ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

কিভাবে একজন প্রোফেশনাল ওয়েব ডেভেলপার হবেন? কোথা থেকে শিখবেন? সবকিছু জেনে নিন

Level 4
টিউনার, সেনবাগ রেসিডেন্সিয়াল দাখিল মাদ্রাসা, নোয়াখালী

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এই কথাটার সাথে আমরা অনেকেই পরিচিত। আমাদের মধ্যে স্বপ্ন হচ্ছে একজন ভালো মানের ওয়েব ডেভেলপার হওয়ার। কিন্তু কিভাবে শুরু করবে, কোথা থেকে শিখবে, কোনটার পর কোনটা শিখবে তা আমরা অনেকেই জানি না। যার কারনে আমরা আমাদের স্বপ্নের ক্যারিয়ার সঠিকভাবে গড়ে তুলতে পারতেছি না। আপনারা যাতে করে সঠিক একটা গাইড লাইন পান এবং কোথা থেকে শিখবেন এগুলো জানানোর জন্যই আমার এই টিউনটি। কষ্ট করে ধৈর্য্য সহকারে টিউনটি পুরোটা পড়বেন।

ADs by Techtunes ADs

আপনারা ইউটিউবে সার্চ দিলে ওয়েব ডেবেলপার হওয়ার অনেক গাইড লাইন পেয়ে যাবেন। কিছুটা সঠিক আবার কিচুটা সঠিক না যার ফলে আপনারা বুঝতে পারবেন না কোনটা ফলো করবেন। আজকে আমি আমার দুইবছরের অভিজ্ঞতা আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। কোনটার পর কোনটা শিখবেন এবং সাথে কোথা থেকে শিখবেন তার সকল বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

১. এইচটিএমএল এবং সিএসএস (HTML এবং CSS)

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর কথা আসলে প্রথমে একটি কথা আসে তা হলো এইচটিএমএল এবং সিএসএস। আপনি যত বড় ডেভেলপার হয়ে যান কেন আপনার এগুলো জানা থাকতে হবেই। বলতে গেলে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর সবচেয়ে সহজ বিষয় হচ্ছে এইচটিএমএল এবং সিএসএস। এগুলো আপনি ইউটিউবে সার্চ দিয়ে যেকারো ভিডিও দেখে শিখে ফেলতে পারবেন। আপনাদেরকে বলবো আমি যে চ্যানেল গুলো বলবো সেগুলো থেকে শিখতে। কারণ এইচটিএমএল সিএসএস সহজ হলেও আপনার জিবনের প্রথম কোডিং এগুলোই হবে। তাই প্রথম প্রথম বুঝতে একটু কষ্ট হবে যার দরকার ভালো একটা চ্যানেল শিখতে হবে। যাতে করে সহজেই বুঝতে পারেন এবং শিখতেও ভালো লাগে। তা না হলে দেখা যাবে যে আগ্রহ নিয়ে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট বা ডিজাইন শিখতে এসেছেন তা আর থাকবে না। ইউটিউব চ্যানেলটির নাম হচ্ছে আইটি বাড়ি। কোর্স প্লেলিস্ট পেতে এখানে ক্লিক করুন। এইখানে শুধু এইচটিএমএল শিখানো হয়েছে। এটি একটি প্রিমিয়াম কোর্স চাইলে কিনতে পারেন না হলে পরের প্লেলিস্টগুলো ফলো করতে পারেন। এইচটিএমএল প্লেলিস্ট এবং সিএসএস প্লেলিস্ট। এগুলো দেখার আগে অবশ্যই আগের প্লেলিস্টটা শেষ করে আসবেন।

২. বুথস্ট্রাপ (Bootstrap)

বুথস্ট্রাপ হলো সিএসএস এর একটি ফ্রেমওয়ার্ক। যার মাধ্যমে সহজেই যেকোন ধরনের বড় ওয়েব সাইট তৈরি করা যায়। এবং বুথস্ট্রাপ ব্যবহার করে আপনি আপনার ওয়েব সাইট রেসপন্সিভ করে ফেলতে পারবেন। আপনি একজন ডিজাইনার হিসেবে আপনার এটা জানা খুবই জরুরি। বুথস্ট্রাপ আপনার ডিজাইনিং এর দক্ষতাকে অন্য লেভেলে নিয়ে যাবে। বুথস্ট্রাপ শিখাটা যেহেতু জরুরি তাই শিখার জন্য ভালো একটা চ্যানেলও জরুরি। নিচের প্লেলিস্টটা ফলো করলে আশা করি আপনার বুথস্ট্রাপ নিয়ে আর কোন চিন্তা থাকবে না। বুথস্ট্রাপ এর প্লেলিস্ট

৩. জাভাস্ক্রিপ্ট (Javascript)

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর কথা মাথায় আসলেই যে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটা কথা আসে তা হলো জাভাস্ক্রিপ্ট। জাভাস্ক্রিপ্ট বর্তমানে বিশ্বের এক নাম্বার প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ। কয়েক বছর আগে মানুষ জাভাস্ক্রিপ্ট মানেই বুঝতো জেকোয়ারী অর্থাৎ ফ্রন্টএন্ড এর কাজ করা। কিন্তু বর্তমানে জাভাস্ক্রিপ্ট এক অন্য মাত্রায় চলে গেছে। এমন কিছু নাই যে আপনি জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়ে করতে পাবেন না। জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়ে আপনি  ওয়েব সাইট ডিজাইন থেকে শুরু করে ডেভেলপমেন্ট পর্যন্ত করতে পারবেন। আপনি মোবাইল অ্যাপলিকেশন তৈরি করতে পারবেন, ডেস্কটপ অ্যাপলিকেশন তৈরি করতে পারবেন যেগুলো আপনি যেকোন প্ল্যাটপর্মে ব্যবহার করতে পারবেন। যা অন্য কোন ল্যাঙ্গুয়েজ দিয়ে তৈরি করা সম্ভব না। তাই আপনি একজন প্রোফেশনাল ডেভেলপার হতে হলে আপনাকে জাভাস্ক্রিপ্ট শিখতেই হবে। কিন্তু এখন কথা হচ্ছে আপনি জাভাস্ক্রিপ্ট কোথা থেকে শিখবেন? তা একটু পরেই বলতেছি তার আপনাকে আরেকটা বিষয়ে ধারণা রাখতে হবে তা হলো প্রোগ্রামিং মানে কি?

আপনারা যারা কম্পিউটার নিয়ে ঘাটাঘাটি করেছেন তারা অনেকেই শুনে থাকবেন কম্পিউটার ০ এবং ১ ছাড়া কিচুই বুঝেনা। কিন্তু আমাদের পক্ষে তো ০ এবং ১ দিয়ে কম্পিউটারকে বুঝানো সম্ভব না। তাই  কম্পিউটারকে আমাদের ভাষায় বুঝানোর জন্যই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ তৈরি করা হয়েছে। যাতে করে আমরা সহজেই কোড করে কম্পিউটারকে বুঝাতে পারি। কিন্তু আপনি যদি এখন জাভাস্ক্রিপ্ট লিখে ইউটিউবে সার্চ দেন তাহলে কেউই আপনাকে প্রোগ্রামিং কিভাবে কাজ করে প্রোগ্রামিং কি এগুলো কিছুই বলবে না। একটা জাভাস্ক্রিপ্ট ফাইল নিয়ে কাজ করা শুরু করে দিবে। আমি দুইবছর ধরে প্রোগ্রামিং করতেছি জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়ে কাজ করেছি পিইচপি নিয়ে  কাজ করেছি কিন্তু আমি জানতামই না প্রোগ্রামিং কিভাবে কাজ করে। বা কম্পিউটার যে ০ এবং ১ ছাড়া কিচু বুঝেই না তার প্রমাণও পাইনি। পাবো কিভাবে কারণ কেউ তো এই বিষয় নিয়ে কোন কথা বলে না। এই বিষয় নিয়ে শুধুমাত্র একটা টিমই কথা বলেছে তা হলো স্ট্যাক লার্নার টিম। তাদের তৈরি করা একটি প্রজেক্ট হচ্ছে sl3। এই বিষয় নিয়ে আমি আগে একটি টিউন করেছি সেটা পড়ে আসবেন। এবং সেই টিউনে যে বিষয় গুলো বলা হয়েছে সেগুলো সম্পন্ন করে আসবেন তারপর জাভাস্ক্রিপ্ট শিখা শুরু করবেন। টিউন লিংক

এবার আসা যাক জাভাস্ক্রিপ্ট কোথা থেকে শিখবেন। তার জন্য আমার দেখা বাংলাদেশের সেরা একটি চ্যানেল হচ্ছে স্ট্যাক লার্নার। আপনি যদি তাদের sl3 ফ্রেমওয়ার্কটা পড়েন তাহলেই জানতে পারবেন আমি কেন সেরা বলেছি আর কোর্সগুলো করলে আপনি তাদের ছাড়া আর কোন চ্যানেলের ভিডিওই দেখবেন না। তাদের চ্যানেলের জাভাস্ক্রিপ্ট কোর্সটা প্রিমিয়াম ছিল কিন্তু কিছু আগে তা ফ্রি করে দিয়েছে যাতে করে দেশের মানুষ শিখতে পারে। আরো কয়েকটি প্লেলিস্ট রয়েছে যা নিয়ে আস্তে আস্তে আলোচনা করবো। জাভাস্ক্রিপ্ট প্লেলিস্ট। এই প্লেলিস্টটা শেষ করলে আপনি আপনাকে একজন প্রোফেশনাল জাভাস্ক্রিপ্ট প্রোগ্রামার দাবি করতে পারবেন। তাই প্লেলিস্টটা মনোযোগ সহকারে শেষ করবেন।

প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে অ্যারে। জাভাস্ক্রিপ্টও এর ব্যাতিক্রম নয় তাই আপনাকে অবশ্যই ভালো ভাবে শিখতে হবে। তার জন্য এই প্লেলিস্টটা ফলো করুন।

৪. জেকোয়ারী (jQuery)

জেকোয়ারীটা এই লিস্টে রাখার আমার ইচ্ছা ছিল না কিন্তু যেহেতু জাভাস্ক্রিপ্ট নিয়ে কথা বলেছি তাই জেকোয়ারীটা রাখতে হয়েছে। জেকোয়ারী হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্ট এর একটা ছোট্ট লাইব্রেরী। যা কিনা শুধু ফ্রন্টএন্ড নিয়েই কাজ করে থাকে। এই লাইব্রেরিটা কয়েক বছর আগেও অনেক জনপ্রিয় ছিল কিন্তু এখন তেমন জনপ্রিয় নেই। আগে মানুষ জাভাস্ক্রিপ্ট মানেই বুঝতো জেকোয়ারী। এখন আপনি যদি এই সময় এসে জেকোয়ারী শিখে সময় নষ্ট না করতে চান তাহলে শিখতে হবে না। আর যদি চান না শিখবো তাহলে নিচের প্লেলিস্টটা দেখতে পারেন। জেকোয়ারী প্লেলিস্ট

৫. পিএইসডি টু এইচটিএমএল (PSD2HTML)

আপনি একজন ভালো ডিজাইনার হতে চান বা নিজেকে একজন ভালো ডিজাইনার দাবি করতে চান তাহলে আপনাকে পিএইসডি টু এইচটিএমএল শিখতেই হবে। পিএইসডি টু এইচটিএমএল মানে হচ্ছে ফটোশপ দিয়ে তৈরি করা একটি ওয়েব সাইটকে এইচটিএমএল কোড দিয়ে ওয়েব সাইট এ রুপান্তর করা। এর জন্য আপনাকে কোন প্রকার নতুন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ শিখতে হবে না। যেগুলো শিখেছেন সেগুলো ব্যবহার করে করতে পারবেন। আপনি এই চ্যানেলের প্লেলিস্ট এ গেলে অনেকগুলো পিএইসডি টু এইচটিএমএল প্লেলিস্ট দেখতে পাবেন। সেখান থেকে শেষেরটা থেকে শুরু করে দিতে পারেন। তারপর আস্তে আস্তে সবগুলো শেষ করে ফেলবেন।

ADs by Techtunes ADs

৬. নোড জেএস (NodeJS)

নোড জেএস হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্ট এর একটি রানটাইম। যার সাহায্যে আপনি জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে ওয়েব সাইটের ব্যাকএন্ড এর কাজগুলো করতে পারবেন। মূলত নোড জেএস আসার পরেই জাভাস্ক্রিপ্ট এর এতটা উন্নতি সাধন হয়েছে। তাই আপনি যদি একজন ব্যাকএন্ড ডেভেলপার হতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই নোড জেএস শিখতে হবে। যেহেতু এটি জাভাস্ক্রিপ্ট এর সাথে সম্পর্কিত তাই আমরা চলে যাবো স্ট্যাক লার্নার চ্যানেলে। এটিও একটি প্রিমিয়াম কোর্স ছিল এখন ফ্রি করে দিয়েছে। এই কোর্সটা বা প্লেলিস্ট সম্পন্ন করার পর আপনার নোড জেএস নিয়ে আর কোন সমস্যা থাকবে না। অনায়াসেই যেকোন ধরনের সাইট ডেভেলপ করতে পারবেন। নোড জেএস প্লেলিস্ট

৭. রিয়্যাক্ট জেএস (ReactJS)

রিয়্যাক্ট হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্ট এর একটি লাইব্রেরি বা ফ্রেমওয়ার্ক। যার মাধ্যমে আপনি যেকোন ধরনের সিঙ্গেল পেজ অ্যাপলিকেশন তৈরি করতে পারবেন। সিঙ্গেল পেজ অ্যাপলিকেশন বলতে বুঝায় যে ওয়েব সাইট গুলো কোন প্রকার রিফ্রেস নেয় না সেগুলো। রিয়্যাক্ট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ফেসবুক। মূলত রিয়্যাক্ট তৈরি করেছে ফেসবুক কোম্পানী। তাহলে তো আর কোন কথাই নাই রিয়্যাক্ট তো শিখতেই হবে। কিন্তু কোথা থেকে শিখবো? যেহেতু আগের মতো এটাও জাভাস্ক্রিপ্ট এর সাথে সম্পর্কিত তাই আবার চলে যাবো স্ট্যাক লার্নার এর চ্যানেলে। যা ছিল একটি প্রিমিয়াম কোর্স এখন ফ্রি করে দিয়েছে। রিয়্যাক্ট প্লেলিস্ট

রিয়্যাক্ট তো শিখে ফেললাম তাহলে এখন একটু রিয়্যাক্ট এর এডভান্স কাজ গুলো শিখা যাক। তার জন্য স্ট্যাক লার্নার এর চ্যানেলেই রয়েছে আরো একটি প্লেলিস্ট। যা কিনা বরাবরের মতো প্রিমিয়াম কিন্তু এখন ফ্রি। প্লেলিস্ট

রিয়্যাক্ট এর তো অনেক কিছু শিখে ফেলেছি। কিন্তু রিয়্যাক্ট দিয়ে কিভাবে বড় ধরনের প্রজেক্ট করবো সেটা তো শিখিনি তাহলে তো এখন সেটা শিখা দরকার। কথা হচ্ছে কোথা থেকে শিখবো? আপনারা হয়তো এখন অনেকেই স্ট্যাক লার্নার এর কথা ভাবতেছেন, কিন্তু আমি দুঃখিত। কারণ তাদের চ্যানেলে এই ধরনের কোন প্লেলিস্ট নাই। তাহলে কোথা থেকে শিখবেন? তার জন্যও চ্যানেল রয়েছে কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে সেই চ্যানেলটা হচ্ছে ইংরেজি চ্যানেল কারণ বাংলাতে তেমন কোন ভালো চ্যানেল নাই। দুঃখ পাওয়ার কিছু নাই কারণ আপনি রিয়্যাক্ট এর অনেক কিছু শিখে ফেলেচেন ছোট খাটো প্রজেক্ট করাও শিখে ফেলেছেন। তাহলে এখন ইংরেজি চ্যানেল হলে কি হবে শুধু তারা কিভাবে প্রজেক্ট সেটাই দেখবেন আর প্র্যাকটিস করবেন তাহলেই হয়ে যাবে। প্লেলিস্ট। আপনি রিয়্যাক্ট শিখলে পরবর্তীতে সহজেই রিয়্যাক্ট নেটিভ শিখে ফেলতে পারবেন। যার মাধ্যমে আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েড এর জন্য অ্যাপলিকেশন তৈরি করা যায়।

রিয়্যাক্ট হচ্ছে ফ্রন্টএন্ড এর একটি লাইব্রেরি। তাহলে আমরা তো ফ্রন্টএন্ড এর কাজ শিখে ফেলেচি কিন্তু ব্যাকএন্ড দিয়ে কিভাবে রিয়্যাক্ট অ্যাপলিকেশন ডেভেলপ করা হয় সেটা তো শিখিনি। তাহলে আর দেরি করার কি দরকার এখনই তা শিখে ফেলি। তার জন্য এই প্লেলিস্ট এ থাকা MERN এর টাইটেলের সকল ভিডিও শেষ করে ফেলবেন তাহলেই হয়ে যাবে।

শেষকথা

এগুলো শিখে ফেলার আপনি নিজেকে একজন প্রোফেশনার ডেভেলপার দাবি করতে পারবেন। এখন আপনাদের অনেকেরই মনে প্রশ্ন থাকতে পারে আমি কেন পিএইচপি নিয়ে কোন কথা বলিনি। এর কারণ হচ্ছে এখন সবাই জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে ওয়েব সাইট ডেভেলপ করতেছে তাহলে আপনি কেন পিএইচপি শিখার পিছনে সময় নষ্ট করবেন। তাই এগুলো ভালো করে শিখুন আপনাকে কেউ আটকে রাখতে পারবে না। আশা করি টিউনটি আপনাদের অনেকের উপকারে আসবে। এই বিষয় নিয়ে যদি কোন কিচু জানার থাকে তাহলে অবশ্যই টিউমেন্ট করবেন অথবা আমার ফেসবুকে ম্যাসেজ দিবেন আমি চেষ্টা করবো আপনাদেরকে সাহায্য করার জন্য। আল্লাহ হাফেজ।

ADs by Techtunes ADs
Level 4

আমি রাশেদুল ইসলাম। টিউনার, সেনবাগ রেসিডেন্সিয়াল দাখিল মাদ্রাসা, নোয়াখালী। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 মাস 4 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 44 টি টিউন ও 28 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 8 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস