Windows 10 এর বিভিন্ন Version এর কোডনেম ও কোডনাম্বার গুলো দিয়ে কী বুঝায়?

হ্যালো টেকটিউনস জনগণ, কেমন আছেন আপনারা সবাই? আশা করি সবাই ভাল আছেন। এখন থেকে নিয়মিত আবার নতুন টিউন নিয়ে আমরা হাজির হলাম আপনাদের কাছে। আর টেকটিউনসের নিত্যনতুন টপিক আর সার্ভিস নিয়ে ভালো না থেকে আর উপায় আছে? আর এই নিত্যনতুন টপিক আর সার্ভিসের ধারা বজায় রাখার নিমিত্তে, আজকে আমি আপনাদের সাথে একদম নতুন একটি টপিক নিয়ে হাজির হলাম। আর আপনারা এই টিউনের মাধ্যমে জানতে পারবেন অনেক নতুন নতুন সব তথ্য।

উইন্ডোজ ১০ এর অনেকগুল ভার্সন আছে, আর প্রত্যেকটির রয়েছে আলাদা আলাদা নাম এবং নাম্বার। উদাহরণস্বরূপ, অক্টোবর ২০২০ এর আপডেটকে 20H2, ভার্সন 2009 এবং বিল্ড 19042 নামে অবিহিত করা হয়। আর এর ফলে আপনার কাছে মনে হবে মাইক্রোসফট তাদের আপডেট এর নামটি ভিন্ন ভাষায় নামকরণ করেছে। আপনারা এই টিউনের মাধ্যমে মাইক্রোসফট এর জারগনটি সহজেই ডিকোড করতে পারবেন।

উইন্ডোজ এর কোডনেম ডেভেলপমেন্ট ("20H2")

প্রতিটি উইন্ডোজ ১০ এর আপডেটের ডেভেলপমেন্ট একটি কোড নাম্বার দিয়ে শুরু হয়। আর সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মাইক্রোসফট তাদের আপডেট এর কোডনেম গুলো সহজ করেছে।

উদাহরণস্বরূপ, উইন্ডোজ ১০ এর 20H2 দিয়ে অক্টোবর ২০২০ এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল। এই আপডেটের নাম "20H2" রাখা হয়েছিল কারন, এটি ২০২০ সালের দ্বিতীয়ার্ধে রিলিজ করার প্ল্যান করা হয়েছিল, কি একদম সিম্পল না?

থিউরি'র ক্ষেত্রে, উইন্ডোজ এর ডেভেলপমেন্টগুলোর কোডনেম শুধুমাত্রঃ উইন্ডোজ ডেভেলপমেন্ট প্রসেস এবং উইন্ডোজ ইনসাইডার এর উপর ভিত্তি করে রাখা হয়। আর প্র্যাকটিসের ক্ষেত্রে, মাইক্রোসফটের অনেকগুলো ডকুমেন্টেশন রয়েছে যা তারা ব্যবহার করে, উল্লেখ্য "20H2" এবং "20H1"। তাছাড়া এই আধুনিক ডেভেলপমেন্টের কোডনেমগুলো খুব সহজেই বোঝা সহজ, এবং এই কোডনেম এর পদ্ধতিটি মাইক্রোসফটের অনেকেই পছন্দ করেন।

আর এই ডেভেলপমেন্ট কোডনেমগুলো উইন্ডোজ ১০ এর ইন্টারফেসে ভার্সন নাম্বারগুলোকে প্রতিস্থাপন করছে। আপনি যদি Settings > System > About অপশনে নেভিগেট করেন, তাহলে আপনি উইন্ডোজ স্পেসিফিকেশনের অধীনে "version" এ এই কোডনেম গুলো দেখতে পাবেন।

এখানে, উইন্ডোজ ১০ এর ডেভেলপমেন্টের কোডনেম গুলোর একটি লিস্ট দেওয়া হলো, যাতে সর্বশষ আপডেট থেকে একদম প্রথম আপডেট এর কোডনেম উল্লেখ করার চেষ্টা করেছি।

  • 20H2 দিয়ে অক্টোবর 2020 এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছে।
  • 20H1 দিয়ে মে 2020 এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • 19H2 দিয়ে নভেম্বর 2019 এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • 19H1 দিয়ে মে 2019 এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Redstone 5 দিয়ে অক্টোবর 2018 এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Redstone 4 দিয়ে এপ্রিল 2018 এর আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Redstone 3 দিয়ে Fall Creators আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Redstone 2 দিয়ে Creators আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Redstone 1 দিয়ে Anniversary আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Threshold 2 দিয়ে নভেম্বরের প্রথম আপডেট কে বুঝানো হয়েছিল।
  • Threshold 1 হচ্ছে উইন্ডোজ ১০ এর অরিজিনাল ভার্সন।

উইন্ডোজ ১০ এর আপডেট বছরে দুটি ভার্সন রিলিজ করা হয়। আপনি খেয়াল করলে দেখবেন যে, ২০১৯ সালের দিকে মাইক্রোসফট একটি সহজ কোডনেম পদ্ধতি ফলো করেছিল এবং প্রায় দেড় বছর ধরে এই নিয়মেই তাদের আপডেট গুলোর নামকরণ করা হচ্ছে।

এর আগে, মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ১০ এর আপডেট গুলোর নাম “Redstone” দিয়েছিল, আর উইন্ডোজ ১০ অরিজিনাল ভার্সনের কোডনেম হচ্ছে Threshold।

মার্কেটিং নেম ("অক্টোবর 2020 আপডেট")

কিন্তু সাধারণ মানুষ এই ডেভেলপমেন্টের কোডনেম গুলো বুঝতে পারে না, তাইতো? আর এজন্যই সাধারণ জনগনের জন্য এই বিষয়গুলো "সহজ" করার জন্য, মাইক্রোসফট তাদের প্রতিটি আপডেটের জন্য অফিসিয়াল নাম তৈরি করেছিল, যাতে মানুষের কাছে সুন্দর এবং পাঠযোগ্য করে তোলা যায়। তাই যখন কোন আপডেট রিলিজের কাছাকাছি সময় চলে আসে তখন আপডেটের জন্য একটি নাম দেওয়া হয়।

আর বর্তমান সময়ের আপডেটগুলোর নামগুলো স্ব-ব্যাখ্যামূলক করা হয়েছে। যেমনঃ “October 2020 Update” এবং “May 2019 Update” একদম সহজেই বুঝা যায় যে এটি এই মাসে এবং এই বছরে আপডেটটি রিলিজ করা হয়েছিল। আগের চেয়ে এখন আরও সুনির্দিষ্টভাবে আপডেট এর নেম সহজভাবে বুঝানো হয় যেমনঃ “20H2” এবং “19H1”।

তাছাড়া বিস্তারিত নামগুলো সাধারণত উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমে দেওয়া হয় না, অন্যান্য ব্লগ টিউনে বা বিভিন্ন মার্কেটিং ভিডিওগুলোতে এই নামগুলো দেখে থাকবেন।

আমরা এই নামগুলোকে মার্কেটিং এর নাম বলে থাকি কারণ এগুলো মার্কেটিং এর জন্যই সহজভাবে উপস্থাপন করা হয়। আর উইন্ডোজ ১০ রিলিজ করার ১ বছর পরে তারা “Anniversary Update” আপডেট রিলিজ করেছে আর এই নামটি খুবই ভাল লেগেছে আমার কাছে।

এরপর, উইন্ডোজ ১০ এ যখন “Creators Update” রিলিজ দেওয়া হয়েছিল তখন Paint 3D এবং Windows Mixed Reality এর মতো ফিচার অ্যাড করা হয়েছিল। তারপরে “Fall Creators Update” আপডেটে অগের ফিচার গুলোর আরও ইম্প্রুভমেন্ট করা হয়েছিল।

মাইক্রোসফট তাদের অফিসিয়াল মার্কেটিং নেম “October 2020 Update” হিসেবে উপস্থাপন করা সত্ত্বেও, মাইক্রোসফট তাদের ডকুমেন্টে এই নামের পরিবর্তে "20H2" বা “version 2009” নামেও অবিহিত করা হয়।

এমনকি উইন্ডোজ ১০ এ এই নামটি ব্যবহার করা হয় না - সম্ভবত এটি ইঞ্জিনিয়ারদের দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল, মার্কেটিং বিভাগ দ্বারা নয়। আমার উপরের দেখানো Settings > System > About অপশনে নেভিগেট করে ভার্সনে দেখতে পাবেন "20H2" অথবা 2004 ভার্সন।

ভার্সন নাম্বার (“Version 2009”)

এটা সত্য যে, উইন্ডোজ ১০ এর ভার্সন নাম্বার রয়েছে যা ডেভেলপমেন্ত কোডনেম থেকে একদমই আলাদা।

উইন্ডোজ ১০ এর অক্টোবর 2020 আপডেটটি টেকনিক্যালি উইন্ডোজ ১০ ভার্সন 2009 হিসেবে পরিচিত। সুতরাং, এই নাম্বার দিয়ে মূলত বোঝানো হয় সেপ্টেমর ২০২০।

কিন্তু এটা তো ২০২০ এর অক্টোবর এর আপডেট, তাই না? হ্যা একদম ঠিক। কিন্তু মাইক্রোসফট এখানে আবার আমাদের বিভ্রান্ত করছে, এবং ভার্সন নাম্বারটি দিয়ে আসলে বোঝানো হয় যে মাসে আপডেটটি ফাইনালাইজ বা চূড়ান্ত করা হয়, আর তার ঠিক এক মাস পরেই আপডেট ভার্সনটি রিলিজ করা হয়।

নিম্নে উইন্ডোজ ১০ এর আপডেটের ভার্সন নাম্বারের একতি তালিকা দেওয়া হলঃ

  • অক্টোবর 2020 এর আপডেট ভার্সন নাম্বার 2009, যা দিয়ে সেপ্টেম্বর 2020 কে বোঝায়।
  • মে 2020 এর আপডেট ভার্সন নাম্বার 2004, যা দিয়ে এপ্রিল 2020 কে বোঝায়।
  • নভেম্বর 2019 এর  আপডেট ভার্সন নাম্বার 1909, যা দিয়ে সেপ্টেম্বর 2019 কে বোঝায়।
  • মে 2019 এর  আপডেট ভার্সন নাম্বার 1903, যা দিয়ে মার্চ 2019 কে বোঝায়।
  • অক্টোবর 2018 এর  আপডেট ভার্সন নাম্বার 1809, যা দিয়ে সেপ্টেম্বর 2018 কে বোঝায়।
  • এপ্রিল 2018 এর  আপডেট ভার্সন নাম্বার 1803, যা দিয়ে মার্চ 2018 কে বোঝায়।
  • ফল ক্রিয়েটার্স আপডেট এর  আপডেট ভার্সন নাম্বার 1709, যা দিয়ে সেপ্টেম্বর 2017 কে বোঝায় (এটি অক্টোবর 2017 এ প্রকাশিত হয়েছিল)
  • ক্রিয়েটার্স আপডেট এর  ভার্সন নাম্বার 1703, যা দিয়ে মার্চ 2017 কে বোঝায় (এটি এপ্রিল 2017 এ প্রকাশিত হয়েছিল)
  • Anniversary Update এর  ভার্সন নাম্বার 1607, যা দিয়ে জুলাই 2016 কে বোঝায় (এটি আগস্ট 2016 এ প্রকাশিত হয়েছিল)
  • November আপডেট এর  ভার্সন নাম্বার 1511, যা দিয়ে নভেম্বর 2015 কে বোঝায় (এটি একদম সঠিক!)
  • উইন্ডোজ 10-এর আসল ভার্সন এর নাম্বার হচ্ছে 1507, যা দিয়ে জুলাই 2015 কে বোঝায়।

মাইক্রোসফট বর্তমানে এই নাম্বারগুলো আর ব্যবহার করছে না এর পরিবর্তে তারা "20H2" ডেভেলপমেন্ট নাম ব্যবহার করছে, যা আপনি Settings > System > About অপশনে নেভিগেট করে জানতে পারবেন এবং winver কমান্ডের মাধ্যমেও জানতে পারবেন (একত্রে Windows+R প্রেস করুন, এবং winver টাইপ করে এন্টার প্রেস করুন)।

বর্তমানে মাইক্রোসফট এই নাম্বারগুলো ব্যবহার করা কমিয়ে দিচ্ছে, তবে আপনি কখনও কখনও এই নাম্বারগুলো দেখতেও পারেন। উদাহরণস্বরূপ, মাইক্রোসফট উইন্ডোজ  এর আপডেট এসিস্ট্যান্ট অক্টোবর 2020 আপডেটটিকে “version 2009” হিসেবেই উল্লেখ করেছে।

OS বিল্ড নাম্বার (“Build 19042”)

প্রতিটি উইন্ডোজ ১০ এ অপারেটিং সিস্টেমে (OS) বিল্ড নাম্বার রয়েছে। তাছাড়া উইন্ডোজ ডেভেলপমেন্ট প্রসেস চলাকালীন, Windows Insiders এ প্রতিটি উইন্ডোজ ১০ এর নিজস্ব "বিল্ড" নাম্বার থাকে।

তারপরে অনেক পরীক্ষা নিরীক্ষা এবং বাগ-ফিক্সিংয় করার পরে, মাইক্রোসফট একটি ফিইনাল বিল্ড নাম্বার সহ একটি স্ট্যাবল ভার্সন আপডেট রিলিজ করে এবং এই ভার্সনের ও একটি বিল্ড নাম্বার রয়েছে।

আপনারা যদি অক্টোবর ২০২০ এর আপডেট এর OS বিল্ড নাম্বারের দিকে খেয়াল করেন তাহলে দেখতে পারবেন "19042" রয়েছে। আর টেকনিক্যালি, ফুল বিল্ড নাম্বারটি হচ্ছে "10.0.19042", এটা দিয়ে বুঝায় এটি উইন্ডোজ ১০ এর একটি বিল্ড। আর প্রতিটি ক্ষেত্রেই শেষের পাঁচ সংখ্যাই পরিবর্তন হয়।

এছাড়াও, কিছু বিল্ড নাম্বার রয়েছে - 20H2 এর স্ট্যাবল ভার্সনটি “19042.572” এই বিল্ড নাম্বারে পরিচিত, তবে মাইক্রোসফট সময়ের সাথে সাথে যত ছোট আপডেট বা প্যাচ আপডেট দিবে তখন শুধু "572" সংখ্যাটি বাড়বে।

  • 20H2 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 19042।
  • 20H1 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 19041।
  • 19H2 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 18363।
  • 19H1 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 18362।
  • Redstone 5 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 17763।
  • Redstone 4 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 17134।
  • Redstone 3 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 16299।
  • Redstone 2 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 15063।
  • Redstone 1 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 14393।
  • Threshold 2 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 10586।
  • Threshold 1 এর বিল্ড নাম্বার হচ্ছে 10240।

উপরের নাম্বারগুলোর দিকে লক্ষ করলে কিছুটা বুঝতে পারা যায়, 20H2 হচ্ছে 20H1 এর আপডেট এর পর ছোট্ট একটি আপডেট দেওয়া হয়েছিল এবং ঠিক 19H2 হচ্ছে 19H1 এর পর পর ছোট্ট একটি আপডেট। তবে এটি সত্য 20H2 এবং 19H2 উভয় আপডেটই আগের আপডেটের তুলনায় বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন করা হয়েছিল।

আর উইন্ডোজ ১০ এর ডেভেলপমেন্ট ভার্সনের মধ্যের নাম্বারগুলোই হচ্ছে Windows Insiders এর প্রিভিউ হিসেবে রিলিজ করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, বিল্ড 19023 ডেভেলপমেন্ট প্রসেস চলাকালীন Insiders এ রিলিজ করা হয় 20H1 আপডেট ভার্সন। তবে মাইক্রোসফট 19024 বিল্ড নাম্বারে কোন আপডেট রিলিজ করা হয়নাই, তবে 19025 বিল্ড নাম্বারে একটি আপডেট রিলিজ করা হয়েছে, আর 19024 এর ভার্সনটি মাইক্রোসফট ইন্টার্নালি রাখবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফলে এই বিল্ড ভার্সনটি কখনই রিলিজ করা হয়নি।

তাছাড়া মাইক্রোসফট তাদের বিভিন্ন ডকুমেন্টে উইন্ডোজ এর বিল্ড নাম্বার উল্লেখ করে থাকে। উদাহরণস্বরূপ, কোন ডকুমেন্টে কোন নির্দিষ্ট ফিচার যুক্ত করা হয়েছিল তা জানা যায়, সুতরাং আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন উইন্ডোজ ডেভেলপমেন্ট প্রসেস কখন শুরু করা হয়েছিল। এছাড়াও আপনি যদি মাইক্রোসফটের Windows Insider blog এ কোন নির্দিষ্ট বিল্ড সম্পর্কে কোন তথ্য সার্চ করেন তাহলে আপনি যেকোন বিল্ডের লেটেস্ট আপডেট ভার্সন দেখতে পারবেন, উদাহরণস্বরূপ, 19023 বিল্ড নাম্বারের ডকুমেন্ট থেকে জানা যায় যে, 20H1 হচ্ছে এর আগের বিল্ড নাম্বার।

আপনি এগুলো জেনে কি করবেন?

উইন্ডোজ ১০ ভার্সন নেম বা বিল্ড নাম্বার এর দিকে খেয়াল করলে মনে হবে তারা হয়তো নতুন কোন সাংকেতিক ভাষায় তাদের ভার্সন নেম বা বিল্ড নাম্বার সেট করেছে। কেননা মাইক্রোসফট এর একটি ডকুমেন্টে 20H2 সম্পর্কে কথা বলেছে আবার অন্য ডকুমেন্টে 2009 ভার্সন নিয়ে কথা বলেছে, আর তাদের টেকনিক্যাল ডকুমেন্টে 19042 বিল্ড নাম্বার নিয়ে কথা বলা হয়েছে এবং মার্কেটিং ঠিক এই ভার্সনকেই অক্টোবর 2020 আপডেট বিষয়ে কথা বলে। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, তারা সকলেই কিন্তু একই জিনিস সম্পর্কে কথা বলছে।

আশাকরি, এখন আপনি বুঝতে পেরেছেন এগুলো জেনে আপনার কি উপকার হবে, কেননা মাইক্রোসফটের ওয়েব সাইটে এবং উইন্ডোজ ১০ এর যে ভার্সনই আপনি দেখেন না কেন আপনি তা খুব সহজেই বুঝতে পারবেন।

আমি আপনাদেরকে অনুরোধ করবো গুগল বা অন্য যেকোন সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে আপনি সহজেই উইন্ডোজ ১০ এর ভার্সন নেম বা বিল্ড নাম্বার সম্পর্কে আরও অনেক তথ্য জানতে পারবেন। আপনি যদি “version 1903, ” “build 18363, ” “19H2, ” বা “Fall Creators Update” ভার্সন নাম কোথাও দেখেন এবং আপনি নিশ্চিত নন যে এর মাধ্যমে কি বুঝানো হচ্ছে, তাহলে সেই কিওয়ার্ডটি সার্চ করুন, তাহলেই আপনি সেই কিওয়ার্ড সম্পর্কে অনেক অনেক তথ্য জানতে পারবেন।

টিউন জোসস করুন, আমার টিউন শেয়ার করুন, টেকটিউনসে আমাকে ফলো করুন, আপনাদের মতামত জানান

আমি এরকম নিত্যনতুন কাজের সফটওয়্যার নিয়ে টেকটিউনসে হাজির হবো নিয়মিত। তবে সে জন্য আপনার যা করতে হবে তা হলো আমার টেকটিউনস প্রোফাইলে আমাকে ফলো করার জন্য 'Follow' বাটনে ক্লিক করুন। আর তা না হলে আমার নতুন নতুন টিউন গুলো আপনার টিউন স্ক্রিনে পৌঁছাবে না।

আমার টিউন গুলো জোসস করুন, তাহলে আমি  টিউন করার আরও অনুপ্রেরণা পাবো এবং ফলে ভবিষ্যতে আরও মান সম্মত টিউন উপহার দিতে পারবো।

আমার টিউন গুলো শেয়ার বাটনে ক্লিক করে সকল সৌশল মিডিয়াতে শেয়ার করুন। নিজে প্রযুক্তি শিখুন ও অন্য প্রযুক্তি সম্বন্ধে জানান টেকটিউনসের মাধ্যমে।

Level 8

আমি রায়হান ফেরদৌস। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 153 টি টিউন ও 128 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 51 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস