হবেনা কারণ কিছু কিছু ওয়েবসাইট আছে যেগুলো একদিন এমনকি কয়েক ঘণ্টাও যদি বন্ধ থাকে তাহলে অনেক ক্ষতি হয়ে যায় এবং অনেক কাস্টমার হারিয়ে যায়। কাজেই শুরুতেই একটি ভালো সার্ভিস খুঁজে পাওয়া তাহলে আপনাকে এই ঝামেলাই আপনাকে পড়তে হবেনা।

ভালো দেশীয় কোম্পানি খুঁজছেন?

বাংলাদেশে অনেক ভালো ভালো ওয়েব হোস্টিং কোম্পানি রয়েছে যারা তুলনামূলক স্বল্পদামে মান সম্মত সার্ভার ম্যানেজমেন্ট সার্ভিস প্রদান করে থাকে। ShareWebHost তাদের মধ্যে অন্যতম। ভালো মানের সার্ভিস প্রদানে তাদের যথেষ্ট সুপরিচিতি আছে অনলাইন জগতে। লাইটস্পিড সার্ভার, এসএসডি হোস্টিং সাথে সিপ্যানেল, ৯৯.৯৯% আপটাইম গ্যারান্টি, বেস্ট সিকিউরিটি, ২৪/৭ কাস্টমার সাপোর্ট তাদের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য। সাথে ৩০ দিনের ফ্রী ট্রায়াল এবং মানি ব্যাক গ্যারান্টি তো আছেই।

কাস্টমাররা যাতে তাদের সুবিধামত এবং নিরাপদ উপায়ে পেমেন্ট করতে পারে এজন্য ShareWebHost সব থেকে নিরাপদ এবং জনপ্রিয় পেমেন্ট গেটওয়ে ssl commerz ব্যবহার করে যেখানে আপনাকে পেমেন্ট সংক্রান্ত কোন ঝামেলাই পড়তে হবেনা। নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের ভালো কোম্পানি গুলোর মধ্যে শেয়ারওয়েবহোস্ট অন্যতম, সার্ভিস ব্যবহারেই প্রমান পাবেন।

শেষ কথা

তবে সার্ভিস ক্রয় সংক্রান্ত উপরে আলোচিত বিষয়গুলো মাথায় রাখলে আপনি সহজেই সঠিক প্রতিষ্ঠান থেকে একটি ভালো মানের ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে পারবেন। এছাড়া এ বিষয়ে যেকোনো তথ্য জানতে টিউমেন্ট করুন আর আর্টিকেল টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন অন্যদের সাথে।  ধন্যবাদ।

Level 0

আমি সাব্বির টেকটিউনার। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 মাস 2 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 2 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস